সিক্সার্সকে উড়িয়ে বিগ ব্যাশের চ্যাম্পিয়ন পার্থ স্কর্চার্স

featured photo updated v 19
Vinkmag ad

জমজমাট লড়াই শেষে অবশেষে পর্দা নামলো বিগ ব্যাশ লিগের। ফাইনালে সিডনি সিক্সার্সকে উড়িয়ে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন শিরোপা পার্থ স্কর্চার্সের। ১৭১ রান তাড়া করতে নেমে গত দুই আসরের চ্যাম্পিয়ন সিক্সার্স আটিকে যায় ৯২ রানেই। আর তাতেই পার্থ স্কর্চার্স পেয়েছে ৭৯ রানের বড় জয়।

বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে অপরাজিত ৭৬ রানের ইনিংস খেলা পার্থ স্কর্চার্সের লরি ইভান্স জিতেছেন ফাইনাল সেরার পুরষ্কার। আর টুর্নামেন্ট সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন বেন ম্যাকডারমট। হোবার্ট হারিকেন্সের এই ব্যাটসম্যান ১৩ ম্যাচে দুই সেঞ্চুরিতে ৫৭৭ রান করে এবারের আসরের সর্বোচ্চ স্কোরার।

মেলবোর্নের ডকল্যান্ডস স্টেডিয়ামে টস হেরে শুরুতে ব্যাট করতে নামে পার্থ। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটের বিনিময়ে স্কোরবোর্ডে জমা করে ১৭১ রান। সর্বোচ্চ ইনিংস এসেছে লরি ইভান্সের ব্যাট থেকে। ৪টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে ৪১ বলে অপরাজিত ৭৬ রান করেন ইভান্স। তাঁর বিধ্বংসী ব্যাটিংয়েই দলের সংগ্রহটা হয়েছে বড়। এছাড়াও ৩৫ বলে ৫৪ রান করেন অধিনায়ক অ্যাস্টন টার্নার।

বড় রান করতে ব্যর্থ হয়েছে পার্থ স্কর্চার্সের টপ অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা। দলীয় ২৫ রানের মধ্যেই নেই ৪ ব্যাটসম্যান। ওপেনার কুর্টিস প্যাটারসেন ১, জশ ইংলিশ ১৩, মিচেল মার্শ ৫ আর কলিন মুনরো বিদায় নেন কেবল ১ রানে। শেষদিকে অ্যাস্টন অ্যাগার করেন ১৫ রান।

বল হাতে সিডনির হয়ে ২টি করে উইকেট নেন স্টিভ ও’কিফ ও নাথান লায়ন। এছাড়া ১টি করে উইকেট পেয়েছেন হেইডেন কের ও জ্যাকসন বার্ড।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে সিডনি সিক্সার্স ১৬.২ ওভারে মাত্র ৯২ রানে অল-আউট হয়ে যায়। পার্থ স্কর্চার্সের বোলারদের সামনে একা হাতে লড়াই চালান ড্যানিয়েল হিউজ। তবে তাঁকেও প্যাভিলিয়নে ফিরতে হয় ব্যক্তিগত ৪২ রানে। সিক্সার্সের আর কেউই বলার মতো স্কোর করতে পারেননি।

পার্থের হয়ে বল হাতে অ্যান্ড্রু টাই ১৫ রান খরচায় সর্বোচ্চ ৩ উইকেট দখলে নেন। এছাড়া ২০ রানে ২টি উইকেট নিয়েছেন ঝাই রিচার্ডসন। ১টি করে উইকেট নেন জেসন বেহরেনডর্ফ, টার্নার, পিটার ও অ্যাস্টন আগার।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

পার্থ স্কর্চার্সঃ ১৭১/৬ (২০ ওভার) প্যাটারসন ১, ইংলিস ১৩, মার্শ ৫, টার্নার ৫৪, ইভান্স ৭৬*, রিচার্ডসন ১; বার্ড ১-০-৬-১, হেইডেন ৩-০-২০-১, ও’কিফ ৪-০-৪৩-২, লায়ন ৩-০-২৪-২

সিডনি সিক্সার্সঃ ৯২/১০ (১৬.২ ওভার) কের ২, বার্টাস ১৫, হিউজ ৪২, হেনরিকেস ৭, ক্রিস্টিয়ান ৩, অ্যাভেনডানো ১, অ্যাবট ১, ডোয়ারশাস ০, লেন্টন ১০*, লায়ন ৩, ও’কিফ ২; রিচার্ডসন ৩.২-০-২০-২, বেহরেনডর্ফ ২-০-১২-১, টার্নার ১-০-৬-১, অ্যাগার ৪-০-২৫-১, টাই ৩-০-১৫-৩

ফলাফলঃ পার্থ স্কর্চার্স ৭৯ রানে জিতে চ্যাম্পিয়ন

ফাইনাল সেরাঃ লরি ইভান্স (পার্থ স্কর্চার্স)

টুর্নামেন্ট সেরাঃ বেন ম্যাকডারমট (হোবার্ট হ্যারিকেন্স)

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

নারীদের বিশ্বকাপের জন্য বাংলাদেশের স্কোয়াডে জাহানারা

Read Next

কানাডার ৯ খেলোয়াড়ের করোনা পজিটিভ, বাতিল হল বিশ্বকাপের শেষ দুই ম্যাচ

Total
1
Share