সিলেটের অধিনায়ক বদলও হয়েছে সবার অগোচরে

টুর্নামেন্টের মাঝপথে অধিনায়ক বদলে ফেলল সিলেট সানরাইজার্স
Vinkmag ad

সিলেট সানরাইজার্স ও খুলনা টাইগার্সের মধ্যকার গতরাতের (৭ ফেব্রুয়ারি) ম্যাচ নিয়ে বিতর্কের কমতি নেই। যার পুরোটা ঘিরেই আবার সিলেট সানরাইজার্স, হুট করেই অধিনায়ক বদল, মোসাদ্দেক হোসেনের পরিবর্তে রবি বোপারা। অধিনায়কত্বের প্রথম দিনেই বল টেম্পারিং ইস্যু সন্দেহের তীর বোপারার দিকে। অধিনায়কত্ব বদলের বিষয়টি দলের ক্রিকেটাররাও জানতে পেরেছেন মাঠে আসার পর, তবে বল টেম্পারিং ইস্যুতে বোপারাকে আগলে রাখছেন সতীর্থরা।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্জ অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজকে সরানোর রেশ কাটতে না কাটতেই সিলেট সানরাইজার্সে একই কান্ড। মিরাজ ম্যাচের কয়েক ঘন্টা আগে জানলেও মোসাদ্দেকের অধিনায়কত্ব হারানোর বিষয় মাঠে এসেই জেনেছে সতীর্থরা।

খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে ১৫ রানে হারা ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানান পেসার আলাউদ্দিন বাবু। অধিনায়কত্ব বদলের সিদ্ধান্ত সবার অগোচরেই হয়েছে বলছেন এই ডানহাতি। তবে টিম ম্যানেজমেন্টের সিদ্ধান্ত নিয়ে খুব বেশি বলতে নারাজ আলাউদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘প্রকৃতপক্ষে আপনারা যেমন মাঠে এসে জানছেন আমরাও মোটামুটি মাঠে এসে জানছি আজকে রবি বোপারা অধিনায়কত্ব করতে যাচ্ছে মোসাদ্দেকের জায়গায়। আসলে কোভিড পরিস্থিতির কারণে দেখা যায় আমরা সবাই মোটামুটি রুমেই থাকি। তার উপর বেশ কয়েকটা বাজে ম্যাচ গিয়েছে তাই সবাই চেষ্টা করছিলো কীভাবে কামব্যাক করা যায়।’

‘এ সময়টায় আমরা বাইরে কোথাও যাচ্ছি না, রুমে রুমে থাকা হচ্ছে। ম্যানেজমেন্টের এই বিষয়টা আমাদের একদমই দৃষ্টির অগচোরে, আমরা এ সম্বন্ধে অবগত ছিলাম না। মাঠেই জেনেছি, রবি বোপারাও খারাপ না, আজকে ভালো অধিনায়কত্ব করেছে। এটা ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার আমি আসলে বলতে পারছিনা।’

এদিকে খুলনা টাইগার্স ইনিংসের ১০ম ওভারে ঘটে আরও বিতর্কিত কান্ড। অধিনায়ক বোপারা বল করার আগে আঙুল দিয়ে বলে খোঁচা দেন বলে সন্দেহ আম্পায়ারদের। ফলে সাথে সাথে বদলে দেন বল, খুলনা টাইগার্সের স্কোরবোর্ডে পেনাল্টি হিসেবে যোগ করে দেওয়া হয় ৫ রান।

বোপারার এমন কান্ড নিয়ে অবশ্য আম্পায়ারের ওপর অসন্তুষ্ট আলাউউদিন বাবু, ‘বল ওখানে চেঞ্জ হয়েছে কিন্তু যে কারণে আম্পায়ার এমন কিছু করেছে যে বলে কিছু করা হয়েছে আমার কাছে তেমনটা মনে হয় না। রবি বোপারা একটা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার সে ইংল্যান্ডের হয়ে খেলেছে। তাকে পেনাল্টি দেওয়াটা আমরাও ভালোভাবে নিচ্ছি না।’

১৮২ রান তাড়া করতে নেমে ওপেনার এনামুল হক বিজয়ের (৪৭) দারুণ শুরুর পরও তা ধরে রাখা যায়নি। শেষ ওভারে প্রয়োজন পড়ে ৩৬ রান, মাত্রই ক্রিজে আসা আলাউদ্দিন বাবু কামরুল ইসলাম রাব্বির করা ঐ ওভারের প্রথম ৩ বলেই হাঁকান ছক্কা। আর তাতে ম্যাচে ফেরে উত্তেজনা, কিন্তু চতুর্থ বলে ব্যর্থ হলে ম্যাচ নিয়ে কেটে যায় শঙ্কা। পরের ৩ বলে আসেনি ২ রানের বেশি।

ম্যাচে উত্তেজনা ফেরানো ৩ ছক্কা নিয়ে বাবু বলেন, ‘তখন তো ডু ওর ডাই অবস্থা, হয় জয় নাহয় ক্ষয়। ৬ বলে ৩৬ রান খুবই কঠিন কাজ, আর কামরুল ইসলাম রাব্বি আরও কঠিন। কারণ পুরো টুর্নামেন্টজুড়ে সে স্লগে খুব ভালো বোলিং করে যাচ্ছে। ওই সময়টা অনেক কঠিন ছিল। হয়তোবা আমাদের জন্য যদি আর একটা-দুইটা ওভার বেশি থাকতো তাহলে রানটা চেজ করা সম্ভব হতো।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সৌম্য’র অলরাউন্ড নৈপুণ্যে সিলেটকে হারাল খুলনা

Read Next

আইপিএল বদলে দিলো ক্রিকেটের প্রতি শন টেইটের ভালোবাসা

Total
1
Share