নাসুম-লিটনের দিনে বাংলাদেশের বড় জয়

নাসুম-লিটনের দিনে বাংলাদেশের বড় জয়
Vinkmag ad

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ব্যর্থতায় ঘরের মাঠে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে বাদ পড়েন লিটন দাস। তবে বিপিএলে পারফর্ম করেই ফিরেছেন আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে। প্রত্যাবর্তনের ম্যাচে ব্যাট হাতে জবাব দিয়েছেন দারুণভাবে, ফেরার ম্যাচে তুলে নিলেন ফিফটি, খেললেন ৬০ রানের ইনিংস। তার ব্যাটে পাওয়া বাংলাদেশের ৮ উইকেটে ১৫৫ রানের পুঁজিকে শুরুতেই আফগানদের জন্য পাহাড়সম করে তোলেন নাসুম আহমেদ।

নাসুমের ভয়ংকর হওয়া দিনে সাকিব আল হাসান, শরিফুল ইসলাম, মুস্তাফিজরা উইকেট শিকারে যোগ দিলে ৯৪ রানেই গুটিয়ে যায় সফরকারীরা। বাংলাদেশ পায় ৬১ রানের বিশাল ব্যবধানের জয়। ১০ রান খরচায় নাসুমের শিকার ৪ উইকেট।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেটে স্টেডিয়ামে বিকেল ৩ টায় শুরু হওয়া ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করে বাংলাদেশ। একাদশে অভিষিক্ত দুজন, ওপেনার মুনিম শাহরিয়ারর সাথে মিড অর্ডারের ইয়াসির আলি রাব্বি। চোটের কারণে একাদশে ছিলেন না মুশফিকুর রহিম।

সহজাত ব্যাটিং করলেও অভিষেক ম্যাচ রাঙাতে পারেননি মুনিম, আরেক দফা সুযোগ পেয়ে ব্যর্থ নাইম শেখ। তবে ৩ নম্বরে নেমে প্রত্যাবর্তন ম্যাচে লিটনের ৬০ রানের সাথে ২৫ রান আসে আফিফ হোসেনের ব্যাটে।

লক্ষ্য তাড়ায় আফগানিস্তানকে শুরুতেই কোণঠাসা করেন বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদ। ইনিংসের প্রথম ওভারেই ফেরান রহমানউল্লাহ গুরবাজকে (২ বলে ০)। এরপর মাঝে এক ওভার কোনো উইকেট না হারালেও নাসুমের করা ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই আফগানরা হারায় ২ উইকেট।

হজরতউল্লাহ জাজাইকে (৭ বলে ৬) নাইম শেখের ক্যাচে পরিণত করার পর অভিষিক্ত ডারউইস রাসুলিকে (৬ বলে ২) করেন বোল্ড। এরপর ইনিংসের পঞ্চম ও নিজের তৃতীয় ওভার করতে এসে করিম জানাতকে (৮ বলে ৬) শেখ মেহেদীর হাতে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন নাসুম। ২০ রানেই সফরকারীদের নেই ৪ উইকেট।

নিজের ৪ ওভারের টানা স্পেলে নাসুম ১০ রান খরচ করে নেন ৪ উইকেট। যা আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের চতুর্থ সেরা বোলিং ফিগার।

সেখান থেকে নাজিবউল্লাহ জাদরান ও মোহাম্মদ নবির ৩৭ রানের জুটি। জুটি ভাঙেন সাকিব, নবিকে (১৯ বলে ১৬) পরিণত করেন আফিফের ক্যাচে। নিজের পরের ওভার করতে এসে তুলে নেন ২৭ রান করা জাদরানের উইকেটও। রাশিদ খানকে ১ রানেই থামান শরিফুল। ৬৬ রানে নেই আফগানদের ৭ উইকেট।

শেষ পর্যন্ত ৯৪ রানেই থেমে যেতে হয় রাশিদ খানদের। ১০ রানে নাসুমের ৪ উইকেটের সাথে ২৯ রান খরচায় শরিফুলের শিকার উইকেট। ২ টি নেন সাকিব, ১ টি মুস্তাফিজের।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি টিকেছে ১৩ বল। ফজলহক ফারুকীর করা ইনিংসের প্রথম ওভারে চার মারেন অভিষিক্ত মুনিম। অফ স্টাম্পের বাইরের ওভার পিচড ডেলিভারিকে কাভারের উপর দিয়ে পাঠান বাউন্ডারিতে।

