ফ্লেচার, সৌম্যর বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে উড়ে গেল সিলেট

ফ্লেচার, সৌম্যর বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে উড়ে গেল সিলেট
Vinkmag ad

চট্টগ্রাম ঘুরে আবারও মিরপুরে ফিরল বিপিএল। সিলেটকে হারিয়ে জয়ে ফিরল খুলনা। মোহাম্মদ মিঠুনের ৭২ রানের অনবদ্য ইনিংসে সিলেট সানরাইজার্স পায় ১৪২ রানের লড়াকু সংগ্রহ। তবে ফ্লেচার-সৌম্যর বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের সামনে লড়াই করার যেন কোন সুযোগই পাননি সিলেটের বোলাররা। কেবল ১ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় খুলনা; তাও আবার ৩৪ বল হাতে রেখে।

বিপিএলের ১৭তম ম্যাচে টস জিতে সিলেট সানরাইজার্সকে আগে ব্যাটিংয়ে পাঠায় খুলনা টাইগার্সের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। অধিনায়কের সিদ্ধান্তের সঠিক ব্যবহার করেন বোলাররা। খালেদ, রাব্বি ও নাবিলের বোলিং তোপে স্কোরবোর্ডে ৩৪ রান তুলতেই সিলেট হারিয়ে ফেলে শুরুর ৩ ব্যাটসম্যানকে।

এরপর অবশ্য মিরপুরে বিপরীত এক গল্প লিখেন মিঠুন-মোসাদ্দেক জুটি। এই দুইয়ের ব্যাটে চড়ে বড় হয় দলের সংগ্রহটা। চাপে পড়া সিলেট উঠে দাঁড়ায়, স্কোরবোর্ডে ছাড়িয়ে যায় শতরান। দলীয় ১০৩ রানে মোসাদ্দেক বিদায় নিলে ভাঙে ৬৮ রানের জুটি। ফেরার আগে ৩০ বলে ৩৪ রান করেন সিলেটের অধিনায়ক।

ফিফটি হাঁকিয়ে ব্যাটিং তান্ডব চালান মোহাম্মদ মিঠুন। খেলেন দারুণ সব স্ট্রোক্স। তবে শেষ ওভারে যেয়ে মিঠুন ফেরেন প্যাভিলিয়নে। ১৯.৫ ওভারে মিঠুনকে আউট করেন সৌম্য। তাঁর আগে ৫১ বলে ছয় ৪ ও ৪ ছক্কায় খেলেন ৭২ রানের অনবদ্য এক ইনিংস। আর তাতেই যে সিলেটের সংগ্রহ যেয়ে দাঁড়ায় ১৪২’এ।

বল হাতে খালেদ আহমেদ সর্বোচ্চ ২ উইকেট পেলেও দারুণ বোলিং করে সিলেটের রানের চাকা থামিয়ে দিয়েছেন নাবিল সামাদ। ৪ ওভারে ১ মেডেনসহ ১০ রান খরচ এই স্পিনার নেন ১টি উইকেট। এছাড়া সৌম্য সরকার ও কামরুল ইসলাম রাব্বির ঝুলিতেও যায় একটি করে উইকেট।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দুই ওপেনারের ব্যাটে খুলনার দুরন্ত শুরু। আগের তিন ম্যাচে ব্যর্থ সৌম্য মিরপুরে এসে ব্যাটে পেলেন চেনা ছন্দ। শুরু থেকে বিধ্বংসী মেজাজে ব্যাট করেন ক্যারিবীয় ব্যাটার আন্দ্রে ফ্লেচার। মোসাদ্দেকের বলে টানা ছক্কা হাঁকিয়ে ফ্লেচার দেখালেন নিজের ভয়ংকর রূপ। ফলে পাওয়ার-প্লে’তেই খুলনার সংগ্রহ ৬৫।

৩৪ বলে ফিফটি তুলে নেন স্পাইসম্যান ফ্লেচার। ফিফটির পথে ছিলেন আরেক ওপেনার সৌম্যও। আগের বলে নাজমুল ইসলাম অপুকে বাউন্ডারি মারা সৌম্য পরের বলে সুইপ করতে যেয়ে টপ এজে ক্যাচে পরিণত হন। প্যাভিলিয়নে ফেরার আগে ৩১ বল খেলে ৬টি চার ও ১টি ছক্কায় সৌম্য খেলেন ৪৩ রানের ইনিংস। দলীয় ৯৯ রানে ভাঙে খুলনার উদ্বোধনী জুটি।

সৌম্য ফিরে গেলেও তান্ডব থামেনি ফ্লেচারের ব্যাটে। ইনিংসের ১২তম ওভারে ফ্লেচার আর পেরেরা মিলে মুক্তার আলিকে খরচ করান ২০ রান। তিনে নামা থিসারা পেরেরাও ফ্লেচারের সঙ্গী হয়ে খেলতে থাকেন মারমুখী ভঙ্গিতে। মাত্র ৯ বলে ৩ চার ও ১ ছয়ে ২২ রান তুলে দলের জয় নিশ্চিত করেন। আন্দ্রে ফ্লেচার অপরাজিত থাকেন ৭১ রানে। ৪৭ বলে ৫টি করে চার ও ছক্কায় সাজান এই ইনিংস।

ফলে ৩৪ বল বাকি থাকতেই খুলনা টাইগার্স পায় ৯ উইকেটের বড় জয়।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ফখরের ব্যাটে রান উৎসব, লাহোরের জয়

Read Next

অ্যাশেজের ব্যর্থতার জেরে পদত্যাগ করলেন অ্যাশলে জাইলস

Total
11
Share