জয়ের জন্য চায় ৪১৩, ধুকছে বাংলাদেশ

দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস ঘোষণা, বাংলাদেশের চায় ৪১৩ রান
Vinkmag ad

পোর্ট এলিজাবেথের সেন্ট জর্জ পার্কে ৮ এপ্রিল থেকে শুরু হয়েছে বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার ২য় টেস্ট। এই টেস্টের ২য় দিনের খুটিনাটি আপডেট এই লাইভ রিপোর্টে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (৩য় দিন শেষে):

দক্ষিণ আফ্রিকা ১ম ইনিংসে ৪৫৩/১০ (১৩৬.২), এলগার ৭০, এরউই ২৪, পিটারসেন ৬৪, বাভুমা ৬৭, রিকেলটন ৪২, ভেরেনে ২২, মুলডার ৩৩, মহারাজ ৮৪, হারমার ২৯, উইলিয়ামস ১৩, অলিভিয়ার ০*; খালেদ ২৯-৬-১০০-৩, মিরাজ ২৬.২-৪-৮৫-১, তাইজুল ৫০-১০-১৩৫-৬

বাংলাদেশ ১ম ইনিংসে ২১৭/১০ (৭৪.২), তামিম ৪৭, জয় ০, শান্ত ৩৩, মুমিনুল ৬, মুশফিক ৫১, লিটন ১১, ইয়াসির ৪৬, মিরাজ ১১, তাইজুল ৫, খালেদ ০*, এবাদত ০; অলিভিয়ার ১৫-৪-৩৯-২, হারমার ১০.২-১-৩৯-৩, মহারাজ ২৪-৬-৫৭-২, মুলডার ১৩-৭-২৫-৩

দক্ষিণ আফ্রিকা ২য় ইনিংসে ১৭৬/৬ (৩.৯.৫ ওভারে ইনিংস ঘোষণা), এরউই ৪১, এলগার ২৬, পিটারসেন ১৪, বাভুমা ৩০, রিকেলটন ১২, ভেরেনে ৩৯*, মুলডার ৬; খালেদ ১০-০-৩৮-১, তাইজুল ১৫-২-৬৭-৩, মিরাজ ৯.৫-৩-৩৪-২

বাংলাদেশ ২য় ইনিংসে ২৭/৩ (৯.১), তামিম ১৩, জয় ০, শান্ত ৭, মুমিনুল ৫*; মহারাজ ৫-১-১৭-২, হারমার ৪.১-১-৮-১

বাংলাদেশের জিততে চায় ৩৮৬ রান, দক্ষিণ আফ্রিকার ৭ উইকেট।

জয়ের পেয়ার, ফিরেছেন শান্তওঃ 

দক্ষিণ আফ্রিকা-বাংলাদেশ টেস্ট সিরিজের একমাত্র সেঞ্চুরিটি এসেছে মাহমুদুল হাসান জয়ের ব্যাটে। ডারবান টেস্টের প্রথম ইনিংসে ১৩৭ রান করেছিলেন জয়। তবে পোর্ট এলিজাবেথে এসে যারপরনাই ব্যর্থ জয়। দুই ইনিংসেই কোন রান করতে না পারা জয় পেয়েছেন পেয়ার।

জয়কে অনুসরণ করে দ্রুত সাজঘরে ফিরেছেন নাজমুল হোসেন শান্তও। ১০ বলে ১ চারে ৭ রান করেন তিনি। ১১ রান তুলতেই ২ উইকেট নেই বাংলাদেশের।

দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস ঘোষণাঃ

৬ উইকেটে ১৭৬ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করেছে স্বাগতিকরা। ম্যাচ জিততে অসাধ্য কিছুই করতে হবে বাংলাদেশকে, তুলতে হবে ৪১৩ রান। অন্যদিকে আজকের বাকি থাকা ১২ ওভার সামনের দুই দিনে প্রোটিয়াদের চায় ১০ উইকেট।

ফিরলেন বাভুমাঃ 

রঙিন ও সাদা দুই পোশাকেই ব্যাট হাতে বাংলাদেশকে ভুগিয়েছেন টেম্বা বাভুমা। এবারের সফরে শেষবারের অত সাজঘরে ফিরলেন বাভুমা। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরেন বাভুমা। ৫৬ বলে ২ চারে ৩০ রান করেন তিনি। ১৫৪ রানের মাথায় ৫ম উইকেট হারায় প্রোটিয়ারা।

দক্ষিণ আফ্রিকার ৪, তাইজুলের ৩ঃ 

কিগান পিটারসেন সাজঘরে ফেরার পরবর্তী ওভারেই আউট হন সারেল এরউই। এবার অবশ্য উইকেট পাওয়া বোলারের নাম তাইজুল ইসলাম না। ৬৬ বলে ৫ চারে ৪১ রান করা এরউইকে মুমিনুল হকের ক্যাচ বানিয়ে ফেরান খালেদ আহমেদ।

পরে মুমিনুল হক ধরেন আরও এক ক্যাচ। তাইজুল ইসলামের ৩য় শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন রায়ান রিকেলটন। তার ব্যাট থেকে আসে ১২ রান।

তাইজুলের জোড়া শিকার, বাড়ছে লিডের বোঝা:

বাংলাদেশকে ফলো অনে না ফেলে ২য় ইনিংসে আবার ব্যাট করতে নামা প্রোটিয়ারা তাদের লিড ৩০০ পার করে ফেলেছে। ২ উইকেটে ৮৪ রান করে চা বিরতিতে গেছে তারা। ২ উইকেটই নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। ২৬ রান করা ডিন এলগারকে বোল্ড করে ও কিগান পিটারসেনকে এলবিডব্লিউ করে ফিরিয়েছেন তিনি।

