মোহামেডানকে পাত্তা না দিয়ে হারাল শাইনপুকুর

মোহামেডানকে পাত্তা না দিয়ে হারাল শাইনপুকুর
Vinkmag ad

এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ (ডিপিএল) শুরু হয়েছে নবাগত রূপগঞ্জ টাইগার্সের কাছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন আবাহনীর হার দিয়ে। আজ (১৬ মার্চ) তাদের চির প্রতিদ্বন্দ্বী মোহামেডানও হার দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করেছে। শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাবের কাছে ৪১ রানে হেরেছে ঢাকার ক্রিকেটে ঐতিহ্যবাহী দলটি।

সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, তাসকিন মিরাজদের নিয়ে গড়লেও শুরু থেকে এসব তারকাকে পাচ্ছে না। কিন্তু পাকিস্তানি অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজ সহ স্থানীয় বাকি ক্রিকেটাররাও দলটির শক্তিমত্তা কমায়নি। যদিও শাইনপুকুরের বিপক্ষে হার এড়াতে যথেষ্ট ছিল না কোনো কিছুই।

টস হেরে আগে ব্যাট করা শাইনপুকুর শুরুর বিপর্যয় কাটিয়ে পায় ৭ উইকেটে ২৫০ রানের পুঁজি। সর্বোচ্চ ৭০ রান সাজ্জাদুল হক রিপনের ব্যাটে। সিকান্দার রাজা করেন ৪২ রান, ১৯ বলে অপরাজিত ৪৬ রানের ক্যামিও আলাউদ্দিন বাবুর। জবাবে পারভেজ হোসেন ইমন ও সোহরাওয়ার্দী শুভর জোড়া ফিফটিতেও ২০৯ রানেই আটকে যায় মোহামেডান।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে শুরু থেকেই এলোমেলো মোহামেডান। দলীয় ৭ রানে বিদায় নেন ওপেনার রনি তালুকদার (১৮ বলে ৩ রান)।

আরেক ওপেনার পারভেজ হোসেন ইমনের সাথে সৌম্য সরকারের (২৮ বলে ৭) ২৮ রানের জুটি ভাঙে সৌম্য দ্বিধায় ভুগে দৃষ্টিকটু রান আউট হলে। মোহাম্মদ হাফিজও করতে পারেননি ৪ রানের বেশি।

যুব বিশ্বকাপে ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি হাঁকানো আরিফুল ইসলাম মোহামেডান জার্সিতে অভিষেকটা রাঙানোর ইঙ্গিত দিলেও কপাল পুড়েছে রান আউটে (১২ বলে ৯)।

এক পাশ ইমন আগলে রাখলেও অন্য পাশে ফিরে গেছেন অধিনায়ক শুভাগত হোমও (১৪ বলে ১০)। আর তাতে ৬৮ রানেই ৫ উইকেট হারায় সাদা-কালো শিবির।

সেখান থেকে জাহিদুজ্জামান খানকে নিয়ে আরেক দফা দলকে পথ দেখানোর চেষ্টা ইমনের। কিন্তু জাহিদুজ্জামানও ১৮ রান করে ফিরে যান। তবে ৮২ বলে নিজের ফিফটি তুলে নেন ইমন।

কিন্তু আলাউদ্দিন বাবুর বলে ডিপ এক্সট্রা কাভারে ক্যাচ তুলে দিয়ে ইমনও বিদায় নেন। ৮৮ বলে ৩ চার ১ ছক্কায় তার ব্যাটে ৫৪ রান। এরপর কেবল পরাজয়ের অপেক্ষা।

কিন্তু সেটি দীর্ঘ করেছেন সোহরাওয়ার্দী শুভ, নবম উইকেট জুটিতে ইয়সিন আরাফাত মিশুর সাথে যোগ করেন ৫১ রান। ততক্ষণ নিজেও তুলে নেন ফিফটি, থেমেছেন অবশ্য ৫১ রান করে। শেষদিকে ইয়াসিন আরাফাত মিশুর ৩৮ রানে কেবল হারের ব্যবধান কমে। গুটিয়ে যায় ২০৯ রানে, শাইনপুকুরের হয়ে সর্বোচ্চ দুইটি করে উইকেট আলাউদ্দিন বাবু, সিকান্দার রাজা, আনিসুল ইসলাম।