কিন্তু ফারুকীর পরের ওভারেই ফিরেছেন আরেক ওপেনার নাইম শেখ (৫ বলে ২)। শুরুতে আম্পায়ার নাকোচ করলেও এলবিডব্লিউর রিভিউ নিয়ে সফল আফগানিস্তান।

বাঁহাতি এই এই ব্যাটসম্যান কিছুটা চমক হিসেবেই একাদশে জায়গা পেয়েছিলেন। মূলত ধীর গতির ব্যাটিংয়ে সমালোচিত হলেও গত বছর দেশের হয়ে সর্বোচ্চ টি-টোয়েন্টি রান করেই আরেক দফা সুযোগ পেয়েছেন।

নিজের সহজাত ব্যাটিং করার চেষ্টা করেন মুনিম। মুজিব উর রহমানের করা ইনিংসের চতুর্থ ওভারে হাঁকান ২ চার। কিন্তু ফিরতে হয়েছে রাশিদ খানের করা প্রথম ওভারেই (১৮ বলে ১৭)।

২ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ পাওয়ার প্লেতে তুলতে পারে মাত্র ৩৭ রান। শুরু থেকে ছন্দে থাকা লিটনের সাথে জমেনি সাকিবের ( ৬ বলে ৫) জুটিও। ৪৭ রানে ৩ উইকেট হারানো বাংলাদেশকে একাই টেনে নেন লিটন।

কায়েস আহমেদের করা ১০ম ওভারে হাঁকান ইনিংসের প্রথম ছক্কা। ঐ ওভারে অধিনায়ক রিয়াদের ব্যাটেও আসে বড় এক ছক্কা। তবে রিয়াদ এরপর যেতে পারেননি বেশি দূর (৭ বলে ১০)।

দল ৮০ রানে ৪ উইকেট হারালেও ছন্দ হারাননি লিটন, রাশিদ খানের করা ১৪তম ওভারে লং অনে ঠেলে দিয়ে ৩৪ বলে ৩ চার ২ ছক্কায় ছুঁয়েছেন ক্যারিয়ারের পঞ্চম টি-টোয়েন্টি ফিফটি।

তাকে সঙ্গ দেন আফিফ, দুজনের ৪৬ রানের জুটি ভাঙে লিটন ফিরলে। ফারুকীর স্লোয়ার বুঝতে না পেরে ৪৪ বলে ৪ চার ২ ছক্কায় ৬০ রান করে আউট হন লিটন। এক বলের ব্যবধানে ফিরে যান আফিফও (২৪ বলে ২৫)।

আফিফ-লিটনের বিদায়ের পরই কার্যত শেষ বাংলাদেশ ইনিংস। বাংলাদেশকে ১৫৫ রানে আটকানোর পথে আফগানিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ ২ উইকেট ফারুকী ও আজমতউল্লাহ ওমরজাইয়ের।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বাংলাদেশ ১৫৫/৮ (২০), মুনিম ১৭, নাইম ২, লিটন ৬০, সাকিব ৫, মাহমুদউল্লাহ ১০, আফিফ ২৫, ইয়াসির ৮, মেহেদী ৫, নাসুম ৩*, শরিফুল ৪*; ফারুকি ৪-০-২৭-২, রাশিদ ৪-০-১৫-১, কায়েস ২-০-২১-১, ওমরজাই ৪-০-৩১-২

আফগানিস্তান ৯৪/১০ (১৭.৪), জাজাই ৬, গুরবাজ ০, রাসুলি ২, জাদরান ২৭, জানাত ৬, নবি ১৬, ওমরজাই ২০, রাশিদ ১, কায়েস ৮, মুজিব ৪, ফারুকি ০*; নাসুম ৪-০-১০-৪, মুস্তাফিজ ৩-০-১৯-১, শরিফুল ৩.৪-০-২৯-৩, সাকিব ৪-০-১৮-২

ফলাফলঃ বাংলাদেশ ৬১ রানে জয়ী

ম্যাচসেরাঃ নাসুম আহমেদ (বাংলাদেশ)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

লিটনের ব্যাটে চড়ে বাংলাদেশের ১৫৫

Read Next

বেঁধে দেওয়া লক্ষ্যের চেয়েও কম রান খরচে চ্যালেঞ্জ জিতেছেন নাসুম

Total
5
Share