বগুড়ায় ক্যাম্পই দক্ষিণ আফ্রিকায় সাফল্যের নিশ্চয়তা নয়ঃ মুমিনুল

এই জয়কে বাংলাদেশের টেস্ট ক্রিকেট উন্নতির লক্ষ্মণ বলছেন মুমিনুল
Vinkmag ad

দক্ষিণ আফ্রিকার বাউন্সি উইকেট বিবেচনায় নিয়ে বগুড়ায় দুই সপ্তাহের ক্যাম্প করছে বাংলাদেশ টাইগার্স তথা ছায়া জাতীয় দল। বাংলাদেশ টাইগার্স মূলত চোট ও পারফরম্যান্সের কারণে জাতীয় দলের বাইরে থাকা ক্রিকেটারদের নিয়ে গড়ার কথা। তবে প্রোগ্রামটির প্রথম স্কোয়াডে সুযোগ হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর করতে যাওয়া বেশিরভাগের। টেস্ট কাপ্তান মুমিনুল ক্যাম্পকে অবশ্য কেবলই একটা প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে দেখছেন।

বাংলাদেশের স্বাভাবিক স্লো ও টার্নিং উইকেটের বিপরীতে কিছুটা ঘাসে মোড়ানো বাউন্সি উইকেট বগুড়ার শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামের। আর সে লক্ষ্যেই চলতি মাসে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যাওয়ার আগে বাংলাদেশ টেস্ট দলের ক্রিকেটাররা বগুড়ায় বাংলাদেশ টাইগার্সের হয়ে ক্যাম্প করছে। গত ২৬ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়ে যা চলবে ৭ মার্চ পর্যন্ত।

ক্যাম্পে আলাদা কোচিং স্টাফদের নিয়েই চলছে অনুশীলন পর্ব। বাংলাদেশ টাইগার্সের প্রধান কোচ হিসেবে কাজ করছেন মিজানুর রহমান বাবুল, পেস বোলিং কোচ চম্পাকা রামানায়েক, নাজমুল হোসেন, ব্যাটিং কোচ হিসেবে আছেন আফতাব আহমেদ, ফিল্ডিং কোচ ফয়সাল হোসেন ডিকেন্স।

মুমিনুল হক বলছেন ঠিক যেমনটা চেয়েছেন তেমনটা হয়নি। কিন্তু একটা প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকাটা সফরের আগে সাহায্য করবে মানছেন। তবে কোনভাবেই এই ক্যাম্পের ফল হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকায় ভালো করার নিশ্চয়তা দিতে চান না টাইগারদের টেস্ট কাপ্তান।

আজ (৪ মার্চ) এক ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, ‘বগুড়ার উইকেট সবসময় ভালো হয়। যেমন চেয়েছিলাম তেমন হয়তো হয়নি। তবে দক্ষিন আফ্রিকার কন্ডিশনের সঙ্গে এখানকার কন্ডিশনের পার্থক্য অনেক। এমন সফরের আগে একটা প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকাটা গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে বিদেশ সফরের ক্ষেত্রে এটা জরুরী। আমার কাছে মনে হয় এটা আমাদেরকে একটা প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকতে সাহায্য করেছে। এর চেয়ে বেশি কিছু না।’

‘আমি এখানে ক্যাম্প করেছি তাই দক্ষিণ আফ্রিকায় ভালো করব, এই নিশ্চয়তা দিতে পারব না। আমি প্রক্রিয়াটা ঠিক রাখতে চাই। প্রক্রিয়া ঠিক থাকলে ভালো করতে পারব। বোর্ড আমাদের যে সুযোগটা করে দিয়েছে, সেটা আমাদের জন্য ভালো হবে। এখানকার কন্ডিশনও খুব ভালো ছিল। ব্যাটসম্যান-বোলার সবার জন্যই। যারা বাংলাদেশের জন্য ভবিষ্যতে খেলবে, তাদের জন্য এটা খুব ভালো একটা ক্যাম্প হয়েছে বলে আমার মনে হয়।’

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে বাংলাদেশ খেলবে ৩ ওয়ানডে ও ২ টেস্ট। ওয়ানডে ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে যথাক্রমে ১৮, ২০ ও ২৩ মার্চ। যেখানে প্রথম টেস্ট শুরু হবে ৩১ মার্চ, দ্বিতীয়টি ৮ এপ্রিল। তবে বাংলাদেশের টেস্ট ও ওয়ানডে দুই দলই এক সাথে দক্ষিণ আফ্রিকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিবে।

দল যখন ওয়ানডে সিরিজ নিয়ে ব্যস্ত থাকবে থাকবে টেস্ট দলের ক্রিকেটাররা আলাদা ক্যাম্প করবেন কেপটাউনে গ্যারি কারস্টেন ক্রিকেট একাডেমিতে। যেখানে একাডেমির প্রধান ও ভারতকে বিশ্বকাপ জেতানো কোচ কারস্টেন শুরুর কয়েকদিন বাংলাদেশ দলের অনুশীলন দেখভাল করবেন।

যেখানে একাডেমির আরও কয়েকজন কোচ সঙ্গ দিবেন। যাদের মধ্যে আছেন টাইগারদের সাবেক ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুক, জাস্টিন কেম্পরা। বাংলাদেশের দলের কোচিং স্টাফের মধ্যে ক্যাম্পটি পরিচালনা করবেন ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্স।

১২ মার্চ দক্ষিণ আফ্রিকায় পৌছাবে বাংলাদেশ দল। একদিন বিশ্রাম নিয়ে ১৪ তারিখেই শুরু করবে অনুশীলন। ১৫ মার্চ জোহানেসবার্গে খেলবে নিজেদের মধ্যে অনুশীলন ম্যাচ। ১৮, ২০ ও ২৩ মার্চ মাঠে গড়াবে ৩ টি ওয়ানডে। এরপর টেস্ট সিরিজের আগে ২৬-২৭ মার্চ দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

নিজেদের দায়িত্ব সম্পর্কে অবগত বলেই সফল হচ্ছেন নাসুমরা

Read Next

ক্রিকেটারদের গড়ে তুলতে দেশী কোচদের কৃতিত্ব দিলেন হেরাথ

Total
11
Share