মুশফিক যেকোন সময় জ্বলে উঠবে, বিশ্বাস কোচের

চোট পেয়ে থেমেছে মুশফিকের ব্যাটিং অনুশীলন
Vinkmag ad

মুশফিকুর রহিমের ফর্মটা ঠিকঠাক যাচ্ছে না। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের পর ঘরোয়া ক্রিকেটে ফিরেও যাত্রাটা শুভ হল না। ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে (ডিপিএল) দল বদলে সুপার লিগে নাম লেখালেন শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবে। প্রথম ম্যাচে জ্বলে না উঠলেও কোচ সোহেল ইসলাম বলছেন তাদের বিশ্বাস মুশফিক যেকোনো সময় বড় ইনিংস খেলবেন।

সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে ৩ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে সাকূল্যে রান করেছেন ৫০। দুই টেস্টের ৪ ইনিংসে রান ৫৯! যেখানে দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৫১ রান করলেও অসময়ে রিভার্স সুইপ খেলে দলকে বিপদে ফেলে হয়েছেন সমালোচিত। বাকি ইনিংসগুলো ৭, ০ ও ১।

এমন বাজে সফর শেষে দেশে ফেরার আগেই ডিপিএলে তার দল মোহামেডান প্রথম পর্বেই বিদায় নেয়। ফলে ফাঁকা সময়ে দল বদলে শেখ জামালে নাম লেখান। দলটি প্রথম পর্ব শেষ করেছিল শীর্ষে থেকে, সুপার লিগের প্রথম দুই ম্যাচ জিতে শিরোপার দ্বারপ্রান্তে।

রূপগঞ্জ টাইগার্সের বিপক্ষে ম্যাচে খেলেন মুশফিক, তবে থেমছেন ৩২ রানেই। পরে খাদের কিনারা থেকে দলকে টেনে তুলে দারুণ এক সেঞ্চুরিতে জয় এনে দেন নুরুল হাসান সোহান।

বাকি ৩ ম্যাচে দলের প্রয়োজনে মুশফিকও জ্বলে উঠবে বিশ্বাস কোচ সোহেল ইসলামের। আগামীকাল (২৪ এপ্রিল) তারা মুখোমুখি হচ্ছে প্রাইম ব্যাংকের বিপক্ষে।

তার আগে আজ (২৩ এপ্রিল) অনুশীলন শেষে মিরপুরে মুশফিককে নিয়ে তিনি বলেন, ‘মুশফিক এখানে রান করবে আমরা আত্মবিশ্বাসী এবং যেকোনো সময় সে দলের জন্য বড় স্কোর করবে যা দলকে সাহায্য করবে এটা আমরা বিশ্বাস করি।

মুশফিক আগের মৌসুমে খেলেছেন ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন আবাহনীর হয়ে। তার মতো ক্রিকেটারের অভিজ্ঞতা ড্রেসিংরুমে তরুণ ক্রিকেটারদের পরিস্থিস্তি বুঝতে শেখায় বলছেন সোহেল ইসলাম।

‘তাদের (মুশফিক) অনেক অভিজ্ঞতা, এই অভিজ্ঞতাগুলো ভাগাভাগি করে। এ ধরণের বড় ম্যাচ খেলতে গেলে ছেলেদের মানসিকভাবে কি অবস্থার মধ্যে থাকতে হয় এ জিনিসগুলো ছেলেরা শিখছে।’

সবমিলিয়ে ২২ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থাকা শেখ জামালের শিরোপা অনেকটা নিশ্চিত। যেখানে দ্বিতীয় স্থানে থাকা লেনেজন্ডস অব রূপগঞ্জের পয়েন্ট ১৮। ফলে শেখ জামাল কোনো কারণে শিরোপা না জিতলে সেটাই হবে অস্বাভাবিক ও আশ্চর্যজনক। তবে দলটির কোচ নিজেদের সম্ভাবনা বেশি দেখলেও ক্রিকেট অনিশ্চিত খেলা বলেই শেষ হওয়ার আগে কিছু বলতে চান না।

‘ক্রিকেটে যতক্ষণ না শেষ হচ্ছে ততক্ষণ আপনি নিশ্চিত হয়ে বলতে পারেন না আসলে কিছুই। তো আমি বলবো যে আমাদের সম্ভাবনাটা সবচেয়ে বেশি। স্বাভাবিকভাবেই আমরা গত ম্যাচগুলো যেভাবে খেলে এসেছি সেভাবে আমাদের নজর থাকবে এবং আমরা সেই লক্ষ্য নিয়েই খেলছি।’

তারকা নির্ভর দল না গড়েও এমন সাফল্যের রহস্য হিসেবে সোহেল ইসলাম বলছেন দল হয়ে খেলাটাই কাজে দিয়েছে, ‘আমাদের ভালো করার পেছনে দুইটা কারণ। একটা হল টিম কম্বিনেশনটা ভালো ছিল, অলরাউন্ডার বেশি থাকাতে বোলিং বিকল্প বেশি ছিল। ব্যটিং অর্ডারটাও লম্বা ছিল। এটা একটা জিনিস আর আমরা দল হিসেবেও ভালো খেলেছি। দল হিসেবে না খেললে আমাদের মাঝারি মানের দল নিয়ে ভালো খেলা কঠিন ছিল।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

জীবনের সেরা ফর্মে আছেন জস বাটলার

Read Next

সাকিব দলের সঙ্গে ভালোভাবেই জড়িয়েছেন, বলছেন কোচ আফতাব

Total
51
Share