মুমিনুল বলছেন ধানক্ষেতে খেললেও ভালো করা উচিৎ

তরুণদের পারফরম্যান্সে উচ্ছ্বসিত অধিনায়ক মুমিনুল
Vinkmag ad

টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশ বিবর্ণ সময় কাটাচ্ছে লম্বা সময় ধরে। ঘরের মাঠ হোক কিংবা বাইরের মাঠ, ফ্ল্যাট উইকেট কিংবা অতি স্পিন নর্ভরতা কোনো কিছুতেই যেনো মিলছেন সমাধান। আর তাতেই ক্রিকেটারদের পেশাদারিত্ব নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। টাইগার কাপ্তান মুমিনুল হক বলছেন কন্ডিশন কখনো অজুহাত হতে পারেনা, পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে ধানক্ষেতে খেলতে দিলেও ভালো করা উচিৎ তার মতে। দলের ক্রিকেটারদের কাছ থেকে আরেকটু বেশি পেশাদারিত্ব আশা করেন টাইগার দলপতি।

শেষ ১০ টেস্টে বাংলাদেশের জয় মাত্র ২ টি, ড্র করেছে মাত্র একটিতে। এই ১০ ম্যাচ বাংলাদেশ খেলেছে ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কার মতো উপমহাদেশের কন্ডিশনে। আরেকটু পেছনে ফিরলে যোগ হবে নিউজিল্যান্ড সফরও। সেক্ষেত্রে সর্বশেষ ১৩ ম্যাচেও সাফল্য ঐ ২ জয় এবং ১ ড্র। হারতে হয়েছে ঘরে মাঠে আফগানিস্তানের বিপক্ষে। ধবল ধোলাই হতে হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের কিছুটা খর্ব শক্তির দলের বিপক্ষেও।

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সর্বশেষ চক্রে বাংলাদেশ পয়েন্ট টেবিলে ছিলো তলানিতে। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে একমাত্র দল হিসেবে পায়নি কোনো জয়। এই সময়ে পাওয়া দুইটি জয়ই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে, অন্তর্ভূক্ত নয় টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের। মোটা দাগে সাফল্য কেবল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পাল্লেকেলে টেস্ট ড্র।

এবারের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ বাংলাদেশ শুরু করেছে পাকিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠে ২ ম্যাচ টেস্ট সিরিজ দিয়ে। চট্টগ্রামে প্রথম ম্যাচে হারতে হয়েছে ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে। আগামীকাল (৪ ডিসেম্বর) মিরপুরে মাঠে গড়াচ্ছে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট।

তার আগে বাংলাদেশের ধারাবাহিক ব্যর্থ পারফরম্যান্স নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। কোনো কন্ডিশনেই ভালো করতে না পারার পেছনে কি পেশাদারিত্বের অভাব রয়েছে?

কাপ্তান মুমিনুল বলেন, ‘পেশাদার খেলোয়াড় হিসেবে উইকেট কিংবা এগুলো নিয়ে অজুহাত দেওয়া কাম্য নয়। এটাতে আমি নিজেও একমত নই। যদি ধানক্ষেতেও খেলতে দেওয়া হয়, পেশাদার খেলোয়াড় হিসেবে সেখানেও আপনাকে ভালো খেলতে হবে। আমার মনে হয়, এসব নিয়ে অজুহাত না দিয়ে জেতার জন্য আরেকটু পেশাদারিত্ব দেখালেই ভালো হয়।’

এমন উত্তরের পরই সম্পূরক প্রশ্ন তবে কি বাংলাদেশ দল পেশাদারিত্বের দিক থেকে সে জায়গাটায় পৌঁছাতে পারেনি? এবার অবশ্য মুমিনুল বলছেন দলের ক্রিকেটাররা পেশাদারিত্ব দেখানোর প্রবল চেষ্টা করছেন, কেউ সফল হচ্ছেন তো কেউ সফল হচ্ছেন না।

টাইগার দলপতির ভাষ্য, ‘আমার তেমন মনে হয় না। অবশ্যই পৌঁছেছে। পেশাদারিত্বের বিষয়টা তো কেবল উইকেট নয়, অন্য সবকিছু মিলেই কিন্তু পেশাদারিত্ব। নিয়মানুবর্তিতার বিষয় আছে, ভালোমতো অনুশীলন করা, নিয়মমাফিক কাজ করা প্রতিপক্ষের শক্তি এবং দুর্বলতার জায়গা বুঝে অনুশীলন করা, এগুলো সবই কিন্তু পেশাদারিত্বের ভেতরেই থাকে। তাই আমার মনে হয়, আপনি যেমন বলছেন, ওরকম কিছুই নয়। সবাই পেশাদারিত্ব দেখাচ্ছে, কেউ হয়তো সফল হচ্ছে, কেউ হচ্ছে না।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

টেস্ট দলে নাইম শেখ, ঘরোয়া লিগের পারফরম্যান্স অবমূল্যায়ণ?

Read Next

উইন্ডিজকে ধবলধোলাই করল শ্রীলঙ্কা

Total
1
Share