ডারবানে বাংলাদেশের হতাশায় মোড়ানো এক বিকাল

ডারবানে বাংলাদেশের হতাশায় মোড়ানো এক বিকাল
Vinkmag ad

ডারবানের কিংসমিডে চলছে বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার ১ম টেস্টের ৪র্থ দিনের খেলা। এই টেস্টের খুটিনাটি আপডেট এই লাইভ রিপোর্টে।

ডারবানে বাংলাদেশের হতাশায় মোড়ানো এক বিকালঃ 

২৭৪ রানের জয়ের লক্ষ্য নিয়ে খেলতে নামা বাংলাদেশ চতুর্থ দিন শেষ করেছে হতাশা নিয়ে। ৬ ওভার ব্যাট করেই সাজঘরের পথ ধরেছে ৩ ব্যাটার। কোন রানই করতে পারেননি ওপেনার সাদমান ইসলাম। আগের ইনিংসে সেঞ্চুরি করা মাহমুদুল হাসান জয় বোল্ড হবার আগে করেছেন ৪ রান।

টাইগার অধিনায়ক মুমিনুল হক ফিরেছেন কেবল ২ রান করে। ১১ রানে বাংলাদেশের নেই ৩ উইকেট। ৫ রান করে নাজমুল হোসেন শান্ত ও কোন রান না করে মুশফিকুর রহিম অপরাজিত আছেন।

শেষদিনে বাংলাদেশের দরকার ২৬৩ রান, দক্ষিণ আফ্রিকার দরকার ৭ উইকেট।

২০৪ এ অলআউট দক্ষিণ আফ্রিকাঃ

কেশব মহারাজের সঙ্গে রায়ান রিকেলটনের জুটি জমে যাচ্ছিল, দুজন রান তুলছিলেন স্বাচ্ছন্দ্যেই। প্রোটিয়ারা নিজেদের দুর্ভাগা ভাবতেই পারে, এই জুটি ভেঙেছে রান আউটে। বাউন্ডারি লাইন থেকে সরাসরি থ্রো করে স্টাম্প ভাঙেন নুরুল হাসান সোহান। ৩ রান নিতে যেয়ে রান আউট হন শিমন হারমার।

পরবর্তী ওভারের প্রথম বলে আরেক রান আউট। সাদমান ইসলাম ও লিটন দাসের যৌথ প্রয়াসে রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে লিজাড উইলিয়ামস।

রানের খাতা খোলা হয়নি ডুয়ানে অলিভিয়ারেরও। এবাদত হোসেনের ৩য় শিকার হন এলবিডব্লিউ হয়ে।

২০৪ রানে থামে স্বাগতিকদের ২য় ইনিংস। জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ২৭৪ রান।

১৮৩ তে নেই দক্ষিণ আফ্রিকার ৭ উইকেটঃ 

আজ দিনভর দারুণ বোলিং করেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ১ম সেশনে কোন উইকেট না পেলেও ২য় সেশনে পান ২ উইকেট। ৩য় সেশনে এসে পেয়েছেন আরও এক উইকেট। উইয়ান মুলডারকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন এই অফ স্পিনার।

পরবর্তী ওভারেই ৭ম উইকেট হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ৫ বলে ৫ রান করা কেশব মহারাজকে এলবিডব্লিউ করে সাজঘরে ফেরান তাসকিন আহমেদ। ১৮৩ তে নেই দক্ষিণ আফ্রিকার ৭ উইকেট।

ডারবানে বাংলাদেশময় এক সেশনঃ 

৪র্থ দিনের প্রথম সেশনে ৯৯ রান তুলেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা, হারিয়েছিল কেবল ১ উইকেট। বাংলাদেশের বোলাররা বেশ কয়েকটা সুযোগ তৈরি করলেও তা সাফল্যে রূপ নেয়নি। ২য় সেশনে অবশ্য ৪ বার উইকেট পাবার আনন্দে মেতেছে সফরকারীরা।

ডিন এলগারকে দিয়ে শুরু, এরপর বাংলাদেশ তুলে নিয়েছে কিগান পিটারসেন, টেম্বা বাভুমা ও কাইল ভেরেনের উইকেটও। ২৮ ওভারে ৫২ রানে ৪ উইকেট- দক্ষিণ আফ্রিকা মোটেও স্বস্তিতে ছিল না বলাই যায়।

৫ উইকেটে ১৫৭ রান স্কোরবোর্ডে, দক্ষিণ আফ্রিকা এগিয়ে আছে ২২৬ রানে।

সাদমানের দারুণ ক্যাচ, ফিরলেন ভেরেনেঃ 

প্রথম সেশনে একাধিক ক্যাচ ছাড়া বাংলাদেশ দল ২য় সেশনে ধরেছে দারুণ কিছু ক্যাচ। ইয়াসির আলি চৌধুরী রাব্বির এক হাতে ধরা দারুণ ক্যাচের পর এক হাতে দারুণ এক লো ক্যাচ ধরেন সাদমান ইসলামও। কাইল ভেরেনে ৬ রান করে ফেরেন মেহেদী হাসান মিরাজের ২য় শিকার হয়ে।

ফিরলেন পিটারসেন-বাভুমাঃ 

অবশেষে কিগান পিটারসেনের উইকেট নিল বাংলাদেশ। যে উইকেট খালেদ আহমেদের ঝুলিতে যেতে পারত সেটা গেল মেহেদী হাসান মিরাজের ঝুলিতে। ৮৫ বলে ৪ চারে ৩৬ রান করা পিটারসেনকে ফেরাতে শর্ট লেগে ক্যাচ নেন মাহমুদুল হাসান জয়।

