কৃতজ্ঞতাবোধ থেকেই দেশের হয়ে খেলাটা রাশিদের কাছে সবার আগে

সাকিব-মালিঙ্গাদের পেছনে ফেলে রাশিদ খানের দ্রুততম '১০০'
Vinkmag ad

পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) ফাইনালের আগে গুঞ্জন রাশিদ খান জাতীয় দলের হয়ে না খেলে লাহোর কালান্দার্সের হয়ে খেলবেন। অথচ জাতীয় দলের হয়ে খেলতেই পিএসএলের মাঝপথে বাংলাদেশে আসেন এই আফগান তারকা। পরে অবশ্য জানা যায় এমন খবর ভিত্তিহীন। বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি শেষে রাশিদ নিজেও বিষয়টি পরিষ্কার করলেন।

তার কাছে দেশের হয়ে খেলার চেয়ে বড় কিছু নেই, আজকের এই অবস্থানে আসার পেছনে দেশকে কৃতিত্ব দিলেন। অন্য কিছুকে এক পাশে রেখে আফগানিস্তানের হয়ে খেলার মাধ্যমে তরুণদেরও বার্তা দিতে চান সময়ের অন্যতম সেরা এই লেগ স্পিনার।

লাহোর কালান্দার্সের হয়ে ৯ ম্যাচ খেলে ১৩ উইকেট এবারের পিএসএলে। তবে ২০ ফেব্রুয়ারি পিএসএল থেকে বিদায় নেনে রাশিদ, মূলত আফগানিস্তানের বাংলাদেশ সফরে আসার জন্য।

বাংলাদেশ সফরে এসে ২৩ ও ২৫ ফেব্রুয়ারি দুইটি ওয়ানডে খেলেন। ২৮ ফেব্রুয়ারি তৃতীয় ওয়ানডের আগেই পাকিস্তানি একটি সংবাদ মাধ্যম খবর প্রকাশ করে ম্যাচটি না খেলে রাশিদ উড়াল দিচ্ছেন পিএসএল ফাইনাল খেলতে।

পিএসএল ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয় ২৭ ফেব্রুয়ারি, তার দল লাহোর কালান্দার্স শিরোপাও জেতে। ফাইনালের আগেই রাশিদ নিজে এক টুইটে অবশ্য নিশ্চিত করেন ফাইনাল খেলতে পারলে তার ভালো লাগতো। কিন্তু জাতীয় দলের দায়িত্ব ছেড়ে তিনি কোথাও যাচ্ছেন না।

গতকাল (৫ মার্চ) বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি শেষে দেশের হয়ে খেলার গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, ‘যখন আমার জাতীয় দল কোনো সফরে থাকবে আমার সেখানেই থাকতে হবে। আর আমাকে খেলার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। এটা আমি কার্যকর নাকি কার্যকর না সেটার ব্যাপার না। আমার উপস্থিতি তরুণদের একটা বার্তা দিবে যে জাতীয় দলের দায়িত্বের চেয়ে বড় কোনো কিছু হতে পারে না।’

‘এটা কাজ অথবা কাজ না, কিন্তু জাতীয় দায়িত্ব জাতীয় দায়িত্বই। আপনি জাতীয় দলের হয়ে ভালো করলেন কিংবা খারাপ সেটা ভিন্ন বিষয়। এটা (পারফরম্যান্স) এমন একটা ব্যাপার যা খেলোয়াড়দের নিয়ন্ত্রণে থাকে না। তবে সর্বোপরি আমি মনে করি যেখানেই যাই, যেখানেই খেলি না কেন যখন সেটা জাতীয় দলের প্রতিশ্রুতি তখন আমাকে সেখানেই যেতে হবে।’

বিশ্ব ক্রিকেটে বর্তমান সময়ের বড় তারকা রাশিদ খান। নিজের লেগ স্পিন শিল্পে মুগ্ধ করে খেলে চলেছেন বিশ্বজুড়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট, জাতীয় দলের হয়ে দেখাচ্ছেন ঝলক। ২৩ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার জানান তিনি যা কিছু অর্জন করেছেন তার নৈপথ্যে আফগানিস্তান জাতীয় দল। আফগানিস্তানের হয়ে খেলার সুযোগ পেয়েছেন বলেই আজকের রাশিদ খান হতে পেরেছেন।

আফগানিস্তান জাতীয় দলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে রাশিদ যোগ করেন, ‘আজকে আমার এই অবস্থানে কারণ আফগানিস্তান জাতীয় দল আমাকে এই অবস্থান তৈরি করে দিয়েছে। যদি আফগানিস্তান দলই না থাকতো আমি জানিনা আমিই বা কোথায় থাকতাম।’

‘আমি জানি না আমি কি করতাম কিন্তু আফগানিস্তান আমাকে আজকের এই সম্মান, নাম সবকিছু এনে দিয়েছে। আমারও সেটিকে সম্মান করতে হবে এবং আমাকে অবশ্যই জাতীয় দলের হয়ে খেলার জন্য সবসময় প্রস্তুত থাকতে হবে, যেকোনো সময়।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বিশ্বকাপ জয়ের চেয়েও রাশিদের চোখে বড় স্বপ্ন ঘরের মাঠে খেলা

Read Next

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে অস্ট্রেলিয়ায় দুই সপ্তাহের ক্যাম্প করবে বাংলাদেশ

Total
14
Share