কন্ডিশনই কেবল পাকিস্তানের দেওয়াল, বাবর বলছেন খেলতে হবে হার্ড ক্রিকেট

বাবরের ব্যাটে বড় লিডের স্বপ্ন দেখছে পাকিস্তান

৩-০ ব্যবধানে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জেতার পরেও টেস্ট সিরিজের আগে বাংলাদেশকে হালকাভাবে নিচ্ছে না পাকিস্তান। মূলত বাংলাদেশ নিজেদের কন্ডিশনে খেলছে বলেই পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজমের এমন ভাবনা। টেস্ট সিরিজে সাফল্য পেতে কেবল ধৈর্যের কোনো বিকল্প নেই বলছেন বাবর।

বর্তমানে টেস্টে ৫ নম্বর দল পাকিস্তান, বাংলাদেশ আছে ৯ নম্বরে। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের (২০২১-২০২৩) দ্বিতীয় চক্রে ইতোমধ্যে নামও লিখিয়েছে বাবর আজমের দল। দুই ম্যাচে এক জয় ও এক পরাজয়ে বর্তমানে অবস্থান ৩ নম্বরে। যেখানে বাংলাদেশ আগামীকাল (২৬ নভেম্বর) থেকে শুরু হতে যাওয়া টেস্ট দিয়ে এবারের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে যাত্রা শুরু করবে।

শক্তিমত্তায় এগিয়ে থাকার পরও বাংলাদেশকে সমীহ করার পেছনে বাবর আজম কন্ডিশনকেই টেনে আনছেন। যদিও চলতি বছর জানুয়ারিতে ঘরের মাঠে বাংলাদেশ ২-০ ব্যবধানে টেস্ট সিরিজ হারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে।

আজ ম্যাচ পূর্ববর্তী দিনের সংবাদ সম্মেলনে বাবর বলেন, ‘পার্থক্য এখানে কন্ডিশন। ওদের ঘরের মাঠ, নিজেদের কন্ডিশন। ওদেরকে কখনোই হালকাভাবে নেওয়া যাবে না। কোনো দলকেই আসলে হালকা করে নেওয়ার সুযোগ নেই। ওদের কয়েকজন ক্রিকেটার নেই, দলটা তরুণ। তবে যারা আছে, এই কন্ডিশনেই তো খেলে। কাজটা তাই কঠিনই হবে (আমাদের জন্য)। কন্ডিশন বুঝতে তাই একটু সময় লাগে, বুঝতে হয় কিছুটা। ওরা অবশ্যই আমাদের কঠিন সময় দিতে পারে।’

‘কন্ডিশনই তাই মূল পার্থক্য আমার মতে। এছাড়া খুব একটা কিছু আর নেই। টেস্ট ম্যাচে ধৈর্য রাখতে হবে। যতটা ধৈর্য আমরা ধরতে পারব, ধীরস্থির রাখতে পারব নিজেদের, সিদ্ধান্ত ঠিকঠাক নিতে পারব, তা পারলে ফল আমাদের পক্ষে আসবে।’

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর বাংলাদেশের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ। টানা টি-টোয়েন্টি খেলার পর এবার টেস্ট ফরম্যাটে মুখোমুখি হওয়ার পালা। সীমিত ওভারের ক্রিকেট থেকে হুট করে টেস্ট খেলার ক্ষেত্রে মানিয়ে নেওয়ার একটা বিষয় থাকে। এ ক্ষেত্রে পাওয়া যায়নি খুব একটা সময়ও। মাত্র ৩ দিনের ব্যবধানে টি-টোয়েন্টি ও টেস্ট খেলাকে কঠিন মানছেন পাকিস্তান দলপতি। তবে বর্তমান ক্রিকেটীয় বাস্তবতা বিবেচনায় মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করাকেই শ্রেয় বলছেন বাবর।

তার মতে, ‘সহজ নয় (টি-টোয়েন্টি থেকে টেস্টে মনোযোগ)। মাঝখানে সময় ছিল খুবই কম। একদিন ছিল ভ্রমণ, একদিন প্রপার অনুশীলন হয়েছে, আর আজকে হবে। এর মধ্যেই নিজেদের মানিয়ে নিতে হবে। সময় কিছুটা কম ছিল। তবে পেশাদার হিসেবে যতটা দ্রুত সম্ভব সুইচ অন করতে হবে এবং টেস্টের আবহে ঢুকতে হবে।’

‘কারণ, পিঠেপিঠি প্রচুর ক্রিকেট হচ্ছে। কারণ সময় কম, কোভিড চলছে। পেশাদার হিসেবে যতটা দ্রুত এসব শিখতে পারব ও মানিয়ে নিতে পারব, ততই ভালো। আর ধৈর্য রাখতেই হবে। আড়াই মাস ধরে টানা সাদা বলের ক্রিকেট থেলে এখন দ্রুত টেস্ট খেলতে হবে। ধৈর্য তাই বেশি রাখতে হবে।’

সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, তাসকিন আহমেদের মতো গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটাড় ছাড়াই মাঠে নামছে বাংলাদেশ। তবে বাকিদেরও হালকাভাবে নিতে নারাজ পাকিস্তান অধিনায়ক। হার্ড ক্রিকেট খেলাকেই নিজেদের পরিকল্পনা বলছেন।

বাবর বলেন, ‘ওদের কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটার নেই, দলটা খুব অভিজ্ঞ নয়। দলে আসা-যাওয়া করছে, এরকম ক্রিকেটার আছে বেশ কজন। তবে ওদেরকে সহজভাবে নেওয়া যাবে না। আমাদের পরিকল্পনা হলো হার্ড ক্রিকেট খেলার।’

চট্টগ্রাম থেকে, ক্রিকেট৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

নিজের চাপ নিজে সামলে মেন্টালি ফ্রেশ আছেন লিটন

Read Next

চট্টগ্রাম টেস্টে টাইগার স্কোয়াডে খালেদ-শহিদুল

Total
19
Share