মাশরাফিকে আদর্শ মানা মৃত্যুঞ্জয় বিপিএলকে দেখেন শেখার মঞ্চ হিসেবে

মাশরাফিকে আদর্শ মানা মৃত্যুঞ্জয় বিপিএলকে দেখেন শেখার মঞ্চ হিসেবে
Vinkmag ad

মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরীর মাঝে দারুণ এক অলরাউন্ডারের সম্ভাবনা বয়স ভিত্তিক থেকেই। তবে চোটে পড়ে গত যুব বিশ্বকাপের মাঝপথেই ছিটকে যান। বাংলাদেশ যুব দল চ্যাম্পিয়ন হয়, সময় গড়িয়ে আরও এক যুব বিশ্বকাপ চলমান। চোটের অস্ত্রপচার শেষে কয়েক মাস আগেই পুরোদমে ছন্দে ফিরেছেন মৃত্যুঞ্জয়। চলতি বিপিএলে নিজের প্রথম ম্যাচেই তুলে নিলেন হ্যাটট্রিক। ম্যাচ শেষে জানালেন তার আদর্শ বাংলাদেশের অন্যতম সফল পেসার মাশরাফি বিন মর্তুজা।

বাংলাদেশে মাশরাফিকে অনুপ্রেরণা, আদর্শ মানা পেসারের সংখ্যা বেশ বড় অঙ্কেরই। তবে ক্যারিয়ারের শুরুতেই চোটকে সঙ্গী হিসেবে পেয়ে লম্বা সময় মাঠের বাইরে ছিলেন বলে মাশরাফির কাছ থেকে বাস্তবিকভাবেই মৃত্যুঞ্জয়ের শেখার আছে অনেক কিছু। কিন্তু সেসবের বাইরে গিয়েও খেলাটার প্রতি মাশরাফির আগ্রহ, নিবেদন আলাদা করে ভালো লাগায় তরুণ এই পেসারের।

তার গুরুত্বপূর্ণ সময়ে তুলে নেওয়া হ্যাটট্রিকেই গতরাতে (২৯ জানুয়ারি) সিলেট সানরাইজার্সের বিপক্ষে দারুণ এক জয় পায় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। ম্যাচ সেরার পুরষ্কারও জেতেন এবারের বিপিএল প্রথম ও সব আসর মিলে ৬ষ্ঠ হ্যাটট্রিকের নজির গড়া বাঁহাতি এই পেসার। পরে সংবাদ সম্মেলনেই নিজের আদর্শের কথা জানাতে গিয়ে মাশরাফিকে সামনে আনলেন।

মৃত্যুঞ্জয় বলেন, ‘সত্যি কথা বলতে গেলে মাশরাফি ভাইকে খুব ভালো লাগে। তার নিবেদন, এখনো এই বয়সে যে নিবেদন উনি দেখাচ্ছেন আমরা নিজেরাই এতোটা নিবেদন দেখাতে পারবো কীনা এটা খুবই প্রশ্নবিদ্ধ একটা জিনিস! তার নিবেদন, খেলার প্রতি আগ্রহ, সাপোর্টিভ মনোভাব এটা আমাকে খুব অনুপ্রেরণা দেয়। আমিও ইনজুরিতে ছিলাম, তাকে দেখে অনেক কিছু শেখার আছে। বাংলাদেশের পেস বোলার অনেকেই তাকে দেখে অনুপ্রেরণা পায়। সে আমার বাংলাদেশে একজন আইডল বলা যায়।’

যেকোনো টুর্নামেন্টে সব খেলোয়াড়েরই লক্ষ্য থাকে সেরা খেলোয়াড় হওয়ার। তবে ২০ বছর বয়সী এই পেসার বিপিএলের মতো টুর্নামেন্টকে বর্তমানে দেখছে শেখার মঞ্চ হিসেবে। জাতীয় দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের পাশাপাশি বিদেশী ক্রিকেটারদের কাছ থেকেও নিতে চান সেরাটা।

তার মতে, ‘ সত্যি কথা বলতে একটা খেলোয়াড়ের একটা টুর্নামেন্টে সবসময়ই লক্ষ্য থাকে সেরা খেলোয়াড় হওয়া। কিন্তু আমার লক্ষ্যটা হচ্ছে যেহেতু এখন শেখার সময়ে আছি, আমার যেগুলো ভালো হচ্ছে সেগুলো করা এবং যেসব জায়গায় ঘাটতি আছে সেসব জায়গা এখানে সিনিয়র যেসব ভাই আছে কিংবা বিদেশী আছে তাদের কাছ থেকে শেখা।’

‘আল্টিমেটলি সবাই কিন্তু একটা বড় প্রসেসের জন্য খেলে। ওই প্রসেসে যেনো আমি ভালোভাবে থাকতে পারি এ কারণে সবকিছু থেকে শেখার চেষ্টা করতেছি। আল্টিমেটলি ফলে চেয়ে নিজেকে তৈরি করার দিকেই নিজের লক্ষ্য স্থির করতে চাচ্ছি।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সেই ভারতের কাছে হেরেই বিদায় নিল টাইগার যুবারা

Read Next

হ্যাটট্রিক যে হবে তা মাথায় ছিল না মৃত্যুঞ্জয়ের

Total
9
Share