এবাদত বন্দনায় মেতেছেন অ্যালান ডোনাল্ড

এবাদত বন্দনায় মেতেছেন অ্যালান ডোনাল্ড
Vinkmag ad

চলমান ঢাকা টেস্টে শ্রীলঙ্কান পেসারদের তুলনায় খুব একটা ভালো করতে পারেনি বাংলাদেশের পেসাররা। দ্বিতীয় দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে লিটন দাস বলে গেছেন তৃতীয় দিন দুই পেসার খালেদ আহমদ ও এবাদত হোসেনকে বড় ভূমিকা পালন করতে হবে। খালেদ এলোমেলো থাকলেও এবাদত ঠিকই ছাপ রেখেছেন। সংবাদ সম্মেলনে পেস বোলিং কোচ অ্যালান ডোনাল্ডের প্রশংসাও কুড়িয়েছেন।

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের ৩৬৫ রানের জবাবে দ্বিতীয় দিন ২ উইকেটে ১৪৩ রান তোলে শ্রীলঙ্কা। যেখানে বিবর্ণ ছিলেন দুই পেসার এবাদত ও খালেদ। খালেদ ৯ ওভারে ২৭ রান খরচায় ছিলেন উইকেট শূন্য। সমান ওভার বল করে এবাদত পেয়েছিলেন এক উইকেট।

আজ তৃতীয় দিন সকাল থেকেই অবশ্য ভিন্ন এবাদতকে খুঁজে পাওয়া যায়। দিনের দ্বিতীয় বলেই ফেরান নাইটওয়াচম্যান কাসুন রাজিথাকে। পুরো দিনে উইকেট ঐ একটিই, কিন্তু ছিলেন নিয়ন্ত্রিত।

বল করেছেন ৪ স্পেলে, প্রথম ৩ স্পেল পুরোনো বলে হলেও শেষ স্পেল করেছেন নতুন বলে। প্রথম স্পেলে ৫ ওভারে ৯ রান, ২ মেডেন ও ১ উইকেট। দ্বিতীয় স্পেলে ৪ ওভারে ১ মেডেনে ১৪ রান খরচ করেন, পাননি কোনো উইকেট।

লাঞ্চের পর তৃতীয় ওভারে আক্রমণে আসেন এবাদত। তৃতীয় স্পেলে ৪ ওভারে ১ মেডেন সহ ১০ রান, ছিল না কোনো উইকেট। উইকেট বিহীন শেষ স্পেলে ৪ ওভারে দেন ১৪ রান। শেষ স্পেলটা করেছেন নতুন বলে। পুরো দিনে ১৭ ওভার বোলিং করে ৪৭ রান দিয়ে নেন ১ উইকেট।

পরিসংখ্যান দিয়ে আসলে বোঝানো সম্ভব নয় প্রতিপক্ষ ব্যাটারদের কতটা সংগ্রামের মধ্যে ফেলেছেন। দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে অ্যালান ডোনাল্ডও সেটিই যেন তুলে ধরলেন।

তিনি বলেন, ‘খালেদ আর এবাদত শেখায় ব্যস্ত। মানসিকতা ও সারিবদ্ধতা নিয়ে আমরা ধারাবাহিকভাবে ব্যস্ত। আমার মনে হয় এবাদত আজকে দুর্দান্ত ছিল। আমার মনে হয়েছিল সে আজকে সারাদিন দৌড়াবে। চা বিরতির পর আমি তাকে বলেছিলাম বল নিতে। সে সেটা আবার করেছে এবং প্রতিপক্ষের সমস্যার কারণ হয়েছে।’

যে ধরণের বোলিং এবাদত করেছেন তাতে অনায়েসেই নামের পাশে ৫ উইকেট থাকতে পারতো বলে মনে করেন ডোনাল্ড, ‘আজকে আমার কাছে এবাদত দুর্দান্ত। সে আসলেই দুর্দান্ত। সে এমন একজন যাকে আমি অনুশীলনে দেখার পর মনে হয় সে আজকে ক্লিক করবে। সে আজকে যেভাবে বল করেছে সেটা স্কোর বোর্ড দ্বারা বুঝানো যাবে না। সে চার বা ৫ উইকেট পেতে পারতো। তার স্পেলটা এমনই ছিল।’

আজ সারাদিনে ৬ ওভারের বেশি বল করেননি খালদে, ৩৩ রান দিয়ে ছিলেন খরুচেও। যদিও পেস বোলিং কোচ আশাবাদী আগামীকাল (চতুর্থ দিন) ভালো কিছু হতে পারে।

‘খালেদ অবশ্য ঠিকঠাক করতে পারেনি। কিন্তু কালকে দারুণ একটা দিন। সকালে দ্রুত আমাদের কিছু পুলস প্রয়োজন। পিচ আমাদের যথেষ্ট কাজ করার সুযোগ দিচ্ছে, যেটা প্রতিটি সকালেই দেয়।’

‘আমার পরিকল্পনা খুবই পরিমিত। কোনো কিছু করতে আমি কোনো ছেলেকে একদিনে ১৬টা পরিকল্পনা দেব না। এটা খুবই সাধারণ জিনিস, যেটা দিয়ে আমরা ভালো করতে পারি। আমাদের পেসারদের সঙ্গে সবসময়ই প্রক্রিয়া নিয়ে কথা হয়। আমাদের প্রক্রিয়াটা এমন নয় যে, শুধু আউট সুইংঙ্গার, আউট সুইংঙ্গার, ইন সুইংঙ্গার, বিশেষ করে নতুন বলে।’

‘আমাদের প্রক্রিয়াটা হলো লিটনের গ্লাভস খুঁজে পাওয়া। এটাই টেস্ট ম্যাচের প্রক্রিয়া। আমি এভাবেই বেড়ে উঠেছি। এভাবেই আপনি চাপ তৈরি করতে পারেন। পরিকল্পনাটা একেবারে সাধারণ এবং বেসিক। আমি শুধু নিশ্চিত করতে চাই আমরা এটাতে ঠিকঠাক করছি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

চতুর্থ দিনে শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং পরিকল্পনা কি? শোনালেন নাভিদ নেওয়াজ

Read Next

তাইজুল ইসলামকে শাস্তি দিল আইসিসি

Total
1
Share