এবাদত-তাসকিন জুটিতে দিশেহারা নিউজিল্যান্ড

featured photo updated v 2

আগের দিন শেষ বিকালে দ্রুত তিন উইকেট নিয়ে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিলেন এবাদত হোসেন। মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে কিউইদের ২য় ইনিংসে এবাদত ৪র্থ দিন শেষ করেছিলেন ৪ উইকেট নিয়ে। আজ দ্রুতই দেখা পান ৫ম উইকেটের। এবাদত-তাসকিনের সামনে দিশেহারা হয়ে স্বাগতিকরা অলআউট হয় ১৬৯ রানে। 

শেষ ইনিংসে বাংলাদেশের জয়ের জন্য দরকার তাই মাত্র ৪০ রান।

৫ উইকেটে ১৪৭ রান নিয়ে ৪র্থ দিন পার করেছিল নিউজিল্যান্ড। ৬ রান করে অপরাজিত ছিলেন রাচিন রবীন্দ্র, ৩৭ রান করে রস টেইলর।

বাংলাদেশের গলার কাটা হয়ে বেধে থাকা রস টেইলরকে দ্রুত ফিরিয়ে ৫ উইকেট পূর্ণ করেন এবাদত। ২০১৩ সালের পর এই প্রথম বাংলাদেশি কোন পেসার টেস্টে এক ইনিংসে ৫ উইকেট পেল। ৪০ রান করা টেইলরকে বোল্ড করেন এবাদত।

এবাদত থামেননি এখানেই, নিজের পরবর্তী ওভারেই ফেরান কাইল জেমিসনকে। জেমিসন রানের খাতা ই খুলতে পারেননি, দারুণ এক ক্যাচ নিয়ে জেমিসনকে সাজঘরের পথ দেখান শরিফুল ইসলাম।

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে বাংলাদেশি পেসার হিসাবে সেরা বোলিং ফিগার এখন এবাদত হোসেনের- ২১-৬-৪৬-৬! এর আগে সেরা ফিগার ছিল রুবেল হোসেনের- ২৯-১-১৬৬-৫। 

৫ বল বাদেই ৮ম উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। তাসকিন আহমেদ নিজের ২য় উইকেট তুলে নেন। উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ১৬ রান করা রাচিন রবীন্দ্র। পরবর্তী ওভারে তাসকিন নেন আরও এক উইকেট, লো ফুল টসে বোল্ড করেন টিম সাউদিকে।

তাসকিন আহমেদের ওভারে ২ টি চার মেরে কিছুটা হলেও টাইগার শিবিরে অস্বস্তি আনেন ট্রেন্ট বোল্ট। তবে দ্রুতই সে অস্বস্তি মিলিয়ে যায়। আক্রমণে এসে বোল্টকে ফেরান মেহেদী হাসান মিরাজ। ১৬৯ রানেই থামে কিউইরা। আগের দিনের সাথে মাত্র ২২ রান যোগ করে। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর (নিউজিল্যান্ডের ২ ইনিংস শেষে):

নিউজিল্যান্ড ১ম ইনিংসে ৩২৮/১০ (১০৮.১), ল্যাথাম ১, ইয়াং ৫২, কনওয়ে ১২২, টেইলর ৩১, নিকোলস ৭৫, ব্লান্ডেল ১১, রাচিন ৪, জেমিসন ৬, সাউদি ৬, ওয়েগনার ০, বোল্ট ৯*; শরিফুল ২৬-৭-৬৯-৩, এবাদত ১৮-৩-৭৫-১, মিরাজ ৩২-৯-৮৬-৩, মুমিনুল ৪.১-০-৬-২

বাংলাদেশ ১ম ইনিংসে ৪৫৮/১০ (১৭৬.২), সাদমান ২২, জয় ৭৮, শান্ত ৬৪, মুমিনুল ৮৮, মুশফিক ১২, লিটন ৮৬, রাব্বি ২৬, মিরাজ ৪৭, তাসকিন ৫, শরিফুল ৭, এবাদত ০*; সাউদি ৩৮-৪-১১৪-২, বোল্ট ৩৫.২-১১-৮৫-৪, জেমিসন ৩৫-১১-৭৮-১, ওয়াগনার ৪০-৯-১০১-৩

নিউজিল্যান্ড ২য় ইনিংসে ১৬৯/১০ (৭৩.৪), ল্যাথাম ১৪, ইয়াং ৬৯, কনওয়ে ১৩, টেইলর ৪০, নিকোলস ০, ব্লান্ডেল ০, রবীন্দ্র ১৬, জেমিসন ০, সাউদি ০, ওয়াগনার ০*, বোল্ট ৮; তাসকিন ১৪-৩-৩৬-৩, এবাদত ২১-৬-৪৬-৬, মিরাজ ২২.৪-৫-৪৩-১

জয়ের জন্য শেষ ইনিংসে বাংলাদেশের দরকার ৪০ রান।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

শ্রীলঙ্কার অন্তর্বর্তীকালীন হেড কোচ রত্নায়েকে, ব্যাটিং কোচ হলেন পেইরিস

Read Next

বাংলাদেশের ইতিহাস গড়া জয়, ভাঙল যত রেকর্ড

Total
15
Share