সোশ্যাল মিডিয়া থাকলে এতো দূর আসতো না পঞ্চপান্ডব

মাশরাফি বিন মর্তুজা

বাংলাদেশ ক্রিকেটের পঞ্চপান্ডব বলা হয় সাকিব আল হাসান, মাশরাফি বিন মর্তুজা, তামিম ইকবাল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিমকে। যাদের অর্জনকে এখনো ছাপিয়ে যেতে পারেনি কেউই। টাইগারদের সাবেক সফল অধিনায়ক মাশরাফি বলছেন তাদের ক্যারিয়ারের শুরুতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সক্রিয় ছিলো না বলেই তারা এতো দূর যেতে পেরেছেন। তার মতে এখনকার প্রজন্মের পারফরম্যান্সে প্রভাব ফেলছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।

দেশের ক্রিকেটের বিগত কয়েক বছরের, একটু জোর দিয়ে বললে গত এক যুগের দলীয় সাফল্যে সিংহভাগ অবদান পঞ্চপান্ডবেরই। তবে সময়ের বিবর্তনে তারা আছেন ক্যারিয়ারের পড়ন্ত বেলাতেই। মাশরাফি তো আক্ষরিক অর্থে দৃশ্যপটেই নেই, টেস্টে অঘোষিত অবসর ২০০৯ সালে, টি-টোয়েন্টিতে অবসর ২০১৭ সালে। অন্যদিকে ওয়ানডে ফরম্যাটকে বিদায় না বললেও গত বছর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অধিনায়কত্ব ছাড়া সিরিজের পর ডাক পাননি একবারও।

চোটের কারণে অনিয়মিত তামিম, ছুটি, বিশ্রামে অনিয়মিত সাকিবও। মাহমুদউল্লাহ বিদায় বলেছে টেস্ট ক্রিকেটকে, মুশফিককে বিশ্রাম দেওয়া শুরু হয়েছে টি-টোয়েন্টি থেকে। ফলে বলা যায় পঞ্চপান্ডব অধ্যায় শেষের পথেই। কিন্তু তাদের জায়গা নিতে পারছেনা নতুনরা।

আজ (২ জানুয়ারি) একটি কাবাডি টুর্নামেন্টে গিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মাশরাফি বলছেন তরুণদের ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সমালোচনা। তাদের সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থাকলে এতো দূর আসা সম্ভব হতো বলেও মত দেশের অন্যতম সফল অধিনায়কের।

তিনি বলেন, ‘যে পাঁচ জনের (পঞ্চপাণ্ডব) কথা বলছেন, আমরা খুবই সৌভাগ্যবান যে আমাদের সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ছিল না। আপনি যদি আমাদের শুরুর দিকের ক্যারিয়ার দেখেন, তখন যদি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থাকতো আমরা এতো দূর খেলতে পারতাম না…এটা সমস্যা। যখন আপনার তরুণ খেলোয়াড়েরা আসছে তাদের উপর প্রভাবটা পড়ছে এটা ধরে রাখা সহজ না।’

‘একটা খেলোয়াড় যখন পারফর্ম করতে পারছে না, তখন চারদিক থেকে যদি আক্রমণ করা হয় তখন কিন্তু মানসিক ভাবে ভেঙে পড়ে। তো এখানে আমাদের সমর্থনটা খুব প্রয়োজন। তামিম দেখেন, আমাকে দেখেন, সাকিব সম্ভবত আলাদা, মুশফিক দেখেন, তারা কিন্তু শুরুর ক্যারিয়ারে বাদ পড়েছে। হয়তো তামিম পড়েনি…তবে আজকের তামিম ইকবাল ছিল না। সাকিব ছাড়া সবাই কষ্ট করে একটা পর্যায়ে এসেছে।’

‘তো এখন যেটা হয়, আসলেই সবাই পারফরম্যান্স চায়। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট এত সহজ না যে আপনি এসেই পারফরম্যান্স পাবেন বা হবে। এটা পুরোটাই ধৈর্য্যের ব্যাপার। তার আগে আপনাকে দেখতে হবে সে কতটা তৈরি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্য। এই দুইটা ভারসাম্য করা খুব জরুরী।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ওয়েবসাইট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে ঢেলে সাজাচ্ছে বিসিবি

Read Next

বাংলাদেশের চ্যালেঞ্জ সামলানো এক সেশন

Total
16
Share