এর আগে শাইনপুকুরের দুই ওপেনার আনিসুল ইসলাম ইমন ও রাকিন আহমেদ ৩০ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়েন। কিন্তু এরপরই মোহামেডানের হয়ে বল হাতে সৌম্য সরকারের ঝলক। ১৪ রানের ব্যবধানে তুলে নেন ৩ উইকেট।

তার মিডিয়াম পেসে ভড়কে যান ইমন (১৪), তাসামুল হক (৬), মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন (১)। ৪৪ রানে ৩ উইকেট হারানো শাইনপুকুর পথ খুঁজে পায় রাকিন আহমেদ ও জিম্বাবুয়ে ব্যাটসম্যান সিকান্দার রাজার ব্যাটে।

দুজনে মিলে জুটিতে যোগ করে ৪৭ রান। ৭৪ বলে ৩৯ রান করে রাকিন ফিরলে ভাঙে জুটি। শাইনপুকুর ইনিংসের পরের অংশ মেরামত করেছেন সাজ্জাদুল হক রিপন।

মোহামেডানের পাকিস্তানি অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজ ফেরান ৭৪ বলে সমান দুইটি করে চার, ছক্কায় ৪২ রান করা রাজাকে। মাঝে নাইম হাসান ফেরেন ১০ রান করে।

৭ম উইকেট জুটিতে আলাউদ্দিন বাবুর সাথে রিপনের ৬৯ রানের জুটি। সালাউদ্দিন শাকিলের করা ৪৬তম ওভারে ডিপ মিড উইকেটে ঠেলে দিয়ে ৪৭ বলে ফিফটি ছুঁয়েছেন রিপন।

ফিফটির পর রিপন খেলেছেন আরও হাত খুলে। অন্য প্রান্তে ঝড় তুলেছেন আলাউদ্দিন বাবু। শেষ ৩ ওভারে আসে ৪৪ রান। ইয়াসিন আরাফাত মিশুর করা ৪৮তম ওভারে দুজনে মিলে নেন ১৫ রান।

সৌম্য সরকারের ৪৯তম ওভারে আসে ২০ রান, রিপনের ১ চারের সাথে বাবুর ২ চার ১ ছক্কা। ৬ ওভারের প্রথম স্পেলে ১১ রান খরচায় ৩ উইকেট নেওয়া সৌম্য স্পেল শেষ করেন ৯-১-৫২-৩ ফিগারে।

ইনিংসের শেষ ওভারে আউট হওয়ার আগে রিপনের ব্যাটে ৫৯ বলে ৬ চার, ২ ছক্কায় ৭০ রান। শেষ পর্যন্ত ১৯ বলে ৪ চার, ৩ ছক্কায় ৪৬ রানে অপরাজিত ছিলেন বাবু।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব ২৫০/৭ (৫০ ওভার), আনিসুল ১৪, রাকিন ৩৯, তাসামুল ৬, অঙ্কন ১, সিকান্দার ৪২, সাজ্জাদুল ৭০, নাইম ১০, আলাউদ্দিন ৪৬*, রাহাতুল ১*; মিশু ৮-০-৩২-০, সালাউদ্দিন ৯-১-৪৯-২, অপু ১০-১-৩৬-০, সৌম্য ৯-১-৫২-৩, সোহরাওয়ার্দী ৬-০-৪৪-১, হাফিজ ৮-০-৩৩-১।

মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব ২০৯/১০ (৪৮.৩ ওভার), রনি ৩, পারভেজ ৫৪, সৌম্য, ৭, হাফিজ, ৪, আরিফুল ৯, শুভাগত ১০, জাহিদুজ্জামান ১৮, সোহরাওয়ার্দী ৫১, অপু ৩, মিশু ৩৮, সালাউদ্দিন ৩*; রিপন ৯-১-৩৪-০, নাইম ১০-১-২৬-১, আলাউদ্দিন ৮-০-৫৫-২, সিকান্দার ১০-০-৩৬-২, মুরাদ, ৬-০-৩০-০, তাসামুল ৪-০-১৩-১, আনিসুল ১.৩-০-১৪-২।

ফলাফল: শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব ৪১ রানে জয়ী

ম্যাচসেরাঃ আলাউদ্দিন বাবু (শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সাইফের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে ম্লান অমিতের সেঞ্চুরি

Read Next

বাংলাদেশের বিপক্ষে ২০১৯ বিশ্বকাপে হার মনে আছে এনগিডির

Total
26
Share