বড় সুযোগ হাতছাড়া করে আক্ষেপে পুড়ছে বাংলাদেশ

বড় সুযোগ হাতছাড়া করে আক্ষেপে পুড়ছে বাংলাদেশ
Vinkmag ad

প্রথমবার বিশ্বকাপ খেলতে গিয়েই দারুণ পারফর্ম করছে বাংলাদেশ নারী দল। আগের ম্যাচে পাকিস্তানকে হারানোর পর আজ (১৮ মার্চ) ওয়েস্ট ইন্ডিজ নারী দলের বিপক্ষে জয়ের মঞ্চ প্রস্তুত করেও হারতে হয়েছে টাইগ্রেসদের। তীরে এসে তরী ডোবায় অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি হতাশা লুকালেন না। বরং দ্রুত ম্যাচ শেষ করতে চেয়েছেন বলেও জানালেন।

নিউজিল্যান্ডে চলমান নারী ওয়ানডে বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচ থেকেই ভালো খেলছে বাংলাদেশ। তবে দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয় ধরা না দিলেও পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে পেয়ে যায় বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম জয়। যে জয়ে আত্মবিশ্বাসের পালে হাওয়া বাড়ে বহুগুণ।

আজ (১৮ মার্চ) মাউন্ট মঙ্গানুইতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ নারী দলের বিপক্ষে প্রায় জিতেই গিয়েছিল। ওয়েস্ট ইন্ডিজ নারী দলের বিপক্ষে এর আগে কোনো ওয়ানডে খেলেনি বাংলাদেশ। অচেনা প্রতিপক্ষকে তাই ভড়কে দেওয়ার দারুণ সুযোগ পেয়ে যায়।

আগে ব্যাট করা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৪০ রানেই বেঁধে ফেলে বাংলাদেশ। যদিও ৭০ রানে ৭ উইকেট হারানো ক্যারিবিয়ান নারীরা শেমাইন ক্যাম্পবেলের ফিফটিতে এত দূর যেতে পেরেছে।

জবাবে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় টাইগ্রেসরা। শেষ ওভারে হাতে ১ উইকেট নিয়ে সমীকরণ দাঁড়ায় ৮ রানের। যা নিতে ব্যর্থ হয় ফারিহা তৃষ্ণা (০) ও নাহিদা আক্তার (৬৪ বলে ২৫*)। ৪ রানের আক্ষেপ হয়েছে সঙ্গী।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে টাইগ্রেস দলপতি নিগার সুলতানা জ্যোতি বলেন,‘হতাশা তো থাকবেই। এসব অনেক ক্লোজ ম্যাচ, অনেক বড় সুযোগ ছিল আরও দুই পয়েন্ট নেওয়ার। আমার মনে হয় অনেক বড় একটা সুযোগ হাতছাড়া হয়ে গেছে, এটার জন্য সবার মন খারাপ হওয়াটা স্বাভাবিক। কারণ ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো টিমকে এত অল্প রানে আটকানো, এরপর খুব কাছাকাছি গিয়ে এরকমভাবে হারা।’

‘শেষ পর্যন্ত নাহিদা অনেক লড়াই করেছে, যদি একটা ব্যাটার তাকে সাপোর্ট করতো, রেজাল্ট আলাদা হতে পারতো। আমাদের আসলে পরিকল্পনা ছিল, যে প্রসেসটা মেইনটেইন করি এইসব উইকেটে। ১০ ওভার করে ভাগ করে খেলি।’

মোটামুটি ছোট লক্ষ্য হলেও দ্রুত শেষ করায় মনযোগ ছিল বলছেন জ্যোতি, ‘হয়তো বোর্ডে রান কম ছিল। কিন্তু আমাদের পরিকল্পনা ছিল ১৪০ রান যত কম সময়ে করা যায়। ৩০-৩৫ ওভারের মধ্যে খেলাটা শেষ করা। দ্রুত উইকেট পড়ে যাওয়াতেই আসলে স্লো ডাউন করতে হয়েছে একটু। কারণ আপনাকে বুঝতে হবে কখন পেস অন করতে হবে আর কখন অফ। ওই সময় যদি পেস অফ করে খেলা হতো, তাহলে খেলাটা আরও দ্রুত শেষ হয়ে যেত।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ভারতের মতো বড় দল নয় বাংলাদেশ, তবুও অস্বস্তিতে দক্ষিণ আফ্রিকা

Read Next

সেঞ্চুরিয়নে আগে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

Total
1
Share