শেষ হলো প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে তুষার ইমরান অধ্যায়

তুষার ইমরান

আনুষ্ঠানিক বিদায় ঘোষণার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটে শেষ হলো তুষার ইমরানের প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ার। আজ (২১ নভেম্বর) বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) ৩ নম্বর মাঠে তাকে দেওয়া হয় বিদায় সংবর্ধনা।

এবারের জাতীয় ক্রিকেট লিগ (এনসিএল) শুরুর আগেই ‘ক্রিকেট৯৭’ কে তুষার বিদায় নিতে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। আর গতকাল (২০ নভেম্বর) নিজের ফেসবুক পোস্টে জানান দিয়েছেন আজ (২২ নভেম্বর) থেকে শুরু হতে যাওয়া লিগের শেষ রাউন্ডেই বিদায় বলছেন।

খুলনা বিভাগের এই ক্রিকেটার এবার এনসিএলে চোটের কারণে খেলতে পারেননি তিন ম্যাচের বেশি। আজও মাঠে গিয়েছেন কেবল বিদায় বলতে, খেলছেন না ঢাকা বিভাগের বিপক্ষে ম্যাচ।

এদিন বিকেএসপিতে এনসিএলের দুইটি ম্যাচ চলছে। ৩ নম্বর মাঠে ঢাকা-খুলনা, ৪ নম্বর মাঠে সিলেট রংপুর। তুষারকে সংবর্ধনা দেওয়া হয় তার দল খুলনা যে মাঠে খেলছে সেখানে।

লাঞ্চ বিরতির সময় এই সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। চার দলের ক্রিকেটার, অফিসিয়াল ছাড়াও জাতীয় দলের নির্বাচক আব্দুর রাজ্জাক, বিকেএসপির ক্রিকেট উপদেষ্টা নাজমুল আবেদিন ফাহিম এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

চার দলের ক্রিকেটাররা দুই সারিতে দাঁড়িয়ে হাত উঁচু করে তুষারকে গার্ড অব অনার দেয়। এরপর তাকে ক্রেস্ট উপহার দেওয়া হয় ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (কোয়াব) পক্ষ থেকে।

দলগুলো তাদের সকল ক্রিকেটারের স্বাক্ষর সম্বলিত জার্সিও উপহার দেয় ৩৭ বছর বয়সী এই ব্যাটারকে। পুরো সময়টায় বেশ আবেগপ্রবণ দেখা যায় তাকে।

বাংলাদেশের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট ইতিহাসে তুষার নিঃসন্দেহে একজন কিংবদন্তী। প্রথম শ্রেণিতে তার চেয়ে বেশি সেঞ্চুরি, কিংবা রান নেই অন্য কারও। তবে তুষারের একটা আক্ষেপ থেকেই গেলো প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে যে ছুঁতে পারেননি ১২ হাজার রান।

এবার লিগ শুরু করেছিলেন ১১ হাজার ৯২২ রান নিয়ে, কিন্তু তার খেলা ৩ ম্যাচে করতে পেরেছেন কেবল ৫০ রান। ফলে ১১ হাজার ৯৭২ রানেই থামতে হলো এই ব্যাটারকে। এর মধ্য দিয়ে ইতি ঘটলো ২১ বছরের প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারের।

বেশ সম্ভাবনা নিয়েই বাংলাদেশ জাতীয় দলে ডাক পেয়েছিলেন তুষার। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজের সামর্থ্যের ছাপ রাখতে পারেননি ৫ টেস্ট ও ৪১ ওয়ানডের ক্যারিয়ারে। যদিও এখনকার ক্রিকেটারদের মত নিয়মিত সুযোগ না পাওয়া নিয়ে তার আক্ষেপ ছিল বরাবরই।

২০০৭ সালে সর্বশেষ বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করেন তুষার। তবে ঘরোয়া ক্রিকেটে এতদিন পর্যন্ত ছিলেন নিয়মিত। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটেতো একের পর এক ছাপিয়ে গেছেন নিজেকেই।

তার করা ১১ হাজার ৯৭২ রান এসেছে ১৮২ ম্যাচে, গড় ৪২.৭৫, সেঞ্চুরি ৩২ টি। রান এবং সেঞ্চুরির দিক থেকে তিনিই বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ।

তুষার ইমরান ফর্মের তুঙ্গে ছিলেন ২০১৬-১৭ ও ২০১৭-১৮ মৌসুমে। টানা দুই মৌসুমে সহস্রাধিক রান (১২৪৯ ও ১১০২) করা তুষার ক্যারিয়ারের ১০ টি (৫ টি করে) সেঞ্চুরির দেখা পান এই দুই মৌসুমে। ২০১৮-১৯ মৌসুমেও ৩ টি সেঞ্চুরি আসে তুষারের ব্যাট থেকে।

সাদা পোশাককে স্থায়ীভাবে তুলে রাখলেও তুষার জানিয়েছেন সীমিত ওভারের ক্রিকেট ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ (ডিপিএল) খেলবেন আরও কিছুদিন। সর্বশেষ ডিপিএলে ব্রাদার্স ইউনিয়নের হয়ে খেলার কথা থাকলেও করোনা পজিটিভ হওয়ায় তার আর মাঠে নামা হয়নি। আগামী মৌসুমে কোন দলে খেলবেন তা অবশ্য এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

ফখরের মনে হচ্ছে পাকিস্তানেই খেলা হচ্ছে!

Read Next

মাথায় আঘাত পাওয়া সোলজানোকে নেওয়া হয়েছে হাসপাতালে

Total
9
Share