‘জয়ে’ মোড়ানো অনুশীলনে টেস্ট মিশন শুরু বাংলাদেশের

'জয়ে' মোড়ানো অনুশীলনে টেস্ট মিশন শুরু বাংলাদেশের

বাংলাদেশ দলের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর টিম ডিরেক্টর হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় খালেদ মাহমুদ সুজনকে। তার কাজ দলের সবকিছু ঠিক পথে আছে কিনা তা তদারকি করা। এর ফলে কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর সাথে তার তেতো সম্পর্ক কতটা খারাপের দিকে যায় সেটাই ছিলো দেখার বিষয়। যদিও চলতি পাকিস্তান সিরিজে সুজনের তৎপরতা ছিলো চোখে পড়ার মতো।

ডোমিঙ্গোর সাথে কোনো নির্দিষ্ট বিষয় নিয়ে আলাপ আলোচনাও সারছেন নিয়মিত। এমন আরও একটি দৃশ্য আজ চোখে পড়েছে চট্টগ্রামে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে।

পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের স্কোয়াডে জায়গা পাওয়া মাহমুদুল হাসান জয়কে নিয়ে দুজনে মাঠের এক পাশে দাঁড়িয়ে বেশ কিছুক্ষণ আলাপ করেন। দুজনে মিলেই জয়কে কিছু একটা পরিষ্কার করে দিতে চাইছিলেন। শেষে সুজন পিঠ চাপড়ে দিয়ে উৎসাহ জোগালেন ও নেটে পাঠালেন।

যুব বিশ্বকাপ জয়ী দলের এই ব্যাটারকে নিয়ে বাড়তি কাজ করার তাড়না কেবল ডোমিঙ্গো-সুজনের নয়। পুরো কোচিং স্টাফই যেন উঠেপড়ে লাগে তাকে ম্যাচের জন্য প্রস্তুত করতে। এতে আভাস মিলে তার একাদশে থাকার সম্ভাবনা বেশ প্রবল।

বাংলাদেশ দলের আজকের অনুশীলনের প্রায় পুরো সময়টাই ব্যাটিং করেছেন এই ডানহাতি। শুরুতে তাকে মাঠের দক্ষিণ-পূর্ব পাশের নেটে বল করেন তাইজুল ইসলাম, নাঈম হাসান ও মেহেদী হাসান মিরাজ।

পরে উত্তর-পশ্চিম পাশের নেটে ব্যাটিং পরামর্শ অ্যাশওয়েল প্রিন্স তাকে নিয়ে কাজ করেন দীর্ঘক্ষণ। থ্রোয়ার ও পেসারদেরও সামলিয়েছেন বেশ ভালো সময়। ইয়াসির আলি রাব্বির সাথে জয়কে নিয়ে গ্রানাইটে বল ছোঁড়েন হেড অব ফিজিক্যাল পারফরম্যান্স নিক লিও।

জয়কে আলাদা করলে বাংলাদেশের আজকের অনুশীলনে ছিলোনা খুব বেশি ভিন্নতা। সদমান ইসলাম, ইয়াসির আলি রাব্বি, মুমিনুল হক, লিটন দাস, নুরুল হাসান সোহানরা ঝালিয়ে নিয়েছেন নিজেদের।

অনুশীলন শুরুর আগে আজ ফুটবলের পাশাপাশি গা গরমের জন্য ভলিবলও খেলে টাইগার ক্রিকেটাররা। নির্ধারিত সময় দেড়টার বেশ আগে মাঠে আসেন মুশফিকুর রহিম। নেটে করেছেন ব্যাটিং অনুশীলন।

আজকের অনুশীলনে আলাদা করে চোখে চোখে ছিলেন স্কোয়াডের নতুন মুখ পেসার রেজাউর রহমান রাজা। সাদমান ইসলামকে করা তার বলগুলোতে গতি থাকলেও ছিলোনা খুব বেশি বৈচিত্র। যদিও ব্যাটার সাদমান কয়েকবারই পরাস্ত হয়েছেন গতির কাছেই।

এদিন মাঠের দুই পাশের নেটে ব্যাটিং, বোলিং অনুশীলন হলেও মাঝমাঠে ফিল্ডিং অনুশীলনও চলেছে দফায় দফায়। কখনো ডোমিঙ্গো তো কখনো আপাতকালীন ফিল্ডিং কোচ মিজানুর রহমান বাবুল কাজ করেছেন মুমিনুল হক, লিটন দাস, নুরুল হাসান সোহান, নাজমুল হোসেন শান্তদের নিয়ে।

চট্টগ্রাম থেকে, ক্রিকেট৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

নির্দিষ্ট কোনো পরিকল্পনা নেই জয়ের, করতে চান স্বাভাবিক ব্যাটিং

Read Next

এনসিএলের শিরোপা জিতল ঢাকা, খুলনার অবনমন

Total
1
Share