অজুহাত দিচ্ছেন না গিবসন, করলেন কনওয়ের প্রশংসা

অজুহাত দিচ্ছেন না গিবসন, করলেন কনওয়ের প্রশংসা
Vinkmag ad

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের প্রথম দিন নিশ্চিতভাবেই ভুলে যেতে চাইবে বাংলাদেশ। সবুজে মোড়ানো ঘাসের উইকেটে আগে বল করেও ব্যর্থ টাইগার বোলাররা। মাউন্ট মঙ্গানুই টেস্টে যে প্রতাপ দেখিয়েছিলো এবাদত হোসেন, তাসকিন আহমেদরা তার ছিটেফোঁটাও মেলেনি এ দিন। বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ ওটিস গিবসন বলছেন কিউইদের কাজটা সহজ করে দিয়েছে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ডেভন কনওয়ে।

যদিও দলের অধিনায়ক টম ল্যাথামই রেখেছেন বড় ভূমিকা। তার অপরাজিত ১৮৬ রানের সাথে কনওয়ের অপরাজিত ৯৯ রানে ১ উইকেটে ৩৪৯ রানের সংগ্রহ প্রথম দিন শেষে।

উদ্বোধনী জুটিতে উইল ইয়াং ও টম ল্যাথাম গড়েন রেকর্ড ১৪৮ রানের জুটি। ইয়াং ৫৪ রান করে ফিরে গেলেও, অবিচ্ছেদ্য ২০১ রানের জুটি ল্যাথাম-কনওয়ের।

বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ শুরুর আগে ৩ টেস্টের অভিজ্ঞতা ছিলো কনওয়ের। তাতেই ১ সেঞ্চুরির সাথে ২ ফিফটিতে ৬৩.১৭ গড়ে করেছেন ৩৭৯ রান। এই দারুণ ফর্ম টেনে আনেন বাংলাদেশের বিপক্ষে চলমান সিরিজেও। দল হারলেও মাউন্ট মঙ্গানুইতে প্রথম ইনিংসে হাঁকান সেঞ্চুরি (১২২)। এবার ক্রাইস্টচার্চেও প্রথম দিন শেষে অপরাজিত আছেন ৯৯ রানে।

নিজেদের সারাদিনের বোলিং মূল্যায়ণ করতে গিয়ে বাংলাদেশ পেস বোলিং কোচ কনওয়েকে দিলের বাড়তি কৃতিত্ব। সেঞ্চুরিকে ডাবল সেঞ্চুরিতে রূপ দেওয়ার পথে হাঁটা ল্যাথাম পেয়েছেন প্রাপ্য প্রশংসা।

সংবাদ সম্মেলনে গিবসন বলেন, ‘আমার মনে হয়, দুটি মিলিয়েই (ভালো ব্যাটিং, বাজে বোলিং)। ওরা অবশ্যই খুব ভালো খেলেছে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে, গত সপ্তাহে আমরা গোছানো বোলিংয়ের যে নজির দেখিয়েছিলাম গত সপ্তাহে, এবার তা পারিনি। ল্যাথাম খুব ভালো খেলেছে। সকালে আমাদের অনেক ভালো বল সে ছেড়েছে এবং আমাদেরকে বাধ্য করেছে তার শরীরে বল করতে।’

‘আর যেটা বললাম, গত সপ্তাহে যে চাপ সৃষ্টি করতে পেরেছিলাম, এবার তা করার মতো যথেষ্ট ভালো বল আমরা করতে পারিনি। আর কনওয়ে অবিশ্বাস্য ফর্মে আছে, তাই না? সে গিয়ে সবকিছুই সহজ করে তুলেছে।’

মাউন্ট মঙ্গানুইয়ের হ্যাগলি ওভাল বরাবরই স্বাগত জানায় পেসারদের। তবে এদিন টস জিতে বোলিং নিয়েও খুব একটা ফায়দা হয়নি বাংলাদেশের। ওটিস গিবসন অবশ্য অজুহাত না দিলেও বলছেন প্রত্যাশিত সাহায্য ছিলো না উইকেটে।

তার মতে, ‘আমার মনে হয়, উইকেটের সবুজ দেখলে যেমনটি মনে হয়, বল ততটা করেনি আজকে। যতটা প্রত্যাশা ছিল, ততটা করেছে বলে মনে হয় না আমাদের। তবে এটিকে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাতে চাই না। যতটা ভালো বোলিং করা উচিত ছিল, ততটা ভালোও আমরা করতে পারিনি।’

আগের টেস্টে বাজে হারের পর চলমান টেস্টে যেভাবে শুরুতে ঘুরে দাঁড়িয়েছে নিউজিল্যান্ড তা দিয়েই দলটির শক্তিমত্তা আবারও সামনে আনলেন গিবসন।

তিনি যোগ করেন, ‘আজকে আমরা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ওঠা-নামা দেখতে পেলাম। গত সপ্তাহে আমরা অবশ্যই উঁচুতে ছিলাম। তবে গত সপ্তাহের আবেগ ও শারীরিক সম্পৃক্ততার যে মাত্রা ছিল, সম্ভবত সেটির প্রভাব এখনও অনুভব করছি আমরা।’

‘নিউজিল্যান্ড গত সপ্তাহে নিশ্চয়ই চোট পেয়েছে এবং এখানে ঘুরে দাঁড়িয়ে দেখিয়েছে, কেন তারা বিশ্বের সেরা দলগুলির একটি। কেন তারা গদাটি (টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ট্রফি) পেয়েছে। তারা আরও বেশি নিবেদন দেখিয়েছে, বল অনেক ভালোভাবে ছেড়েছে এবং দেখিয়েছে, কেন তারা এখন গদা ধরে রেখেছে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ডাবল সেঞ্চুরির অপেক্ষায় ল্যাথাম, সেঞ্চুরির অপেক্ষায় কনওয়ে

Read Next

অতি উত্তেজনায় ওভার থ্রো হচ্ছে মানতে নারাজ গিবসন

Total
1
Share