সালমা-জাহানারাদের মাথায় আগেই বিজয় দিবস গেঁথে দিয়েছিলো বিসিবি

দুই বছর পর ওয়ানডে খেলতে নেমেই জয় তুলে নিলো জাহানারা-সালমারা
Vinkmag ad

প্রথম বারের মতো নারী ওয়ানডে বিশ্বকাপে খেলবে বাংলাদেশ। নারী দলের পেসার জাহানারা আলম বলছেন বাছাই পর্ব খেলতে যাওয়ার আগেই বিজয় দিবস ও স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তির কথা মনে করিয়ে দিয়েছিলো টিম ম্যানেজমেন্ট। আর এমন কিছুই বাড়তি অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। আগামী ৫ বছরে বাংলাদেশ নারী দলকে নিয়মিত ৪-৫ নম্বর র‍্যাঙ্কিংয়ে দেখতে চান এই তারকা পেসার।

জিম্বাবুয়েতে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে দারুণ শুরু পেয়েছিলো টাগ্রেসরা। শক্তিশালী পাকিস্তানকে ৩ উইকেটে হারানোর পর ২৭০ রানের বড় জয় তুলে নেয় যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে। যদিও পরের ম্যাচেই হেরেছে থাইল্যান্ডের কাছে। কিন্তু বাছাই পর্ব উতরে বিশ্বকাপ টিকিট কাটার পথে এগিয়েই ছিলো নিগার সুলতানা জ্যোতির দল।

কিন্তু জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ ম্যাচের আগেই করোনা হানা দিলে বাতিল হয় বাছাই পর্বই। সেক্ষেত্রে বর্তমান র‍্যাঙ্কিং বিবেচনায় ৫ নম্বরে থাকা বাংলাদেশ নারী দল পেয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুষ্ঠিতব্য নারী বিশ্বকাপের সবুজ সংকেত।

কিন্তু এমন অর্জন নিয়ে দেশে ফিরেই ভোগান্তিতে জাহানারা আলমরা। মূলত দক্ষিণ আফ্রিকা অঞ্চল থেকে আসায় এমনিতেই বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন ঢুকে পড়ে। এরপর সেখানে হানা দেয় ওমিক্রণ, মোট ৩ নারী ক্রিকেটার আক্রান্ত হন করোনার নতুন এই ভ্যারিয়েন্টে। ফলে পুরো দলের কোয়ারেন্টাইন সময়সীমা বেড়ে যায়।

অবশেষে এমন সব কঠিন সময় পার করে গতকাল (১৫ ডিসেম্বর) হোটেল ছেড়ে নিজ নিজ বাসায় ফিরে যায় নারী ক্রিকেটাররা। অবশ্য আক্রান্ট ঐ তিনজনের অপেক্ষা বাড়ছে আরও কিছুটা।

আজ (১৬ ডিসেম্বর) স্বাধীনতার ৫০তম বিজয় দিবস উদযাপন ও প্রধানমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে মিরপুরে আসেন নারী দলের সদস্যরা। সেখানেই জাহানারা সংবাদ মাধ্যমের সাথে কথা বলেন নিজেদের অনুভূতি ও স্বপ্ন নিয়ে।

বাছাই পর্ব খেলতে যাওয়ার আগেই বিজয় দিবসের কথা মনে করে দিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট উল্লেখ করে জাহানারা বলেন, ‘ক্রিকেট বোর্ড থেকে আমাদের একটা কথা বলে দেওয়া হয়েছিল, টুর্নামেন্ট শুরুর আগে-মাথায় রেখো ১৬ ডিসেম্বর সামনে এবং বিজয়ের ৫০ বছর পূর্তি কিন্তু। এটা মাথায় রেখে তোমরা খেলো। এই স্পৃহা কিন্তু অন্যরকম একটা শক্তি দেয়। ভাগ্যক্রমে আমরা প্রয়োগ ভালো করতে পেরেছি যার জন্য ফল ভালো এসেছে।’

বাংলাদেশ নারী দলের অন্যতম বড় অর্জন ২০১৮ সালের এশিয়া কাপ জয়। যেখানে সাফল্যের মুকুট ভারী করা পুরুষ দলই এখনো এই শিরোপা ঘরে তুলতে পারেনি। স্বাধীনতার ৫০ বছরে এ অর্জনকে বড় কিছু মানছেন জাহানারাও, বিশেষ করে নারী ক্রিকেটের অগ্রগতিতে বেশ ভালো ভূমিকা রেখেছে বলে তার মত।

ডানহাতি এই পেসারা বলেন, ‘এশিয়া কাপ জয় তো মেয়েদের ক্রিকেটের প্ল্যাটফর্মটাই পরিবর্তন করে দিয়েছে। কারণ এটার মাধ্যমে কিন্তু আমাদের সিনারিওতে পরিবর্তন এসেছে। অনেক খেলোয়াড় পাইপলাইনে পাচ্ছি। পরিবারের সাপোর্ট আসছে অনেক এবং আর্থিক দিক থেকেও লাভবান হচ্ছি। এমনকি আমরা আপনাদের মিডিয়া থেকেও একটু বেশি কাভারেজ পাচ্ছি। তো সব দিক থেকেই পজিটিভ বলা যায়।’

স্বাধীনতার পরবর্তী ৫০ বছরে নারী ক্রিকেটকে কোথায় দেখতে চান এমন প্রশ্নের জবাবে জাহানারা অবশ্য অত দূর না ভেবে নিকট ভবিষ্যত নিয়েই স্বপ্ন দেখলেন। আগামী ৫ বছরে বাংলাদেশ নারী দলকে র‍্যাঙ্কিংয়ে নিয়মিত ৪-৫ (বর্তমানে ৫) নম্বরে দেখতে চান।

জাহানারা যোগ করেন, ‘আগামী ৫ বছর যদি চিন্তা করি আমাদের দলটাকে র‌্যাঙ্কিংয়ের চার-পাঁচে দেখতে চাই। যদিও এখন আমরা পাঁচে এসেছি কারণ আমাদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স ভালো। সামনে কিন্তু আমাদের অনেক প্রতিযোগিতা আছে। বিশ্বের বড় বড় দলের বিপক্ষে খেলতে যাচ্ছি।’

‘আগে আমরা আইসিসির ক্যালেন্ডারে ছিলাম না। সেটি যেহেতু ধরতে পারছি তাতে টানা প্রতিযোগিতা থাকবে। স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে যেমন রক্ষা করা কঠিন। ঠিক তেমন আমরা এখন বিশ্বকাপ খেলব আমরা এখন প্রচুর আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলবে এবং এখন জেতা মূল লক্ষ্য হয়ে দাঁড়াবে। তো আমরা এটা রক্ষা করার চেষ্টা করব।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

বিজয় দিবসে আতহার আলির ব্যাটে জিতল শহীদ মুশতাক একাদশ

Read Next

পরিকল্পনা মতো না এগোলেও দেশের ক্রিকেটে অর্জনের খাতা ভারী বলছেন আকরাম

Total
1
Share