বেশ ঝুঁকি থাকা স্বত্বেও মুশফিককে সুইপ খেলতে উৎসাহী করছেন সিডন্স

বেশ ঝুঁকি থাকা স্বত্বেও মুশফিককে সুইপ খেলতে উৎসাহী করছেন সিডন্স
Vinkmag ad

সুইপ কিংবা স্লগ সুইপ মুশফিকুর রহিমের পছন্দের শটের তালিকায় উপরের দিকেই থাকবে। শুধু পছন্দ করেন না, অন্য অনেকের চেয়ে এই শটগুলো খেলায় বেশি দক্ষও মিস্টার ডিপেন্ডেবল। কিন্তু পরিস্থিতির চাহিদা মেটাতে অপ্রয়োজন এমন সময়েও এসব শট খেলে দলকে বিপদে ফেলার নজিরও আছে। তবে ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্স বলছেন এটি তার শক্তির জায়গা ফলে বেশ ঝুঁকি থাকা স্বত্বেও এসব শটে তাকে উৎসাহী করছেন।

পোর্ট এলিজাবেথে ফলো অনের শঙ্কায় বাংলাদেশ, দলের আশা হয়ে ক্রিজে আছেন মুশফিক। প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার ৪৫৩ রানের জবাবে ৫ উইকেটে ১৩৯ রান তুলে দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। ৩১৪ রানে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশের ভরসা হয়ে ক্রিজে আছেন মুশফিক (৩০*) ও ইয়াসির আলি রাব্বি (৮*)।

মুশফিক যখন ক্রিজে আসেন তখন ৮৫ রানে ৩ উইকেট নেই বাংলাদেশের। ক্রিজে আসার পর সাঝঘরে ফেরে আরও দুই ব্যাটার। সব মিলিয়ে কঠিন এক পরিস্থিতিতেই ব্যাট করতে হচ্ছিল মুশফিককে। সাম্প্রতিক সময়ে ফর্ম ঠিকঠাক নেই বলে নিজের উপর চাপও ছিল কিছুটা। অথচ প্রোটিয়া দুই স্পিনারকে পেয়ে নিজের পছন্দের তবে ঝুকিপূর্ণ সুইপ খেলতে দ্বিধা করেননি।

যে কয়টা সুইপ শট খেলেছেন তাতে সাফল্যের হারই বেশি। কিন্তু পরাস্তও হয়েছেন দুই একবার। কেশব মহারাজকে মোকাবেলা করা দ্বিতীয় বলেই সুইপ করে স্কয়ার লেগে চার মারেন মুশফিক। তবে দ্বিতীয় দফায় সুইপ করতে গিয়ে পরাস্ত হন, বল ধরা পড়ে প্রথম স্লিপে।

দক্ষিণ আফ্রিকা রিভিউ নিলেও দেখা যায় বল ব্যাট কিংবা গ্লাভস কোথাও স্পর্শ করেনি, প্যাডে লাগলেও স্টাম্প মিস করে। এরপর মহারাজকে আরেক দফা সুইপ করে মিড উইকেট দিয়ে হাঁকান চার। সিমন হারমারকে মোকাবেলা করা প্রথম বলেও সুইপ মুশফিকের, পেয়েছেন বাউন্ডারি। হারমারকে পরের বার সুইপ করে পান সিঙ্গেল।

দলের পরিস্থিতি আরও খারাপ করতে তার অহেতুক সুইপ খেলার প্রবণতা দায়ী হত উইকেট বিলিয়ে আসলে। তবে সেরকম কিছু না হলেও দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে এ প্রসঙ্গে উত্তর দিতে হয় ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্সকে।

তার মতে মুশফিকের শক্তির জায়গা বলে এসব শটে তাকে উৎসাহী করছেন তারা। এ ছাড়া ম্যাচে দলকে খানিক স্বস্তি এনে দিতে কিছু ঝুঁকি নেওয়ার পক্ষেও এই অস্ট্রেলিয়ান।

তিনি বলেন, ‘স্পিনারদের বিপক্ষে আমাদের আক্রমণাত্মক থাকতে হবে। ব্যাট-প্যাডারদের খেলা থেকে সরাতে আমাদের কিছু ঝুঁকি নিতেই হবে। মুশফিক সহজাতভাবে সুইপে দারুণ। এখানে খানিক বাউন্স ও টার্ন আছে কিন্তু সুইপ করতে গিয়ে আমরা এখনো কোনো উইকেট হারাইনি। আমরা উইকেট হারিয়েছি অন্য কিছু করতে গিয়ে।’

‘আপনি রাব্বিকে হয়তো সুইপ করতে দেখবেন না কিন্তু মুশফিক এটা চালিয়ে যাবে। এটা তার শক্তির জায়গা এখনো সেখানেই আছে। যদি সে দ্বিধা দ্বন্দ্বে ভুগে এবং আশেপাশের বলগুলোতে খোঁচা মারে তবেই সে আউট হতে পারে। সুতরাং আমার মনে হয় এটাতে উৎসাহী করা উচিৎ। এটা হয়তো উচ্চ ঝুকির বিষয় তবুও ঠিক আছে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ড্রেসিং রুমে স্বস্তি ফিরিয়েও মানসিক দুর্বলতায় আউট হয়েছেন তামিম: সিডন্স

Read Next

হায়দ্রাবাদের প্রথম জয়, চেন্নাইয়ের টানা ৪র্থ হার

Total
9
Share