আরও এক সাকিবময় ম্যাচে ফরচুন বরিশালের জয়

আরও এক সাকিবময় ম্যাচে ফরচুন বরিশালের জয়
Vinkmag ad

কি ঘরের মাঠে কি বাইরের মাঠ, চলতি বিপিএলে সিলেট সানরাইজার্সের ভাগ্য ফিরছে না কোনভাবেই। ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত ফর্মে উড়তে থাকা ফরচুন বরিশালের সামনে পড়ে বরণ করে নিলো ৬ষ্ঠ পরাজয়। আজ (৮ ফেব্রুয়ারি) সিলেটে ফরচুন বরিশালের কাছে হারতে হয়েছে ১২ রানে। আর তাতেই প্রথম দল হিসেবে প্লে-অফের দৌড় থেকে ছিটকে গেলো সিলেট সানরাইজার্স। যেখানে প্রথম দল হিসেবে প্লে-অফ নিশ্চিত করেছে সাকিব আল হাসানের ফরচুন বরিশাল।

আগে ব্যাট করা ফরচুন বরিশাল মুনিম শাহরিয়ারের ঝড়ো ফিফটির সাথে পুরো ২০ ওভার খেলে কিছুটা ধীর গতির ফিফটি ক্রিস গেইলের। দুজনের ফিফটির অপাশাপাশি সাকিব আল হাসান ও ডোয়াইন ব্রাভো খেলেন দুর্দান্ত ক্যামিও। তাতে স্কোরবোর্ডে ৪ উইকেটে ১৯৯ রান।

জবাবে কলিন ইনগ্রামের ৯০ রানের ইনিংসের পরও ৬ উইকেটে ১৮৭ রানেই থামতে হয় সিলেট সানরাইজার্সকে। ৩৪ রান করেন অধিনায়ক মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। টানা ৪ ম্যাচে ম্যাচসেরা হলেন সাকিব আল হাসান। 

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে ৩ ওভারেই দুই ওপেনার কলিন ইনগ্রাম ও এনামুল হক বিজয় তুলে ফেলে ৩২ রান। কিন্তু সাকিব আল হাসানের করা ইনিংসের চতুর্থ ওভারেই ফেরেন ১১ বলে ৭ রান করা বিজয়।

তবে শুরু থেকে ফরচুন বরিশাল বোলারদের উপর চড়াও হওয়া ইনগ্রাম ছিলেন সাবলীল। ৫ম ওভারে ডোয়াইন ব্রাভোকে হাঁকান টানা ৩ চার। শফিকুল ইসলামের করা ৭ম ওভারে সিঙ্গেল নিয়ে ২৪ বলেই এই প্রোটিয়া তুলে নেন ফিফটি।

ফিফটির পরেও একই ধারায় ব্যাট করে গেছেন ইনগ্রাম। ১০ম ওভারে মেহেদী হাসান রানাকে হাঁকান ৪ টি চার। ঐ ওভারেই দলীয় রান পেরোয় ১০০। পরের ওভারেই অবশ্য বিদায় নেন মোহাম্মদ মিঠুন, ১৪ বলে ১৯ রান তার ব্যাটে। ভাঙে ৩৮ বলে ৭৪ রানের জুটি।

অধিনায়ক রবি বোপারা (১১ বলে ৯) দিতে পারেননি যোগ্য সঙ্গ। সেঞ্চুরির পথে হেঁটেও ৯০ রানে থামতে হয় ইনগ্রামকে। ৪৯ বলে ১৬ চার ১ ছক্কায় সাজান ইনিংসটি। তাকে ফেরাতে অধিনায়ক সাকিব ডেকে নেন পার্টটাইমার নাজমুল হোসেন শান্তকে।

হাত ঘুরিয়ে ইনগ্রামের পর একই ওভারে ফেরান মিজানুর রহমানকেও (০)। টানা দুই বলে উইকেট তুলে নিয়ে জাগান হ্যাটট্রিক সম্ভাবনাও। ১৩১ রানে সিলেট সানরাইজার্স হারায় ৫ উইকেট। শেষ ৫ ওভারে প্রয়োজন ছিল ৬৯ রানের।

