ঢাকার পর খুলনাকেও হারাল চট্টগ্রাম

ঢাকার পর খুলনাকেও হারাল চট্টগ্রাম
Vinkmag ad

কেনার লুইসকে বলা হয়ে থাকে ভবিষ্যত ক্রিস গেইল, মূলত ধুম ধাড়াক্কা ব্যাটিংয়ের বিজ্ঞাপন এই ক্যারিবিয়ান। কিন্তু চলতি বিপিএলে নিজের খেলা প্রথম ২ ম্যাচেও সেরকম কিছু দেখাতে পারেননি। তৃতীয় ম্যাচে আজ (২৪ জানুয়ারি) লুইস আভাস দিয়েছেন আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ের। যদিও থামতে হয় ১৪ বলে ২৫ রানে। কিন্তু তার শুরুর ঝড়ের পর রানের সে ধারা অব্যাহত রাখে সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, বেনি হাওয়েলরা।

তাদের ব্যাটে চড়ে টুর্নামেন্টে এখনো পর্যন্ত সর্বোচ্চ ৭ উইকেটে ১৯০ রানের দলীয় সংগ্রহ পেলো চটগ্রাম। জবাবে খুলনা টাইগার্স যেতে পেরেছে ৯ উইকেটে ১৬৫ রান পর্যন্ত। ২৫ রানের জয়ে ৩ চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স পেলো টানা ২ জয়।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই এলোমেলো খুলনা টাইগার্স। ওপেনার তানজিদ হাসান তামিম করতে পারেননি ৯ রানের বেশি। আগের ম্যাচে ফিফটি হাঁকিয়ে ম্যাচ সেরার পুরষ্কার জেতা রনি তালুকদার থেমেছেন ৭ রানেই।

মাঝে আন্দ্রে ফ্লেচার পেসার রেজাউর রহমান রেজার বাউন্সারে ঘাড়ে আঘাত পান। ১৬ রানে ব্যাট করা ফ্লেচারকে যেতে হয়েছে হাসপাতাল পর্যন্ত, যদিও অবস্থা স্বাভাবিক বলে জানিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট।

ফ্লেচারের পরিবর্তে কনকাশন সাব হয়ে নামেন সিকান্দার রাজা। ভালো কিছুর আভাস দিয়েও ২৪ বলে ৫ চারে ৩০ রানেই আটকে যান শেখ মেহেদী। তার আগে ব্যর্থ অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। ১৫ বলে ১১ রান করে বেনি হাওয়েলের শর্ট বলে ক্যাচ দেন পয়েন্টে থাকা রেজাউর রহমান রাজাকে।

৭৬ রানে ৪ উইকেট হারানো খুলনা টাইগার্সকে পথ দেখানোর চেষ্টা করেন ইয়াসির আলি রাব্বি ও সিকান্দার রাজা। দুজনে মিলে জুটিতে যোগ করেন ৪৩ রান। ২২ রান করে রাজা আউট হলে ভাঙে জুটি।

২৬ বলে ২ চার ৩ ছক্কায় ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৪০ রান আসে রাব্বির ব্যাটে। এরপর বলার মতো রান করতে পারেনি খুলনা টাইগার্সের আর কোনো ব্যাটার। ৯ উইকেটে ১৬৫ রানেই সন্তুষ্ট থেকে হারতে হয়েছে ২৫ রানে।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের হয়ে সর্বোচ্চ ২ টি করে উইকেট শরিফুল ইসলাম, মেহেদী হাসান মিরাজ ও রেজাউর রহমান রেজার। মিরাজ অবশ্য ছিলেন খরুচে, ৪ ওভারে দেন ৪২ রান।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের। লুইস ও জ্যাকস ছিলেন দারুণ আক্রমণাত্মক। সোহরাওয়ার্দী শুভর করা ইনিংসের প্রথম ওভারেই আসে ২৩ রান। যা বিপিএল ইতিহাসে প্রথম ওভারে সর্বোচ্চ রান।

কামরুল ইসলাম রাব্বির করা পরের ওভারেই অবশ্য ফিরেছেন জ্যাকস। তার আগেই অবশ্য হাঁকান আরও এক ছক্কা, ৭ বলে থেমেছেন ১৭ রানে। জ্যাকস বিদায় নিলেও লুইস ছিলেন ছন্দে। নাভিন উল হকের করা তৃতীয় ওভারে আসে ১৬ রান। ৩ ওভারেই চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের স্কোরবোর্ডে ৪৮ রান।

