ম্লান হয়ে গেল আরিফুলের সেঞ্চুরি, দল হারলেও হয়েছেন ম্যাচসেরা

ম্লান হয়ে গেল আরিফুলের সেঞ্চুরি, দল হারলেও হয়েছেন ম্যাচসেরা
Vinkmag ad

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের পঞ্চম স্থান প্লে অফ সেমি-ফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে আরিফুল ইসলামের দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরিতে লড়াই করার মতো পুঁজি পায় বাংলাদেশ। তবে শুরুর দুই জুটিতেই বাংলাদেশকে জয়ের পথ থেকে সরিয়ে দেয় পাকিস্তান। বল হাতে পাক ব্যাটসম্যানদের চাপে রাখতে পেরেছেন কেবল রাকিবুল। শেষপর্যন্ত ২১ বল বাকি থাকতে পাকিস্তান পেয়েছে ৬ উইকেটের জয়।

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের শেষ কোয়ার্টার-ফাইনালে ভারতের কাছে হেরে শিরোপা অভিযান শেষ হয় বাংলাদেশের। তবে পঞ্চম হওয়ার লড়াইয়ে বাংলাদেশের যুবারা মুখোমুখি হয় পাকিস্তানের। অ্যান্টিগার কুলিজ ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ভারতের পর পাকিস্তানের বোলিংয়ের সামনেও মুখ থুবড়ে পড়ল বাংলাদেশের ব্যাটিং। তবে ধ্বংসস্তূপে বীরের মতো দাঁড়িয়ে একা হাতে লড়াই চালিয়ে আরিফুল ইসলাম করেন শতরান। আর তাতেই জিতে নেন ম্যাচ সেরার পুরষ্কার।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে স্কোরবোর্ডে ২৩ রান তুলতেই টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। ওপেনার মাহফিজুলের ব্যাট থেকে ২৭ বলে আসে কেবল ৬ রান। ফের ব্যর্থ প্রান্তিক নওরোজ নাবিল (১)। আইচ মোল্লারও একই অবস্থা (৪)।

এরপর ইফতেখার হোসেন ও আরিফুল ইসলামের জুটিতে আসে ৫০ রান। ভুল বোঝাবুঝিতে ওপেনার ইফতেখার রান আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন ব্যক্তিগত ২৫ রানে। মোহাম্মদ ফাহিম (৫) দ্রুতই বিদায় নেন। মেহেরব হাসান ১৪ রান করে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন। নাইমুর রহমান ২ রানের বেশি করতে পারেননি। অধিনায়ক রাকিবুল হাসান থেমে যান শূন্যের ঘরেই।

এরমধ্যেই ফিফটি হাঁকানো আরিফুল শুরু করেন আগ্রাসী ব্যাটিং। এগিয়ে যান সেঞ্চুরির পথে। আওয়াইস আলির এক ওভারে মারেন তিনটি ছক্কা। উইকেটের আসা-যাওয়া মিছিলের মাঝে দাঁড়িয়ে অনবদ্য ব্যাটিং করেন আরিফুল। পেয়ে যান নিজের প্রথম সেঞ্চুরির দেখা। পরের বলেই ক্যাচ দিয়ে শেষ হয় ১১৯ বলে ৫টি চার ও ৪ ছক্কায় সাজানো তাঁর এই ইনিংস।

ধুঁকতে ধুঁকতে বাংলাদেশ অলআউট হয়েছে ১৭৫ রানে। যেখানে আরিফুলের একার রান ১০০। আর বাকি দশ ব্যাটসম্যান মিলে করেছেন কেবল ৭৫।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতেই পাকিস্তানের সংগ্রহ ৭৬। ১৯.১ ওভারে যেয়ে উইকেটের দেখা পায় টাইগার যুবারা। নাইমুর রহমানের বলে আসে প্রথম ব্রেকথ্রু। ব্যক্তিগত ৩৬ রানে প্যাভিলিয়নের পথে হাটেন মোহাম্মদ শেহজাদ। তৃতীয় উইকেট জুটিতে পাকিস্তানের আসে আরও ৬৪ রান।

দলীয় ১৪০ রানে রাকিবুলের শিকার হয়ে ফেরেন ৭৯ রান করা হাসিবউল্লাহ খান। রান আউটে কাটা পড়ে ব্যক্তিগত ২৪ রানে বিদায় নেন ইরফান খান। এরপর পাক অধিনায়ককে নিজের বলে নিজেই ক্যাচ নেন টাইগার অধিনায়ক রাকিবুল। তবুও পাকিস্তানের জয়ের পথটা কঠিন করতে পারেনি বাংলাদেশের বোলাররা। তবে লড়াই কিছুটা হলেও জমেছে রাকিবুলের স্পিন ঘূর্ণিতে।

আব্বাস আলিকে নিয়ে জয়ের জন্য বাকিটা পাড়ি দেন আব্দুল ফাসিহ (২২*)। ১৭৬ রানের লক্ষ্য ৪ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তান ছুঁয়ে ফেলেছে ২১ বল বাকি থাকতে।

দল হারলেও বল হাতে অধিনায়ক রাকিবুল হাসান ছিলেন দুর্দান্ত। ১০ ওভারে ২৮ রান খরচায় ১ মেডেনসহ তুলে নেন ২টি উইকেট।

আগামী বৃহস্পতিবার সপ্তম স্থান নির্ধারণী ম্যাচে বাংলাদেশ খেলবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলঃ ১৭৫/১০ (৪৯.২ ওভার) মাহফিজুল ৬, ইফতেখার ২৫, নাবিল ১, আইচ ৪, আরিফুল ১০০, ফাহিম ৫, মেহেরব ১৪, নাইমুর ২, রাকিবুল ০, রিপন ৭*; জিশান ৯.২-১-২৭-১, আওয়াইস ১০-০-৫২-২, আহমেদ ৪-১-১৯-১, মেহরান ১০-২-১৬-৩

পাকিস্তান অনূর্ধ্ব-১৯ দলঃ ১৭৬/৪ (৪৬.৩ ওভার) শেহজাদ ৩৬, হাসিবউল্লাহ ৭৯, ইরফান ২৪, ফাসিহ ২২*, কাইস ১, আব্বাস ৫*; নাইমুর ১০-০-৩৩-১, রাকিবুল ১০-১-২৮-২

ফলাফলঃ পাকিস্তান অনূর্ধ্ব-১৯ দল ৬ উইকেট জয়ী

ম্যাচ সেরাঃ আরিফুল ইসলাম (বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মুলতান সুলতান্সের জয়ের হ্যাটট্রিক

Read Next

আগামীকাল বাংলাদেশে আসছেন জেমি সিডন্স

Total
1
Share