বিশ্বকাপ শুরুর আগে টাইগ্রেস অধিনায়কের মুখে শক্তি ও সামর্থ্যের গল্প

নিগারের নেতৃত্বে বাংলাদেশ নারী দলের স্কোয়াড
Vinkmag ad

প্রথমবার ওয়ানডে বিশ্বকাপের বড় মঞ্চে বাংলাদেশের মেয়েরা। টুর্নামেন্ট শুরুর আগে অধিনায়ক নিগার সুলতানা আইসিসির অফিসিয়াল সংবাদ সম্মেলনে শুনিয়েছেন নিজেদের শক্তি ও সামর্থ্যের গল্প। অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে এবারের বিশ্বকাপটা স্মরণীয় করে রাখতে চায় নিগার সুলতানারা। বড় দলগুলোর বিপক্ষে লড়তে টাইগ্রেসরা আছে মুখিয়ে।

বিশ্বকাপ মিশনে ওয়েস্ট ইন্ডিজে পা রাখা বাংলাদেশ নারীদের স্কোয়াড যেন পূর্ণশক্তির। ব্যাটিং কিংবা বোলিং যেকোন বিভাগেই নিজেদের সামর্থ্য আছে প্রতিপক্ষের সঙ্গে লড়াইয়ে নামার। ম্যাচে নিজেদের আসল খেলাটা খেলতেই চেষ্টাটা চালাবে বাংলাদেশ। অধিনায়কের কণ্ঠে,

‘আমাদের ভালো বোলিং ও ব্যাটিং ইউনিট আছে। কিন্তু আমার মনে হয় সবাই জানে আমাদের বোলিং ইউনিট বেশি ভালো। আমরা আমাদের শক্তির জায়গাটা কাজে লাগিয়ে নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী খেলার চেষ্টা করব।’

বাংলাদেশের মেয়েদের জন্য এবারেরটা প্রথম ওয়ানডে বিশ্বকাপ। দলে থাকা অভিজ্ঞদের কাজে লাগিয়ে বিশ্বকাপটা স্মরণীয় করে রাখতে চায় নিগার সুলতানারা।

‘আমরা এই বিশ্বকাপটাকে স্মরণীয় করে রাখতে চাই। কারণ এটা আমাদের প্রথম (ওয়ানডে) বিশ্বকাপ। নিজেদের সেরাটা দিতে চাই এখানে। আমাদের অভিজ্ঞ খেলোয়াড় আছে, যারা আমার কাজটা সহজ করে দেয়। তারা জানে, আমার দলে তাদের কত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে। মূল ম্যাচে কী করতে হবে সেটাও তাদের জানা। আমার মনে হয় অনেক তরুণ খেলোয়াড় আছে যারা ভালো করেছে কয়েক মাসে। অনেক অলরাউন্ডার আছে, তারা শেষ টুর্নামেন্টে ভালো এফোর্ট দিয়েছে। আশা করি, মূল ম্যাচে আমরা ভালো করবো।’

বেশ কয়েকটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেললেও এবারই প্রথম বাংলাদেশ নারী দল নামছে ওয়ানডে বিশ্বকাপের মঞ্চে। আইসিসির এই মেগা ইভেন্টের জন্য অনেক আগে থেকেই প্রস্তুত হচ্ছে বাংলাদেশের মেয়েরা।

বিশ্বের সব বড় দলগুলোর সঙ্গে লড়াইয়ের আরও একটি বড় সুযোগ বাংলাদেশ নারী দলের সামনে। বড় চ্যালেঞ্জ নিতেও মুখিয়ে আছে দলটি,

‘আমরা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর থেকেই কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছি। কারণ জানতাম এটাই আমাদের সেরা সুযোগ। যখন কোয়ালিফয়ারে গিয়েছি, নিজেরা একে-অন্যকে বলেছি, এটাই আমাদের সেরা সুযোগ। কারণ এটা আমাদের সেরা স্কোয়াড। আমাদের বিশ্বকাপে আসতেই হতো। কারণ চারটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেললেও ওয়ানডেতে একটাও পারিনি। আমার মনে হয় এটা বড় সুযোগ দেখানোর আমরা বিশ্বের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে পারি।’

‘আমার মনে হয় এটা আমাদের সবার জন্য বড় সুযোগ। আপনারা যেমন দেখেছেন, আমরা এটার জন্য অনেক কষ্ট করেছি। আমাদের প্রথম বিশ্বকাপ এটা, আমার মনে হয় এখানে যদি আমরা ভালো করতে পারি এটা বাংলাদেশ ক্রিকেটে দারুণ প্রভাব রাখবে।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

অনুশীলনে মুস্তাফিজের ‘ইনভিজিবল’ থাকার এক দিন

Read Next

তবে কি ২০২৩ বিশ্বকাপ মিশন শুরু চট্টগ্রাম থেকেই?

Total
13
Share