পরবর্তী ওভারে ফেরেন টেম্বা বাভুমা। এর আগে একাধিক ক্যাচ মিস করা ইয়াসির আলি চৌধুরী রাব্বি এক হাতে নেন দারুণ এক ক্যাচ। এবাদত পান তার ২য় উইকেট। ২২ বলে ৪ রান করে ফেরেন বাভুমা।

আম্পায়ার যেনো পন করেছেন, আউট দিবেনই নাঃ

আম্পায়াররা যেনো পন করেছেন, যা কিছুই হয়ে যাক না কেনো আউট দিবেন না। এর আগে সারেল এরউইয়ের আউটের আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার, রিভিউ নিয়ে উইকেট আদায় করেছে বাংলাদেশ। কিগান পিটারসেন ফিরতে পারতেন সাজঘরে, আম্পায়ার আবেদনে সাড়া দেননি, সেদফায় রিভিউ নেয়নি বাংলাদেশ।

সর্বশেষ ডিন এলগার, এর আগে আম্পায়ার্স কলে বেচে গেলেও এবার পারলেন না। তাসকিনের বলে এলবিডব্লিউ হয়েছেন। যদিও মারিয়াস এরাসমাসের মন তাসকিনের মিনতিতে গলে নি। রিভিউ নিয়েই তবে উইকেট পেতে হয়েছে তাসকিনকে।

১০২ বলে ৭ চারে ৬৪ রান করেছেন এলগার। আম্পায়ারের বাদন্যতায় বেচেছেন দুইবার, ফিল্ডার (শান্ত ও রাব্বি) ক্যাচ ছাড়ায় বেচেছেন ২ বার।

বাংলাদেশের দাপট দেখানো সেশনে এগিয়ে প্রোটিয়ারাঃ 

ব্যাটিং করা দল এক সেশনে তুলেছে ৯৯ রান, হারিয়েছে কেবল ১ উইকেট। এটা ব্যাটিং দলের জন্য দারুণ এক সেশন আপনাকে বলতেই হবে। তবে কেউ যদি বলে এই সেশনে দাপট দেখয়েছে বোলিং দল? বিশ্বাস করতে পারবেন?

ডারবানের কিংসমিডে এক সেশন দাপট দেখিয়েও ১ উইকেটের বেশি তুলে নিতে পারেনি বাংলাদেশ দল। খালেদ আহমেদ, এবাদত হোসেন ও মেহেদী হাসান মিরাজের একাধিক আবেদনে আম্পায়ার সাড়া দেননি। কোনটা বাংলাদেশ রিভিউ নেয়নি, কোনটাতে হয়েছে আম্পায়ার্স কল। এমনকি একটা উইকেট যেটা এসেছে সেটাও রিভিউ নিয়ে।

নাজমুল হোসেন শান্ত ও ইয়াসির আলি চৌধুরী রাব্বি ছেড়েছেন ডিন এলগারের ক্যাচ। তিনি এখন অপরাজিত ৬২ রানে, সাবলীল ব্যাটিং করতে পারেননি কিগান পিটারসেনও, তিনি অপরাজিত ২১ রানে। বাংলাদেশের ঋণের বোঝা বেড়ে দাড়িয়েছে ১৭৪।

ফিরলেন এরউই, জীবন পেলেন এলগারঃ

৪র্থ দিনের শুরু থেকেই ডিন এলগার ও সারেল এরউইকে চেপে ধরেছিল বাংলাদেশ দলের বোলাররা। মেহেদী হাসান মিরাজ তো তুলেই নিয়েছিলেন ডিন এলগারের উইকেট। তবে আম্পায়ার্স কলে হতাশ হতে হয় তাকে। অস্বস্তিতে ভোগা সারেল এরউইকে ৮ রানের বেশি করতে দেননি এবাদত হোসেন। ৫১ বল খেলা এরউইকে লেগ বিফোর উইকেটের ফাঁদে ফেলেন এবাদত।

তাতে ভাঙে এলগার-এরউইয়ের ৪৮ রানের জুটি।

পরবর্তী ওভারে সাজঘরে ফিরতে পারতেন এলগারও। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে স্লিপে ক্যাচ ছাড়েন নাজমুল হোসেন শান্ত।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (৩য় দিন শেষে):

দক্ষিণ আফ্রিকা ১ম ইনিংসে ৩৬৭/১০ (১২১), এলগার ৬৭, এরউই ৪১, পিটারসেন ১৯, বাভুমা ৯৩, রিকেলটন ২১, ভেরেনে ২৮, মুলডার ০, মহারাজ ১৯, হারমার ৩৮*, উইলিয়ামস ১২, অলিভিয়ার ১২; এবাদত ২৯-১০-৮৬-২, খালেদ ২৫-৩-৯২-৪, মিরাজ ৪০-৮-৯৪-৩

বাংলাদেশ ১ম ইনিংসে ২৯৮/১০ (১১৫.৫), জয় ১৩৭, সাদমান ৯, শান্ত ৩৮, মুমিনুল ০, মুশফিক ৭, তাসকিন ১, লিটন ৪১, রাব্বি ২২, মিরাজ ২৯, খালেদ ০, এবাদত ০*; অলিভিয়ার ১৫-৫-৩৬-১, উইলিয়ামস ১৮.৫-৩-৫৪-৩, হারমার ৪০-১২-১০৩-৪, মুলডার ৪-১-২৩-১

দক্ষিণ আফ্রিকা ২য় ইনিংসে ৬/০ (৪), এরউই ৩*, এলগার ৩*

দক্ষিণ আফ্রিকা ২য় ইনিংসে ৭৫ রানে এগিয়ে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ম্যাজিক নয় নিজের দায়িত্ব সম্পর্কে জানেন বলেই সফল জয়

Read Next

৭ম বারের মত বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার নারীরা

Total
7
Share