নিজের উইকেটের মূল্য বুঝতে শিখেছেন ‘সিনিয়র’ লিটন

নিজের উইকেটের মূল্য বুঝতে শিখেছেন 'সিনিয়র' লিটন
Vinkmag ad

তরুণরা দলে অবদান রাখতে পারছে না এমন অভিযোগে যেনো নুয়ে পড়ার অবস্থা বাংলাদেশ ক্রিকেট। তবে সে ধারা বদলের পথে, অন্তত সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স এমনটাই ইঙ্গিত দেয়। আফগানিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি হাঁকানো লিটন দাস যেমন নিজের দায়িত্বটা বুঝতে শিখে গেছেন। ৫ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কাটিয়ে সিনিয়র হচ্ছেন বলে দাবি করে জানালেন নিজের উইকেটের গুরুত্বও বুঝতে শিখেছেন।

প্রতিভা, সামর্থ্য আর শৈল্পিক ব্যাটিংয়ে মুগ্ধ করেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল লিটনের। তবে নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারছিলেন না কোনোভাবেই। তবে তার সামর্থ্যে আস্থা রেখে বাংলাদেশ ক্রিকেটও হাল ছাড়েনি বরং লম্বা সময় করেছে বিনিয়োগ।

একটু ধীরে হলেও লিটনের মাথা খুলেছে, বুঝতে শিখেছেন, নিজের পথ খুঁজে নিয়েছেন। সর্বশেষ কয়েক বছরে ছন্দ খুঁজে রান করছেন সমান তালে। টেস্ট ক্রিকেটে গত বছর তার চেয়ে বেশি রান করতে পারেনি বিশ্বের আর কোনো উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান। ওয়ানডেতেও আজ নিয়ে সর্বশেষ ১৬ ইনিংসে হাঁকালেন ৪ সেঞ্চুরি, সব মিলিয়ে সংখ্যাটা ৫।

আজ চট্টগ্রামে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১২৬ বলে ১৩৬ রানের ইনিংসে দল জেতানোর পর সংবাদ সম্মেলনে লিটনকে প্রশ্ন করা হয় এখন কি তবে বলার সময় এসেছে তরুণরাও অবদান রাখছে?

মূলত চলতি বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মাউন্ট মঙ্গানুই টেস্ট জয়ে অবদান রেখেছেন যে তরুণ ও অনভিজ্ঞ ক্রিকেটাররা। আফগানিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে দলে চার সিনিয়র ও অভিজ্ঞ ক্রিকেটারের অবদান ছাড়াই খাদের কিনারা থেকে টেনে তুলে জেতান আফিফ হোসেন ও মেহেদী হাসান মিরাজ।

নিজেদের আর জুনিয়র না ভেবে লিটনের জবাব, ‘আমরা সিনিয়র হচ্ছি না? (হাসি) আমরাও তো ম্যাচ খেলে খেলে উন্নতি করছি। তো অবশ্যই যেকোনো একটা নতুন ব্যাটার যখন ক্যারিয়ার শুরু করে, এসব বোলিংয়ের এগেইন্সটে খেলে তাদের জন্য কাজটা কঠিন। এখন তো আমরা যারা খেলছি আমরা সবাই… ‘

‘আমি ৫ বছর খেলে ফেলেছি, আফিফরা ২-৩ বছর খেলেছে… তাদের তো একটা অভিজ্ঞতা হচ্ছে ক্রিকেটের। আমার মনে হয়, এই জিনিসটা নিয়ে আমরা কেউ আর ঐভাবে চিন্তা করি না। আমরা শুধু ম্যাচে কীভাবে ব্যাটিং করবো সেই প্ল্যানিংটা সাজানোই মূল।’

সাম্প্রতিক সময়ে লিটনের ব্যাটিংয়ের আরেক বৈশিষ্ট্য চোখে পড়ছে বেশ ভালোভাবে। শুরুতে একটু সময় নিয়ে সেট হয়ে তবে হাত খুলছেন। তবে শুরুর ধীর গতিটা পুশিয়ে দিচ্ছেন পরের আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে। আজ যেমন ফিফটি ছুঁয়েছেন ৬৫ বলে, পরের ৪২ বলেই তুলে নেন সেঞ্চুরি। এরপর হয়েছেন আরও আক্রমণাত্মক, ১২৬ বলে ১৬ চার ২ ছক্কায় শেষ পর্যন্ত থামেন ১৩৬ রানে।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

নিজের এমন ব্যাটিং প্রসঙ্গে লিটন বলছেন তিনি এখন নিজের উইকেটের মূল্য অনুধাবন করেন, ‘আমি চাইলে হয়তো শুরুর দিকে ডাউন দ্য উইকেটে গিয়ে মেরে দিতে পারতাম। তাতে কী হতো? চার বা ছয়। কিন্তু সেটা হাই রিস্ক থাকতো যে একটা উইকেট চলে যাচ্ছে। এখন আমার উইকেট যাওয়া মানে তো টিম প্রেশারে।’

‘আমার মনে হয় যে এই জিনিসটা নিজে থেকে চেঞ্জ করা প্রত্যেক ব্যাটারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। আমি এ জিনিসটা নিয়ে চিন্তা করছি, ভাবনা করছি যে আমার উইকেটের একটা মূল্য আছে। তো নিজের মূল্যটা দিচ্ছি। আশা করি সামনেও দিতে পারবো।’

চট্টগ্রাম থেকে, ক্রিকেট৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ম্যাচের মধ্যে ৫ বার ফোন, প্রধানমন্ত্রী পুরষ্কার দিবেন লিটন-জয়কে

Read Next

ক্রিজে টিকলে যেকোনো প্রতিপক্ষের বিপক্ষেই সফল হবেন জানেন লিটন

Total
1
Share