মিরাজের কণ্ঠে লিটনের সুর

মিরাজের কণ্ঠে লিটনের সুর
Vinkmag ad

বাংলাদেশ ক্রিকেটে তরুণদের অবদান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল বেশ ভালোভাবে। তবে সাম্প্রতিক সময়ে সে ধারায় যেন আসছে পরিবর্তন। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ের পর আফগানিস্তানের বিপক্ষে প্রথম দুই ওয়ানডে জয়ে জুনিয়র ক্রিকেটারদের ছিল দারুণ ভূমিকা। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানো লিটন দাসের মতো মেহেদী হাসান মিরাজও বললেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বড় একটা সময় পার করে ফেলেছেন, দলকে প্রতিদান দিতে হবে করছেন অনুধাবন।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে খাদের কিনারা থেকে দলকে টেনে তুলে জয় এনে দেন আফিফ হোসেন ও মেহেদী হাসান মিরাজ। ৭ম উইকেটে তাদের ১৭৪ রানের রেকর্ড জুটিতে ৪৫ রানে ৬ উইকেট হারানো বাংলাদেশ পায় ৪ উইকেটের জয়।

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে লিটন দাসের ১৩৬ রানের ঝকঝকে ইনিংসের সাথে ছিল মুশফিকুর রহিমের ৮৬ রানের ইনিংস। বাংলাদেশ পায় ৮৮ রানে বড় জয়।

প্রথম দুই ওয়ানডে জিতে সিরিজ নিশ্চিত করা বাংলাদেশ আগামীকাল মাঠে নামবে হোয়াইট ওয়াশ করার মিশনে। তার আগে আজ (২৭ ফেব্রুয়ারি) চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুশীলন শেষে সংবাদ মাধ্যমের সাথে কথা বলেন মিরাজ।

দলের তাদের ভূমিকা নিয়ে জানান, ‘ক্রিকেটা ১১ জনের খেলা। সবার অবদান রাখতে হয়। যেহেতু আমাদের এরকম একটা সুযোগ আসছে। প্রথমে আমরা নরমাল ক্রিকেট খেলেছি (প্রথম ওয়ানডেতে আফিফের সাথে জুটি)। ওই সময় জেতার চিন্তা করি নাই। জুটি গড়ার চেষ্টা করেছি। যখন বড় জুটি হয়ে গেছে তখন চিন্তা করেছি কিভাবে ম্যাচটা জেতা যায়। যেহেতু আমাদের সুযোগ ছিল, সেটা কাজে লাগাতে পেরেছি তো এটা আমাদের ভবিষ্যতের জন্য ভালো হবে।’

একটা সময় বাংলাদেশের জয় মানেই সিনিয়রদের বড় ভূমিকা। এখ সময় বদলের পথে তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসানদের সাথে ৫-৬ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলে ফেলা লিটন দাস, মুস্তাফিজুর রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজরাও নিজেদের অভিজ্ঞ ভাবেন। আগের ম্যাচে জয়ের পরই সংবাদ সম্মেলনে এমনটা জানান লিটন।

আজ একই সুরে কথা বলা মিরাজ যোগ করেন, ‘তাদেরকে (সিনিয়র) দেখেই তো শিখি। যারা অভিজ্ঞ আছেন তারা বাংলাদেশকে অনেক বড় অর্জন এনে দিয়েছেন। আজ আমরা বাংলাদেশের যে অবস্থান আছে এটাতে অবশ্যই তাদের অবদান দিতে হবে। তারা যেভাবে বাংলাদেশকে এক ধাপ উপরে নিয়েছেন। তো আমরা তাদের দেখেই শিখি।’

‘যতটা তাদের দেখে শিখবো সেটা আমাদের ক্যারিয়ারের জন্যই ভালো। অবশ্যই তারা অনেক এমন ম্যাচ জিতিয়েছেন। আমরা ওই সময় চিন্তা করতাম আমরাও যদি সুযোগ পাই তবে আমরাও চেষ্টা করবো ম্যাচ জেতাতে পারবে।’

‘দেখেন আমি, লিটন, মুস্তাফিজ প্রায় ৫-৬ বছর খেলে ফেলেছি, কিছু অভিজ্ঞতা তো হয়েছে। চেষ্টা করবো যতটুকু অভিজ্ঞতা হয়েছে তা কাজে লাগিয়ে ভাল ক্রিকেট খেলার জন্য।’

চট্টগ্রাম থেকে, ক্রিকেট৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

হেরাথের বিপক্ষে চ্যালেঞ্জ জিতে আনন্দে মাতলেন এবাদত

Read Next

অনুশীলনে মুস্তাফিজের ‘ইনভিজিবল’ থাকার এক দিন

Total
1
Share