সাকিবের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন, খেলবেন ৩য় ওয়ানডে

বিশ্বকাপ মিশন শেষ সাকিব আল হাসানের
Vinkmag ad

দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ শুরুর আগে থেকে আলোচনার কেন্দদ্রবিন্দুতে সাকিব আল হাসান। তিনি দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যাবেন নাকি যাবেন না এটা নিয়ে জল কম ঘোলা হয়নি। শেষমেশ তিনি গিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে। প্রথম ম্যাচে দলকে জিতিয়ে হয়েছেন ম্যাচসেরা। তবে পরিবারের একাধিক সদস্য বাংলাদেশে হাসপাতালে ভর্তি বিধায় তিনি দেশে ফিরে আসবেন কিনা এমন শঙ্কা ছিল। এই ইস্যুতেও সিদ্ধান্ত বদলাচ্ছে বারবার। 

আজ বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস ক্রিকেট৯৭ কে জানিয়েছিলেন যে সাকিব আজ রাতে বাংলাদেশের উদ্দেশে রওয়ানা দিচ্ছেন। 

তবে সেই সিদ্ধান্তে বদল এসেছে। সাকিবের চাওয়াতেই দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে যাচ্ছেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকায় দলের সঙ্গে থাকা টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন এক ভিডিও বার্তায় এই তথ্য জানান। 

তিনি বলেন,  ‘হ্যা, যাবার (সাকিবের) কথা ছিল এটা সত্যি কথা। বিসিবিতে জালাল ভাই (জালাল ইউনুস) হয়তো বলেছেও যে ও চলে যাচ্ছে। তবে একটু পরে সাকিব ডিসাইড করেছে যে ও যাচ্ছে না, তৃতীয় ওয়ানডে খেলেই আমরা ডিসাইড করব।’

‘ওর একটা দ্বিধা তো আছেই মনে। বারবার ঢাকা থেকে ফোন আসছে। বারবার ওর জন্য টিকিট বুক ও ক্যান্সেল করতে হচ্ছে। আজ একটা কথা ছিল যে ও চলে যাবে, তবে সাকিবই এটা টার্ন ডাউন করেছে যে ও যাবে না, ও খেলেই যাবে।’

খালেদ মাহমুদ সুজন জানান খেলার ব্যাপারে, সিরিজ জয়ের ব্যাপারে সাকিব বেশ উদগ্রীব। এটা বাংলাদেশের জন্য বেশ ইতিবাচক বলে মনে করেন তিনি। 

সুজন বলেন, ‘পারিবারিক ব্যাপার খুবই ইম্পরট্যান্ট, এসবে আমাদের হাত নেই। এজন্যই এমন হচ্ছে। ও টোটালি খেলতে চায়। প্রথম থেকেই ও খুবই ইনটেন্সড, খেলার ব্যাপারে খুবই সিরিয়াস। প্রথম ম্যাচে ম্যাচসেরা হল, দ্বিতীয় ম্যাচে রান না পেলেও ভালো বোলিং করেছে। ও খেলতে চায়, ও সিরিজটা জিততে চায়। ও জানে যে ওকে ছাড়া এটা কত কঠিন। তো এটা বেশ দারুণ ব্যাপার যে ও স্যাক্রিফাইস করছে। এটা বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য ভালো ব্যাপার। আমরা আশা করি ওর বাসার সব ঠিক হয়ে যাবে। আমরা তৃতীয় ওয়ানডে জিতে সিরিজ জিতব। তারপর ওর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে যে কখন যাবে না যাবে।’ 

উল্লেখ্য, সাকিব আল হাসানের মা শিরিন আক্তার, তার স্ত্রী শিশিরের মা (সাকিবের শাশুড়ি) ও তিন সন্তান রাজধানীর দুই হাসপাতালে ভর্তি আছেন। 

হার্টের সমস্যায় ভোগা সাকিবের মা’র অবস্থার অবনতি হওয়ায় এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সাকিবের তিন সন্তানও আছেন এই হাসপাতালে। বড় মেয়ে ভুগছেন ঠান্ডা জ্বরে, মেঝো মেয়ে ও একমাত্র ছেলের হয়েছে নিউমোনিয়া।

সাকিবের শাশুড়ির আছে ক্যান্সার। তিনি চিকিৎসাধীন আছেন সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

পাকিস্তানে অস্ট্রেলিয়া দলের স্পিন পরামর্শক ড্যানিয়েল ভেট্টোরি

Read Next

শাহাদত দিপুর অপরাজিত সেঞ্চুরিতে জিতল প্রাইম ব্যাংক

Total
10
Share