ব্যাটিং অর্ডারে উন্নতি, লিটন তাকিয়ে বড় ভাইদের দিকে

ব্যাটিং অর্ডারে উন্নতি, লিটন তাকিয়ে বড় ভাইদের দিকে
Vinkmag ad

ক্যারিয়ারের শুরুর কয়েক বছর বেশ হতাশা উপহার দেওয়া লিটন দাস গত দুই বছরে আছেন দুর্দান্ত ফর্মে। টেস্ট ক্রিকেটে ৭ নম্বর পজিশনে ব্যাট করতে হচ্ছে দলের কম্বিনেশনের কারণে। তবুও আক্ষেপ নেই এই ব্যাটারের। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ঢাকা টেস্টে ১৪১ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলে লিটন বলছেন সিনিয়র ক্রিকেটাররা না থাকলেই কেবল ভবিষ্যতে উপরের দিকে খেলতে পারবেন।

চলতি বছর তিন ফরম্যাট মিলিয়ে ১৯ ইনিংসে লিটন দাসের রান ৯১৫। ফরম্যাটটা টেস্ট হলে লিটন আরও বেশি ধারাবাহিক। ৬ ইনিংসে ৫০৬ রান করেছেন, গড় ৫৬.২২।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চলতি ঢাকা টেস্টের প্রথম ইনিংস সহ মোট ৫৫ ইনিংস ব্যাট করেছে লিটন। ওপেনার হিসেবে খেলেছেন ১০টিতে, যেখানে তার রান ১৫৩। একটি ইনিংসেই নেমেছিলেন তিন নম্বরে, করেছেন ৩৩ রান। ৬ ইনিংস ৫ নম্বরে খেলে ১ সেঞ্চুরি আর ১ ফিফটিতে ২৪১ রান করেছেন।

৬ নম্বর পজিশনে লিটন খেলেছেন সব মিলিয়ে ১৫ ইনিংস। ১ সেঞ্চুরি আর ৫ ফিফটিতে এই পজিশনে লিটনের রান ৬১৫। ক্যারিয়ারে লিটন সবচেয়ে বেশি ২১ ইনিংস খেলেছেন ৭ নম্বরে, এই পজিশনে চলতি ম্যাচেই পেয়েছেন প্রথম সেঞ্চুরি। তবে এই পজিশনেই তার সর্বোচ্চ গড় (৪৩ এর বেশি)।

চট্টগ্রামে প্রথম টেস্টে ৮৮ রানে আউট হয়ে সেঞ্চুরি মিস করেছেন। তবে ঢাকায় দলের প্রয়োজনে খেললেন অসাধারণ এক ইনিংস।

২৪ রানে ৫ উইকেট হারানো বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ৩৬৫ রান করতে পেরেছে লিটন ও মুশফিকের ব্যাটে। দুজনে মিলে গড়েন রেকর্ড ২৭২ রানের জুটি। ২৪৬ বলে লিটনের ব্যাটে ১৬ চার ১ ছক্কায় ক্যারিয়ার সেরা ১৪১। অন্যদিকে মুশফিক অপরাজিত ছিলেন ১৭৫ রানে।

আজ দ্বিতীয় দিন সংবাদ সম্মেলনে নিজের ব্যটিং অর্ডার নিয়ে বললেন, ‘আমি যে এ বছর রান করলাম। কততে নেমে করছি? আস্তে আস্তে আসছি তো, সুযোগ আসবে। যখন বড় ভাইরা কেউ না কেউ খেলবে না, তখন আমাকে সুযোগ দেওয়া হবে। এখন আমি সুযোগ দেখছি না উপরে আসার মতো। ভালো আছি, যেখানেই আছি।’

খারাপ সময় পেছনে ফেলে লিটন কাটাচ্ছেন স্বপ্নের মতো সময়। দুই ধরণের ক্রিকেটার দেখা যায়, কেউ পরিসংখ্যানে নজর রাখেন বেশ ভালোভাবে। অন্যদিকে এক শ্রেণির ক্রিকেটার কেবল নিজের খেলাতেই দেন মনযোগ, পরিসংখ্যান নিয়ে ভাবেন না খুব একটা।

লিটন কোন শ্রেনীতে আছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘যখন দেখতাম, দেখতাম খুব ব্যাকফুটে আমি। ওখান থেকে চ্যালেঞ্জ ছিল সামনে এগোনোর। এখন আর দেখি না, কারণ এখন সামনে এগিয়ে যাওয়ারই চিন্তা। জানি না কতদূর যেতে পারব।’

এমনিতে লিটনের হাতে আছে বেশ কয়েকটি শট। যেখানে সাম্প্রতিক সময়ে পুল শটে দেখাচ্ছেন দক্ষতা, দর্শকদের করছেন মুগ্ধ, কুড়াচ্ছেন প্রশংসা।

নিজের পুল শটে উন্নতি নিয়ে লিটোনের ভাষ্য, ‘একেক খেলোয়াড়ের একেক শট থাকে। আমার কাছে মনে হয় গত এক-দেড় বছর ধরে ভালো পুল শট খেলছি। নিয়ন্ত্রণ আমার কাছেই আছে। এই বিশ্বাস ছিল- ও শর্ট বল করলেও আমি ওখান থেকে বের হয়ে আসতে পারব এবং রান করতে পারব। ঐ আত্মবিশ্বাস ছিল দেখেই খেলে গেছি নিয়মিত।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সাফল্যের রহস্য নিজের ভেতরেই রাখতে চান লিটন

Read Next

মিরপুরের অচেনা রূপ, এবাদত-খালেদের বড় ভূমিকা দেখেন লিটন

Total
1
Share