ড্রেসিং রুমে স্বস্তি ফিরিয়েও মানসিক দুর্বলতায় আউট হয়েছেন তামিম: সিডন্স

হল না তামিমের ফিফটি, ফিরলেন শান্তও
Vinkmag ad

পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ফলো অনের শঙ্কায় বাংলাদেশ। প্রোটিয়াদের ৪৫৩ রানের জবাবে ৫ উইকেটে ১৩৯ রানে দিন শেষ করেছে টাইগাররা। ওপেনার তামিম ইকবাল এক বছর পর টেস্ট খেলতে নেমে দারুণ শুরু পেয়েও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি। সংবাদ সম্মেলনে ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্স বলছেন তামিম আউট হয়েছেন মানসিক দুর্বলতার কারণে। তবে দ্রুতই এই সমস্যা সমধান নিয়ে কাজ করবেন তারা।

ইনিংসের প্রথম ওভারেই মাহমুদুল হাসান জয়কে (০) হারায় বাংলাদেশ। সেখান থেকে তিন নম্বরে নামা নাজমুল হোসেন শান্তকে নিয়ে ৭৯ রানের জুটিতে সাবলীল ব্যাটিং তামিমের। ডুয়েনে ওলিভিয়ার, লিজাড উইলিয়ামসের পেস সামলে সিমন হারমার, কেশব মহারাজের স্পিনের বিপক্ষেও সহজাত ব্যাটিং করছিলেন। নিয়মিত বিরতিতে হাঁকিয়েছেন বাউন্ডারি।

কিন্তু প্রথম ওভার করতে আসা পেসার উইয়ান মুলডারেই ঘটেছে বিপত্তি। অফ স্টাম্পের বাইরে থেকে ভেতরে ঢোকা বলে পরাস্ত হন। ৫৭ বলে ৮ চারে ৪৭ রানে এলবিডব্লিউর শিকার হয়ে ফেরেন সাঝঘরে।

নিজের খেলা ৮ম বলে প্রথম বাউন্ডারি হাঁকানো তামিম এরপর শট খেলেছেন নিয়মিত বিরতিতে। তবে কী অতিরিক্ত শট ও আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করতে গিয়েই বিপদ ডেকে আনেন বাঁহাতি এই ব্যাটার।

ব্যাটিং কোচ সিডন্স তেমনটা মনে করেন না। যদিও বলছেন আউট হওয়া বলে চার মেরে ফিফটিতে যেতে চেয়েছেন তামিম। কিন্তু যে কারণে তামিম আউট হয়েছেন সেটি মানসিক দুর্বলতা হিসেবেই দেখালেন।

‘তামিমের ইনিংসটি তার জন্য ন্যাচারাল ছিল। সে টেস্ট কিংবা ওয়ানডে যাই হোক না কেন শুরুর দিকে আক্রমণাত্মক ছিল। এরপর সে খেলাটায় নিজেকে মানিয়ে নিল। আজকে সে ফাস্ট বোলারদের বিপক্ষে কেবল প্যাডের বলগুলো খেলেছে এবং স্পিনারদের বিপক্ষে স্থির হয়েছে।’

‘বেশ ভালোভাবে বল ছেড়েছে এবং ডিফেন্স করেছে। রাউন্ড দ্য উইকেটে বোলাররা বল করার আগ পর্যন্ত শান্ত ও তামিম ভালো ছন্দে ছিল। আমার মনে হয় এটা আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ের জন্য আউট হয়নি বরং মানসিক দুর্বলতা ছিল।’

‘আমার মনে হয় তামিম চার মেরে ফিফটি পূর্ণ করতে চেয়েছে। সে ভুলে গিয়েছে পুরো ইনিংসে সে কীভাবে খেলেছে। সে দারুণভাবে সোজা ব্যাটে খেলছিল, প্যাডকে আড়াআড়িভাবে সামনে আনেনি।’

‘আমি মনে করি তার একাগ্রতা, বোলারদের বিপক্ষে লড়ে যাওয়া দুর্দান্ত ছিল। এটা আমাদে ড্রেসিং রুমে স্বস্তি দিচ্ছিলো। ৪৭ রানের ইনিংসটি সে বেশ সাবলীলভাবে খেলেছে। এটা দারুণ ব্যাপার হতো যদি সে টেনে নিতে পারতো খেলাটা।’

তামিমের বিদায়ের পরই ভেঙে পড়ে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন আপ। ৩ রানের ব্যবধানে শান্ত (৩৩) ফিরেছেন অনেকটা একই ঘরানার বলে একই শট খেলতে গিয়ে। হারাতে হয়ে অধিনায়ক মুমিনুল হক (৬) ও লিটন দাসের উইকেটও (১১)।

তামিম-শান্তর আউট নিয়ে ইতোমধ্যে তাদের সাথে আলাপও সেরেছেন সিডন্স। সামনের পায়ে খেলার যে তরিকা তিনি শিখিয়েছেন সেটি এখনো রপ্ত হয়নি। তবে খুব দ্রুতই এ নিয়ে কাজ করে উন্নতি ঘটাতে চান এই অস্ট্রেলিয়ান।

সিডন্স বলেন, ‘আমি আউট (এলবিডব্লিউ) হওয়া দুই বাঁহাতির সাথে ইতোমধ্যে কথা বলেছি। তারা দুজনেই বলেছে লেগ সাইডে খেলতে চেয়েছে যেখানে তারা জানে আমি তাদের বলেছি সামনের প্যাডকে ক্লিয়ার করে খেলার জন্য এবং ফেরত পাঠাতে যেখান থেকে এসেছে।’

‘এ নিয়ে আমাদের কাজ করতে হবে। এটা মানসিক ও টেকনিক্যাল ভুল যা সহজেই শোধরানো যাবে। এটা দ্রুত কাজ করে ঠিক করতে হবে। এটা এমন এক ধরণের আউট যা ব্লকের আশেপাশে পড়া বলে হওয়া উচিৎ না।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

তাইজুলের দিনে বাংলাদেশকে ফলো অনের শঙ্কায় রাখলো ব্যাটাররা

Read Next

বেশ ঝুঁকি থাকা স্বত্বেও মুশফিককে সুইপ খেলতে উৎসাহী করছেন সিডন্স

Total
7
Share