ক্রাইস্টচার্চে আজ বাংলাদেশের দারুণ সকাল

ক্রাইস্টচার্চে আজ বাংলাদেশের দারুণ সকাল
Vinkmag ad

ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের প্রথম দিন ৩ সেশনে বাংলাদেশ বোলাররা নিতে পেরেছে মাত্র ১ উইকেট। তবে দ্বিতীয় দিন প্রথম সেশনেই ৪ উইকেট তুলে নিয়ে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে ফিরেছে টাইগাররা। যদিও ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে এখনো দলকে বড় সংগ্রহের পথেই রেখেছেন অধিনায়ক টম ল্যাথাম।

লাঞ্চের আগে কিউইদের স্কোরবোর্ডে ৫ উইকেটে ৪২৩ রান। ল্যাথাম ২১৫ রানে অপরাজিত আছেন। আগেরদিন ৯৯ রানে অপরাজিত থাকা ডেভন কনওয়ে সেঞ্চুরি তুলে ফেরেন ১০৯ রানে। টাইগারদের হয়ে আজ ২ উইকেট নেন এবাদত হোসেন, ১ টি শরিফুল ইসলামের।

দিনের প্রথম বলেই এবাদতকে চার মেরে সেঞ্চুরি ছুঁয়েছেন কনওয়ে। ক্যারিয়ারের ৯ম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে তৃতীয় সেঞ্চুরি। একই ওভারে এই বাঁহাতি চার মেরেছেন আরও একটি।

তবে সেঞ্চুরিকে খুব বেশি দূর টেনে নিতে পারেননি। শরিফুল ইসলামের বলে অফ সাইডে ঠেলে দিয়েই সিঙ্গেল নেওয়ার তোড়জোড় ডাবল সেঞ্চুরির পথে হাঁটা ল্যাথামের। প্রান্ত বদলের আগেই ফিল্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ সরাসরি থ্রো তে স্টাম্প ভেঙে দেন, রান আউট কনওয়ে। থেমেছেন ১৬৬ বলে ১২ চার ১ ছক্কায় ১০৯ রানে। তাতে ভাঙে ল্যাথাম-কনওয়ের ২১৫ রানের জুটি।

৪ নম্বরে নামা রস টেইলর খেলছেন ক্যারিয়ারের শেষ টেস্ট। ব্যাটিংয়ে নামার সময় মাঠের দর্শকরা দাঁড়িয়ে সম্মান জানায়, বাংলাদেশ দল দেয় গার্ড অব অনার।

১৮৬ রান নিয়ে দিন শুরু করা ল্যাথাম দিনের ১০ম ওভারে শরিফুলকে চার মেরে ১৯৮ রানে পৌঁছান, ওভারের শেষ বলে সিঙ্গেল নিয়ে ১৯৯ রানে ধরে রাখেন স্ট্রাইক।

তাসকিনের করা পরের ওভারের দ্বিতীয় বলেই কাভার দিয়ে চার মেরে ছুঁয়েছেন ডাবল সেঞ্চুরি। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানোর পথে তার লেগেছে ৩০৫ বল।

প্রতি ওভারেই রান তোলার মতো আলগা ডেলিভারি দিয়েছে বাংলাদেশী বোলাররা। তার মাঝেও বেশ কয়েকবার এজ হয়েছে ল্যাথাম-টেইলরের। তবে আগেরদিনের মতো এ দিনও সেগুলো ফিল্ডার নেই অমন সব জায়গা দিয়ে বের হয়েছে। দিনের ১৩তম ওভারেই দলীয় রান ৪০০ পেরোয় কিউইদের।

ল্যাথাম-টেইলর ৪৮ রানের জুটি ভাঙেন ইনিংসজুড়ে সবচেয়ে খরুচে এবাদত। প্রথম টেস্টে বাংলাদেশের জয়ের নায়ক এবাদতের লেংথ বলকে অন সাইডে পার করে দেওয়ার চেষ্টা করেন টেইলর (৩৯ বলে ২৮), তবে পরিণত হন স্কয়ার লেগে শরিফুলের সহজ ক্যাচে।

কয়েক বলের ব্যবধানে ফিরতে পারতেন ল্যাথামও, তাসকিনের শরীর তাক করা শর্ট অব লেংথ বল ব্যাটের কানায় লেগে ফিরতি ক্যাচ হয়। কিন্তু দৌড়ে গিয়েও তা লুফে নিতে পারেননি তাসকিন। তবে নতুন ব্যাটার হেনরি নিকোলসকে খালি হাতে ফেরান এবাদত। কট বিহাইন্ডের আবেদনে শুরুতে আম্পায়ার সাড়া না দিলেও রিভিউ নিয়ে সফল বাংলাদেশ।

৯ রানের ব্যবধানে ড্যারিল মিচেলকে ফেরান শরিফুল, উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন ৩ রান করে। ফলে ১২ রানের ব্যবধানে ৩ উইকেট হারিয়ে ৫ উইকেটে ৪২৩ রানে পরিণত হয় কিউইরা। মিচেলের আউটের পরই লাঞ্চ বিরতিতে যায় দুই দল। এই সেশনে ৭২ রান তুলতে ৪ উইকেট হারালো নিউজিল্যান্ড। ল্যাথাম ৩৪৩ বলে ৩২ চারে ২১৫ রানে অপরাজিত আছেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (২য় দিন, ১ম সেশন শেষে):

নিউজিল্যান্ড ৪২৩/৫ (১১২.৪), ল্যাথাম ২১৫*, ইয়াং ৫৪, কনওয়ে ১০৯, টেইলর ২৮, নিকোলস ০, মিচেল ৩; শরিফুল ২৪.৪-৮-৬৯-২, এবাদত ৩০-৩-১৪৩-২।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সিডনিতে জিতল না কেউ, কিন্তু দেখা গেল টেস্ট ক্রিকেটের সৌন্দর্য

Read Next

শ্রীলঙ্কা সফরে জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন

Total
1
Share