শেষদিকে মোসাদ্দেকের ২১ বলে ৩৪ ও আলাউদ্দিন আবুর ১২ বলে অপরাজিত ২২ রানেও লক্ষ্য পৌঁছাতে পারেনি সিলেট সানরাইজার্স। ১২ রানে জয় পাওয়া ম্যাচে ফরচুন বরিশালের হয়ে সমান দুইটি করে উইকেট সাকিব, ব্রাভো ও শান্তর।

টস হেরে যথারীতি আগে ব্যাট করা ফরচুন বরিশাল ইনিংসের প্রথম বলেই হারাতে পারতো ওপেনার মুনিম শাহরিয়ারকে। তবে জীবন পেয়ে রীতিমতো ঝড় তুলে দিলেন এই ডানহাতি। আগের ম্যাচে ২৫ বলে ৪৫ রান করে আউট হলেও এদিন তুলে নেন ফিফটি।

সোহাগ গাজীর করা প্রথম ওভারেই নেন ১৬ রান। এরপর নিয়মিত হাঁকিয়েছেন বাউন্ডারি, পুল, লফটেড শটে হাঁকানো ছক্কাগুলোয় জানান দিয়েছেন নিজের হিটিং সামর্থ্যের। পাওয়ার প্লেতে রান বিনা উইকেটে ৬৭, যেখানে মুনিমেরই ২৫ বলে ৪৭!

৭ম ওভারে সোহাগ গাজীকে চার মেরে ২৭ বলে ছুঁয়েছেন ফিফটি। যদিও ফেরেন ওই ওভারেই, থামেন ২৮ বলে ৬ চার ৩ ছক্কায় ৫১ রানে। গেইলের সাথে ৬.৪ ওভার স্থায়ী ৭২ রানের উদ্বোধনী জুটি ভাঙে।

৩ নম্বরে নেমে ব্যর্থ নুরুল হাসান সোহান (২)। তবে দুর্দান্ত ফর্ম আরেকবার টেনে আনলেন সাকিব আল হাসান। আগের দুই ম্যাচে ফিফটি হাঁকানো সাকিব এদিন খেললেন ১৯ বলে ২ চার ৪ ছক্কায় ৩৮ রানের ক্যামিও ইনিংস।

নিজের খেলা ৮ম বলে হাঁকান প্রথম বাউন্ডারি। ১১তম ওভারে সোহাগ গাজীকে হাঁকান টানা ২ ছক্কা। ১২তম ওভারে মোসাদ্দেক হোসেনকে জায়গা বানিয়ে লং অফ দিয়ে হাঁকান আরও এক দারুণ ছক্কা। আউট হওয়ার আগের বলেও আলাউদ্দিন বাবুকে হাঁকান ছক্কা।

সাকিবের বিদায়ের পর কিছুটা হাত খুলেন গেইল, তবে ব্যর্থ হন তৌহিদ হৃদয় (১০)। তৌহিদের বিদায়ের পরের গল্পটা কেবলই ব্রাভোর। ততক্ষণে অবশ্য ৪৩ বলে এবারের বিপিএলে নিজের প্রথম ফিফটির দেখা পান গেইল।

ব্রাভো-গেইলের অবিচ্ছেদ্য জুটি ২১ বলে ৪২ রানের। যেখানে ১৩ বলে ১ চার ৪ ছক্কায় ৩৪ রানে ব্রাভো ও ৪৫ বলে ৪ চার ২ ছক্কায় গেইল অপরাজিত ছিলেন ৫২ রানে। শেষ ৫ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ৬১ রান উঠে ফরচুন বরিশালের স্কোরবোর্ডে।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

নাইমের ৮ ও মাশরাফির ৪ নম্বরে নামার ব্যাখ্যা যা বললেন কোচ

Read Next

এবার মুনিমের চোখেও সুপারম্যান সাকিব

Total
39
Share