করাচিতে সারা রাত ধরে ঘুমাতে পারেননি পুরানরা

বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ, 'বাউন্স ব্যাক' এর সুযোগ বলছেন পুরান
Vinkmag ad

দুই দফায় কয়েকজন সদস্যের কোভিড পজিটিভ হওয়ায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল তাদের পাকিস্তান সফর সংক্ষিপ্ত করতে বাধ্য হয়। শেষ ধাপে ক্রিকেটার শাই হোপ, আকিল হোসেন ও জাস্টিন গ্রিভসের সাথে দলের সহকারি কোচ রডি এস্টউইক এবং চিকিৎসক আকশাই মানিসিংহ করোনা আক্রান্ত হন। টি-টোয়েন্টি সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করে পাকিস্তান।

শেষ ২ টি-টোয়েন্টিতে সাহসিকতার সাথে লড়াই করার জন্য দলের বাকি সদস্যদের বাহবা দেন বর্তমান অধিনায়ক নিকোলাস পুরান। সিরিজ শুরুর আগে পাকিস্তানে এসেই শেলডন কোটরেল, রোস্টন চেজ ও কাইল মেয়ার্স করোনায় আক্রান্ত হন।

বৃহস্পতিবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বাকি ১৫ জন খেলোয়াড় ও ৬ জন কর্মচারির কোভিড পরীক্ষা করা হয়। প্রত্যেকের রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর ক্যারিবিয়ানরা ৩য় টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি খেলে। করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়া এবং বড়দিনের কথা ভেবে দুই দলের মধ্যকার ওয়ানডে সিরিজ স্থগিত করা হয়। আগামী বছরের জুনে এ ওয়ানডে সিরিজটি হবে।

শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ না জিততে পারলেও দলের খেলোয়াড়দের চেষ্টায় মুগ্ধ পুরান। শেষ ম্যাচে খেলা নিয়েও নিজেদের মধ্যে সংশয় ছিল বলে জানান পুরান।

‘সারা রাত ধরে দলের সদস্যের অধিকাংশ ঘুমাতে পারেনি। আমি সবাইকে নিয়ে গর্বিত। বৃহস্পতিবার ম্যাচটি খেলার জন্য খেলোয়াড়রা সর্বাত্মক চেষ্টা করেছে। সারাদিন ধরে আমাদের মধ্যে চিন্তা ছিল আমাদের খেলা উচিত হচ্ছে কীনা। বেশিরভাহই ইতিবাচক থেকে সুযোগটি কাজে লাগিয়েছে। সবাই ভালো লড়াই করেছে। সবাইকে সাধুবাদ জানাই,’ পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩য় ম্যাচে ৭ উইকেটে হারার পর জানান পুরান।

প্রথমে ব্যাট করে ২০ ওভারে ২০৭ রান করলেও ম্যাচ জিততে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। মোহাম্মদ রিজওয়ান ও বাবর আজমের হাফ সেঞ্চুরিতে ৭ বল বাকি থাকতে জয় পেয়ে যায় পাকিস্তান।

‘শেষ ২ ওভারে আমরা মোমেন্টাম হারিয়ে ফেলি। পাকিস্তান ভালো বোলিং করেছিল। আমরা ১৫ রান কম করেছিলাম,’ বলেন পুরান।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

ইংল্যান্ডকে ফলো অন না করিয়ে জয়ের পথে অস্ট্রেলিয়া

Read Next

লখনৌ’র মেন্টর হলেন গৌতম গম্ভীর

Total
2
Share