চা বিরতি পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকা লিড নিয়েছে ৩২০।

স্ট্রেচারে করে মাঠ ছাড়লেন মিরাজঃ 

দক্ষিণ আফ্রিকার ২য় ইনিংসের ২য় বল। এবাদত হোসেন পেতে পারতেন সারেল এরউই এর উইকেট। তবে তেমনটা তো হয়ি নি, উলটো ইনজুরিতে মাঠ ছাড়তে হয়েছে মেহেদী হাসান মিরাজকে। মিরাজ বল স্পট করতে পারেননি, আচমকা বল আঘাত করে তার পেটে। তৎক্ষনাৎ ব্যাথায় শুয়ে পড়েন মিরাজ। ফিজিও তার অবস্থা দেখে স্ট্রেচারে করে মাঠের বাইরে নিয়ে যান।

বাংলাদেশকে ফলো অনে ফেলল না দক্ষিণ আফ্রিকাঃ

৭ উইকেটে ৩য় দিনের লাঞ্চ বিরতিতে যাওয়া বাংলাদেশ অলআউট হতে লাঞ্চ বিরতির পর আর সময় নিল না। ৭৪.২ ওভারে মাত্র ২১৭ রানেই অলআউট টাইগাররা। ফও অন এড়াতে না পারলেও দক্ষিণ আফ্রিকা বাংলাদেশকে ফলো অনে ফেলায়নি।

২৩৬ রানে এগিয়ে থেকে ২য় ইনিংসে ব্যাট করবে দক্ষিণ আফ্রিকা।

বাংলাদেশকে বিপদে ফেলে ফিরলেন মুশফিকঃ 

লাঞ্চ বিরতির আগে আর কয়েক মিনিট বাকি। সিমন হারমারের করা ইনিংসের ৬৯ তম ওভারের ১ম বলে মুশফিকুর রহিম হাঁকালেন বাউন্ডারি। সেই চারে পঞ্চাশ পুর্ণ করেন মুশফিক। পরের বলেই লেগ বিফোর উইকেটের আবেদন, আম্পায়ার নাকচ করে দিলে রিভিউ নেয়নি দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে মুশফিক প্রোটিয়াদের আক্ষেপ বাড়াননি। হারমারের নিচু হয়ে যাওয়া বলে রিভার্স সুইপ করতে যেয়ে বোল্ড হন তিনি।

৭ উইকেটে ২১০ রান নিয়ে ৩য় দিনে লাঞ্চ বিরতিতে গেছে বাংলাদেশ। ২৪৩ রানে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশের সামনে এখনো ফলো অনের শঙ্কা।

ফিরলেন রাব্বিঃ 

দিনের শুরু করেছিলেন টানা ৩ বাউন্ডারি দিয়ে। ইয়াসির আলি চৌধুরী রাব্বি খেলছিলেন সাবলীলভাবেই। জমে উঠেছিল মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে তার জুটিও। তবে ফিফটির খুব কাছে যেয়ে আউট হন রাব্বি। ৮৭ বলে ৭ চারে ৪৬ রান করে কেশব মহারাজের বলে তাকেই ক্যাচ দেন রাব্বি। এতে ভাঙে মুশফিক-রাব্বির ৭০ রানের জুটি। দলীয় ১৯২ রানে বাংলাদেশ হারায় ৬ষ্ঠ উইকেট।

বাউন্ডারির হ্যাটট্রিকে বাংলাদেশের দিন শুরুঃ

বৃষ্টির পর খেলা শুরু হলে টানা ৩ বাউন্ডারি দিয়ে দিনের শুরু করেন ইয়াসির আলি চৌধুরী রাব্বি। লিজাড উইলিয়ামসের বলে টানা ৩ বাউন্ডারি আদায় করে নেন রাব্বি। ৩য় চারে বাংলাদেশ পার করে ১৫০ রানের গন্ডি।

বৃষ্টিতে খেলা শুরু হতে দেরিঃ

পোর্ট এলিজাবেথে আজ বৃষ্টির কারণে আজ খেলা ২০ মিনিট পরে শুরু হয়। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর (২য় দিন শেষে):

দক্ষিণ আফ্রিকা ৪৫৩/১০ (১৩৬.২), এলগার ৭০, এরউই ২৪, পিটারসেন ৬৪, বাভুমা ৬৭, রিকেলটন ৪২, ভেরেনে ২২, মুলডার ৩৩, মহারাজ ৮৪, হারমার ২৯, উইলিয়ামস ১৩, অলিভিয়ার ০*; খালেদ ২৯-৬-১০০-৩, মিরাজ ২৬.২-৪-৮৫-১, তাইজুল ৫০-১০-১৩৫-৬

বাংলাদেশ ১৩৯/৫ (৪১), তামিম ৪৭, জয় ০, শান্ত ৩৩, মুমিনুল ৬, মুশফিক ৩০*, লিটন ১১, রাব্বি ৮*; অলিভিয়ার ৯-৪-১৭-২, মুলডার ৬-৩-১৫-৩

বাংলাদেশ ৩১৪ রানে পিছিয়ে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ইমরান খানের বিদায়ে রমিজ রাজার ভবিষ্যত নিয়ে শঙ্কা

Read Next

অবশেষে নিরপেক্ষ আম্পায়ার ফেরাল আইসিসি

Total
20
Share