মিঠুন-সৌম্যের ব্যাটে জয়ের পথে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন

মিঠুন-সৌম্যের ব্যাটে জয়ের পথে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন
Vinkmag ad

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগ (বিসিএল) ২০২১-২২ এর দ্বিতীয় রাউন্ডে জয়ের দ্বারপ্রান্তে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন। ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোনের দেওয়া ১৯৯ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে তারা তৃতীয় দিন শেষ করেছে ১ উইকেটে ৮৭ রান তুলে।

প্রথম ইনিংসে ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোনের ২৪৫ রানের জবাবে ৯ উইকেটে ২২৩ রান নিয়ে গতকাল দ্বিতীয় দিন শেষ করেছিলো ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন। তবে আজ তৃতীয় দিন খুব বেশি দূর যাওয়া সম্ভব হয়নি, অল আউট হয়েছে ২২৭ রানে।

১৮ রানের লিড নিয়ে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামে ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোন। তবে খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি দলটির টপ, মিডল অর্ডার। দিনের প্রথম সেশনেই ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের পেসারদের তোপে এলোমেলো হতে হয়।

শুরুতে পেসার আবু হায়দার রনি ইসলামী ব্যাংকের অধিনায়ক ইমরুল কায়েসকে (৫) এলবিডব্লিউ করেন। দুই ওভার পর তার শিকার শাদাহাত হোসেন দিপু। বাঁহাতি পেসারের ইয়র্কারে পা সরাতে পারেননি দিপু।

আরেকপ্রান্তে থাকা ডানহাতি পেসার রবিউল জুটি বেঁধে দারুণ বোলিং করেন। নতুন ব্যাটসম্যান ইরফান শুক্কুরকে থিতু হতে দেননি। ভেতরে ঢোকানো এক বলে বোল্ড করেন ফেরান তাকে। এরপর আফিফ ও আশরাফুলের উইকেট নেন মৃত্যুঞ্জয়। প্রথম ইনিংসে শূন্য করা আফিফ এবার ৫ রানে ক্যাচ দেন মিড উইকেটে।

আশরাফুল কিছুক্ষণ উইকেটে টিকে ছিলেন। কিন্তু পরপর দুই চার মারার পরও নিজেকে সামলাতে পারেননি। মৃত্যুঞ্জয়ের শর্ট বল পুল করতে গিয়ে বল উইকেটে টেনে বোল্ড হন ১৬ রানে। মধ্যাহ্ন বিরতিতে যাওয়ার আগে সৌম্যও উইকেটের খাতা খোলেন। তার শিকার নাদিফ চৌধুরী।

৫১ রানে ৬ উইকেট হারানো ইসলামী ব্যাংকের তখন শতরানের আগে অলআউট হয়ে যাওয়ার উপক্রম। কিন্তু তাদের মান বাঁচান নাইম হাসান ও প্রীতম কুমার। সপ্তম উইকেটে তাদের ১০৩ রানের জুটি। কিন্তু চা-বিরতিতে যাওয়ার আগে আবার ছন্দপতন, মাত্র ৫ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ইনিংস গুটিয়ে যায় ১৮০ রানে। ৪ উইকেটই নেন হাসান মুরাদ।

৫৬ বলে প্রীতমের ব্যাতে ৫৪, নাইম হাসানের ব্যাটে ৮৮ বলে ৬৮ রান। ৩৭ রানে ৪ উইকেট নিয়েছেন হাসান মুরাদ। ২টি করে উইকেট পেয়েছেন রনি ও মৃত্যুঞ্জয়।

১৯৯ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ২৫ রানে বিদায় নেন ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের ওপেনার মিজানুর রহমান (১২)। এরপর দিনের বাকি অংশে আর কোনো উইকেট হারায়নি ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন। যদিও ৩৩ রানে অপরাজিত থাকা সৌম্য সরকার আউট হতে পারতেন অন্তত দুইবার। স্লিপে তার সহজ ক্যাচ মিস করেন ইমরুল কায়েস, লং অনে আসাদুজ্জামান পায়েল।

অন্যদিকে ৪২ রানে অপরাজিত আছেন মোহাম্মদ মিঠুন। দুজনের অবিচ্ছেদ্য জুটি ৬২ রানের, জয়ের জন্য শেষ দিন প্রয়োজন হাতে ৯ উইকেট নিয়ে ১২২ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (৩য় দিন শেষে):

ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোন ১ম ইনিংসে ২৪৫/১০ (৮৩.৫), ইমরুল ৩২, আশরাফুল ০, দিপু ৭২, শুক্কুর ১৪, ধ্রুব ০, নাদিফ ২৬, প্রীতম ৩০, নাইম ৪০*, এনামুল ১, তানভীর ২০, পায়েল ০; রবিউল ১৬-৭-২৯-২, রনি ২০.৫-৫-৯৩-৫, মুরাদ ২১-৮-৪৭-৩

ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন ১ম ইনিংসে ২২৭/১০ (৮৯.৩), মিজানুর ২, মিঠুন ২, সৌম্য ২, ইমন ১৩, তাইবুর ৭৬, শুভাগত ৩, জাকের ৯২, রনি ০, মৃত্যুঞ্জয় ৮, রবিউল ২৬, মুরাদ ৩*; এনামুল ১৫-১-৫৩-২, পায়েল ১৬-৫-৪৯-৩, নাইম ৩১-১১-৭০-২, তানভীর ২১.৩-৪-৪২-৩

ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোন ২য় ইনিংসে ১৮০/১০ (৪৬.৫), ইমরুল ৫, আশরাফুল ১৬, দিপু ০, শুক্কুর ৬, ধ্রুব ৫, নাদিফ ১০, প্রীতম ৫৪, নাইম ৬৮, তানভীর ০, এনামুল ৯*, পায়েল ০; রবিউল ১২-১-৩৬-১, রনি ৮-১-২৬-২, মৃত্যুঞ্জয় ৮-১-৩৯-২, সৌম্য ৮-৩-২৫-১, মুরাদ ৬.৫-০-৩৭-৪

ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন ২য় ইনিংসে ৮৭/১ (২৩), মিজানুর ১২, মিঠুন ৪২*, সৌম্য ৩৩*; এনামুল ৫-০-৩৮-১

জয়ের জন্য ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের দরকার আরও ১১২ রান।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বিশ্বকাপের আগে টাইগার যুবাদের পাখির চোখ এশিয়া কাপে

Read Next

কনুইয়ে অস্ত্রোপচার, লম্বা সময়ের জন্য মাঠের বাইরে আর্চার

Total
10
Share