কোনো কিছুতেই কাজ হচ্ছে না মোহামেডানের, দূরে সরছে সুপার লিগ

কোনো কিছুতেই কাজ হচ্ছে না মোহামেডানের, দূরে সরছে সুপার লিগ
Vinkmag ad

জাতীয় দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের পাশাপাশি পাকিস্তানি তারকা মোহাম্মদ হাফিজকেও নিজেদের শিবিরে অন্তর্ভূক্ত করেছিল মোহামেডান। কিন্তু কোনো কিছুতেই যেন ভাগ্যের বদল হচ্ছে না দীর্ঘদিন ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে (ডিপিএলে) শিরোপা না জেতা মোহামেডানের। এবারতো সুপার লিগের পথটাই কঠিন হয়ে পড়েছে ঢাকার ক্রিকেটের ঐতিহ্যবাহী দলটির।

দক্ষিণ আফ্রিকায় টেস্ট সিরিজ চলছে বলে মুশফিকুর রহিম, মেহেদী হাসান মিরাজদের পাওয়া যাচ্ছে না। পারিবারিক ব্যস্ততায় সাকিব আল হাসানের খেলা সম্ভব হচ্ছে না। চোটে পড়ে দেশে ফিরে পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় আছেন তাসকিন আহমেদ। মূলত সুপার লিগে উঠলে এদের সেবা পাওয়া যাবে এমন ভাবনা থেকেই দল গড়েছিল মোহামেডান।

কিন্তু মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, রনি তালুকদার, মোহাম্মদ হাফিজ, পারভেজ হোসেন ইমন, শুভাগত হোমদের নিয়েও এতোটা বাজে খেলবে তা অনেকের কাছেই অপ্রত্যাশিত। ৮ ম্যাচে ৩ জয়ে পয়েন্ট টেবিলে অবস্থান ৮ নম্বরে।

আজ (৯ এপ্রিল) মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মোহামেডান ৭ উইকেটের ব্যবধানে হেরেছে এবারই প্রথম ডিপিএল খেলা রূপগঞ্জ টাইগার্সের কাছে। এই নিয়ে টানা চার ম্যাচ হারলো মোহামেডান। সাথে উইকেট নিয়ে অসন্তোষ রিয়াদের ক্ষোভ ঝাড়ার দৃশ্যও হয়েছে সঙ্গী।

টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে এনামুল হক জুনিয়রের লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে প্রথম ৫ উইকেটের দিনে ১৪৩ রানেই গুটিয়ে যায় মোহামেডান। জবাবে আসিফ আহমেদ (৪৮), ফজলে মাহমুদদের (৩৯*) ব্যাটে ৭ উইকেট হারিয়েই লক্ষ্যে পৌঁছায় রূপগঞ্জ টাইগার্স।

মোহামেডান দুই ওপেনার রনি তালুকদার ও পারভেজ হোসেন ইমনের ব্যাটে যথাক্রমে ২৪ ও ১৪ রান। ৩ নম্বরে নামা হাফিজকে (৪) দ্রুত ফেরান এনামুল হক জুনিয়র।

রুবেল মিয়াকে নিয়ে যা একটু চেষ্টা রিয়াদের। ৪৯ রানের জুটি ভাঙে রুবেল ২৩ রান করে আউট হলে। ক্রিজে টিকেও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি রিয়াদ। ৫২ বলে সমান ২ টি করে চার, ছক্কায় ৪৮ রান আসে তার ব্যাটে।

তবে মিরপুরের উইকেটে নিচু হওয়া বল এ দিন যেন আরও নিচু হয়ে আসছিল ব্যাটারের কাছে। এনামুলের নিচু হওয়া বলেই কাট করতে গিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন। পরে ড্রেসিং রুমে ঢোকার আগে মাঠকর্মীদের উদ্দেশ্য করে কিছু বলার পাশাপাশি ড্রেসিং রুমের দরজায় লাথি মারতেও দেখা যায়।

৭ম ব্যাটার হিসেবে রিয়াদের বিদায়ের পর ৪ রানের ব্যবধানে গুটিয়ে যায় মোহামেডান। ১৪৩ রানের পুঁজি পাওয়ার পথে শুভাগত হোমের ব্যাটে ১৫ রান। ৯.১ ওভারে ২ মেডেন সহ ৪১ রান খরচায় ৫ উইকেট এনামুলের। পেসার মুকিদুল ইসলামের শিকার ৩ উইকেট।

জবাবে শুরুতেই ওপেনার মিজানুর রহমানকে (৯) হারায় রূপগঞ্জ টাইগার্স। কিন্তু জাকির হাসানকে (২৪) নিয়ে ৩৭ রান যোগ করেন আসিফ আহমেদ। জাকির আউট হলেও ফজলে মাহমুদকে নিয়ে যোগ করেন আরও ৮৪ রান। তবে এ দফায় তাকেই ফিরতে হয় সাঝঘরে, ৯২ বলে ৫ চার ১ ছক্কায় সাজান ৪৮ রানের ইনিংসটি।

জয়ের পথে বাকি কাজটুকু সাদ নাসিমকে (১৩*) নিয়ে অনায়াসেই সারেন ফজলে। অপরাজিত ছিলেন ৭৩ বলে ৩ চারে ৩৯ রানে। ৭ ম্যাচে এটি রূপগঞ্জ টাইগার্সের চতুর্থ জয়, পয়েন্ট টেবিলে তাদের অবস্থান ৬ নম্বরে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

হল না তামিমের ফিফটি, ফিরলেন শান্তও

Read Next

শ্রীলঙ্কার নতুন হেড কোচ ক্রিস সিলভারউড

Total
9
Share