ইনিংসের চতুর্থ ওভারেই অবশ্য ফিরতে হয় লুইসকে। ১৪ বলে সমান ২ টি করে চার-ছক্কায় তার ব্যাটে ২৫ রান। জ্যাকস-লুইসের বিদায়ের পর অবশ্য রানের গতি হয়েছে ধীর। পাওয়ার প্লে-তে ২ উইকেটে ৬৪।

রান আউটে আফিফে থেমেছেন ১৫ রানে। তবে সাব্বির রহমান ছিলেন ইতিবাচক। অধিনায়ক মিরাজকে নিয়ে জুটিতে ৪৮ রান। ফরহাদ রেজার করা ১৩তম ওভারে অবশ্য জীবন পান দুজনেই। তবে তা কাজে লাগিয়ে খুব বেশি দূর যেতে পারেননি।

১৪তম ওভারে নাভিন উল হককে টানা ৩ চার মেরে মিরাজ আউট হন স্কুপ খেলতে গিয়ে। ২৩ বলে ৪ চারে তার ব্যাটে ৩০ রান। পরের ওভারে থিসারা পেরেরাকে দারুণ এক পুল শটে ছক্কা হাঁকান সাব্বির। পুরো ইনিংসে ওই একটাই বাউন্ডারি তার, আউট হন ফরহাদ রেজার বলে ৩৩ বলে ৩২ রান করে।

প্রথম দুই ম্যাচের মতো এদিনও সাবলীল এক ইনিংস খেলেন বেনি হাওয়েল। কামরুল ইসলাম রাব্বির করা ১৭তম ওভারেই আসে ২১ রান। ১৯তম ওভারে অফ স্টাম্পের বাইরের বলকে যেভাবে বোলার নাভিন উল হকের মাথার উপর দিয়ে চারে পরিণত করেন হাওয়েল তাতে মুগ্ধই হতে হবে।

একই ওভারে শামীম পাটোয়ারী (৯) রান আউট হলেও হাওয়েল হাঁকান আরও দুই চার। ওভারের শেষ বলে আগেই স্কুপ খেলার মানসিকতা হাওয়েলের, বোলার বুঝতে পেরে দিলেন ওয়াইড ইয়র্কার, সেটিকেই শর্ট থার্ড ম্যানের উপর দিয়ে বানালেন বাউন্ডারি।

শেষ ওভারে নাইম ইসলামও যোগ দেন ছক্কা হাঁকানোতে, ৪ বলে করেন ১৪ রান। হাওয়েল ২০ বলে ৪ চার ১ ছক্কায় অপরাজিত ৩৪ রানে। শেষ ৫ ওভারে আসে ৬২ রান। চট্টগ্রামের স্কোরবোর্ডে ৯ উইকেটে ১৯০।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ১৯০/৭ (২০), লুইস ২৫, জ্যাকস ১৭, আফিফ ১৫, সাব্বির ৩২, মিরাজ ৩০, হাওয়েল ৩৪*, শামীম ৯, নাইম ১৫; রাব্বি ৩-০-৩৫-২, নাভিন ৪-০-৪৮-১, ফরহাদ ৪-০-৩৫-১

খুলনা টাইগার্স ১৬৫/৯ (২০), তামিম ৯, ফ্লেচার ১৬ (রিটায়ার্ড হার্ট), রনি ৭, মেহেদী ৩০, মুশফিক ১১, ইয়াসির ৪০, সিকান্দার (ফ্লেচারের কনকাশন সাব) ২২, পেরেরা ০, ফরহাদ ৬, শুভ ১, কামরুল ১৪*, নাভিন ১*; নাসুম ৪-০-৩০-১, শরিফুল ৪-০-২৯-২, মিরাজ ৪-০-৪২-২, রাজা ৪-০-২০-২, হাওয়েল ৪-০-৩৭-১

ফলাফলঃ চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ২৫ রানে জয়ী

ম্যাচসেরাঃ বেনি হাওয়েল (চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বিপিএল অভিষেকে আলো কেড়ে সুজনের প্রশংসা কুড়ালেন শফিকুল

Read Next

আন্দ্রে ফ্লেচারের ইনজুরির আপডেট

Total
16
Share