খুলনাকে হারিয়ে জয়ে ফিরল বরিশাল

চট্টগ্রামকে হারিয়ে বিপিএল মিশন শুরু করল ফরচুন বরিশাল
Vinkmag ad

প্রথম ৩ ম্যাচে ১ জয়, কাগজে-কলমে সেরা দল গড়া ফরচুন বরিশালের জন্য কিছুটা হতাশার তো বটে। যে কারণে আজ (২৯ জানুয়ারি) নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে ৪ পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে সাকিব আল হাসানের দল। শুধু একাদশ নয়, ব্যাটিং অর্ডারেও এসেছে বেশ রদবদল। যদিও চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে আগে ব্যাট করে ব্যাটিং অর্ডারে পরিবর্তনেও খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি, তবে বোলারদের কল্যাণে এলো ১৭ রানের জয়।

খুলনা টাইগার্সের নিয়ন্ত্রিত বোলিং ও নিজেদের এলোমেলো ব্যাটিং অর্ডারে ৯ উইকেটে ১৪১ রানের পুঁজি ফরচুন বরিশালের। সর্বোচ্চ ৪৫ রান এসেছে ওপেনিংয়ে উঠে আসা ক্রিস গেইলের ব্যাটে।

জবাবে হতশ্রী ব্যাটিং প্রদর্শনীতে ১২৪ রানেই গুটিয়ে গেলো মুশফিকুর রহিমের খুলনা টাইগার্স। অধিনায়ক মুশফিক ক্রিজে টিকে ৪০ রানের ইনিংস খেলেও দল জেতাতে ব্যর্থ যোগ্য সঙ্গীর অভাবে। যেটুকু জয়ের সুযোগ তৈরি হয়েছিলো শেষদিকে সেটিও থামিয়ে দেন ফরচুন বরিশাল পেসার মেহেদী হাসান রানা।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে বাজে শুরু খুলনা টাইগার্সের। এবারের বিপিএলে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমে আফগান স্পিনার মুজিব উর রহমান প্রথম ওভারেই ফেরান দুই ওপেনারকে। আগের ম্যাচে জয়ের নায়ক আন্দ্রে ফ্লেচারের (৪) পর বলের লাইন মিস করে এলবিডব্লিউ সৌম্য সরকারও (১ বলে ০)।

৫ রানে ২ উইকেট হারানো খুলনা টাইগার্স ভরসা পাচ্ছিলো রনি তালুকদার ও শেখ মেহেদী হাসানের ব্যাটে। ৭ম ওভারে সাকিবকে ছক্কা হাঁকানোর পরের বলে ডাউন ড্য উইকেটে খেলতে যান মেহেদী (২৩ বলে ১৭), ফলাফল স্টাম্পড।

জ্যাক লিনটটের বলে দৃষ্টিকটুভাবে আউট রনিও (১৬ বলে ১৪)। যদিও কট বিহাইন্ডের সিদ্ধান্ত নিয়ে আছে বিতর্ক, রিভিউ নিয়েও ফিরতে হয় রনিকে।

১০ ওভারে ৪৮ রান তুলতে নেই ৪ উইকেট, প্রয়োজনীয় রানের সমীকরণ হয়েছে কঠিন। বল-রানের ব্যবধান কমাতে ব্যর্থ ইয়াসির আলি রাব্বি (২০ বলে ২৩)। ভাঙে মুশফিকুর রহিমের সাথে ৪৬ রানের জুটি।

স্বপ্ন দেখিয়ে হতাশ করেন ৯ বলে ১৯ করা থিসারা পেরেরা, সেকুগো প্রসন্নও (২)। শেষ ২ ওভারের প্রয়োজন ২১ রান। ১৯তম ওভারের প্রথম বলে সেট ব্যাটার মুশফিকের সহজ ক্যাচ ছাড়েন শফিকুল, তবে পরের বলেই রানা ফেরান ফরহাদ রেজাকে (০)। ২ বল পরই রানা ফেরান শরিফুল্লাহ (০) ও মুশফিককে।

ওভারের শেষ বলে স্কুপ করতে গিয়ে উইকেটের পেছনে শেষ ব্যাটার হিসেবে ক্যাচ মুশফিক। খুলনা টাইগার্স অধিনায়কের ব্যাটে ৩৬ বলে ১ টি করে চার, ছক্কায় ৪০ রান। ৩ ওভারে ১৭ রান খরচায় বাঁহাতি পেসার রানার শিকার ৪ উইকেট।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নামা ফরচুন বরিশাল একাদশের সাথে ব্যাটিং অর্ডারেও বেশ কিছু পরিবর্তন আনে। উদ্বোধনী জুটিতে দেখা যায় ক্রিস গেইল ও জ্যাক লিনটটকে। ২.৩ ওভার স্থায়ী জুটিতে যোগ হয় ২৬ রান, মিলছিলো দারুণ কিছুর আভাস। গেইলতো কামরুল ইসলাম রাব্বির করা প্রথম ওভারেই হাঁকান ৩ চার।

তবে স্পিনার শরিফুল্লাহর বলে লিনটট (৬ বলে ১১) ডাউন দ্য উইকেটে এসে উড়িয়ে মারতে গিয়ে বোল্ড হন। লোয়ার মিডল থেকে টপ অর্ডারে উন্নতি হওয়া জিয়াউর রহমানকে নিয়ে ৩৮ রানের জুটি গেইলের। তবে ১০ রান করে আউট হতে হয় জিয়াকে।

এরপর গেইল নিজেও অবশ্য বেশিক্ষণ টিকেননি। যদিও তার আগেই ৩৪ বলে ৬ চার ২ ছক্কায় ৪৫ রান করে ফেলেন, সেকুগো প্রসন্নকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ক্যাচ দেন সৌম্য সরকারকে।

গেইলের বিদায়ের পরও ক্রিজে আসেননি সাকিব, ব্যর্থ হন সোহান (১১ বলে ৮)। এরপর ৩৫ রানের জুটিতে যা একটু প্রচেষ্টা নাজমুল হোসেন শান্ত ও তৌহিদ হৃদয়ের। শান্ত ফেরেন ১৯ রান করে, হৃদয়ের ব্যাটে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৩ রান।

৭ নম্বরে নেমে ৯ রানের বেশি করতে পারেননি সাকিব। ১০ রানের ব্যবধানে ৪ উইকেট উইকেট হারায় বরচুন বরিশাল, থামতে হয় ৯ উইকেটে ১৪১ রানেই। ৪ ওভারে সমান ১৮ রান খরচায় থিসারা পেরেরা দুইটি, শেখ মেহেদী হাসান নেন একটি উইকেট।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মালিক-তালাতের ব্যাটিংয়ে ম্লান স্মিডের দাপুটে ইনিংস

Read Next

সাকিব বলছেন আত্মবিশ্বাস বৃথা যায়নি

Total
13
Share