জয়ের উপলক্ষ্য তৈরি করেও পরাজিত দলে বাংলাদেশ

featured updated v 4

৬১৭ দিন পর বাংলাদেশের মাঠে ফিরেছে দর্শক। অন্যদিকে বিশ্বকাপ ব্যর্থতা শেষে বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ। জয় দিয়ে রাঙানো দারুণ উপলক্ষ্যও বলা যায়। কিন্তু একটা সময় জয়ের পথে থেকেও পরাজিত দলে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের দল। পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টিতে হেরেছে ৪ উইকেটের ব্যবধানে।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আজ (১৯ নভেম্বর) টস জিতে আগে ব্যাত করা বাংলাদেশ শুরু থেকে খেই হারিয়ে ৭ উইকেটে স্কোরবোর্ডে তোলে ১২৭ রান। ব্যাট হাতে আফিফ হোসেনের ৩৬, নুরুল হাসান সোহানের ২৮ ও শেখ মেহেদীর অপরাজিত ৩০ রান।

জবাবে বাংলাদেশের মতো বাজে শুরু পাকিস্তানের, একটা সময় বল ও রানের ব্যবধানেও পিছিয়ে থাকতে হয়েছে। কিন্তু ফখর জামান ও খুশদিল শাহের উইকেট বাঁচিয়ে করা সমান ৩৪ রানের পর শেষদিকে শাদাব খান ও মোহাম্মদ নেওয়াজের ক্যামিও। দুজনে ১৫ বলে ৩৬ রানের অবিচ্ছেদ্য জুটি গড়েন।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে বাবর আজম-মোহাম্মদ রিজওয়ানের মতো দুই বিশ্বমানের ব্যাটসম্যানকে শুরুতেই হারায় পাকিস্তান। আর তাতেই যেনো ম্যাচের মোমেন্টাম নিজেদের দিকে নিয়ে নেয় বাংলাদেশ। রিজওয়ানকে (১১ বলে ১১) কিছুটা ভেতরে ঢোকা দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে বোল্ড করেন মুস্তাফিজুর রহমান। তাসকিন আহমেদ বোল্ড করেন বাবরকে (৭)।

এক বল আগেই অবশ্য তাসকিনের বাউন্সার বাবরের ব্যাট ছুঁয়ে উইকেট রক্ষক সোহানের হাতে যায়। কিন্তু বোলার কিংবা সোহান কেউই সেটা বুঝতে পারেনি, আবেদনও করেনি। বোল্ড করে সে আক্ষেপই যে ঘুচালেন তাসকিন।

এরপর হায়দয়ার আলিকে (০) খালি হাতে ফেরান শেখ মেহেদী, শোয়েব মালিকেরও (০) একই পরিণতি সোহানের বুদ্ধিদীপ্ত রান আউটে। ৪ উইকেট হারিয়ে পাওয়ার প্লেতে পাকিস্তানের সংগ্রহ ২৪। পরে উইকেট বাঁচাতে গিয়ে বলের সাথে পাল্লা দিয়ে প্রয়োজনীয় রানও বাড়ে সফরকারীদের।

তবে সময়ের সাথে সাথে সে চাপ কমাতে থাকেন ফখর জামান ও খুশদিল শাহ। শেষ ৬ ওভারে যা দাঁড়ায় ৫২ রানে। কিন্তু তাসকিনের অফ স্টাম্পের বাইরের বলে অফ ড্রাইভ করতে গিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন ফখর (৩৬ বলে ৩৪)। ভাঙে ৫৬ রানের জুটি। ফখরের পর দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ানো খুশদিল শাহকে ফেরান শরিফুল। তার ওয়াইড লেংথের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন এই বাঁহাতি (৩৫ বলে ৩৪)।

৯৬ রানে ৬ উইকেট হারানো পাকিস্তানের শেষ ৩ ওভারে প্রয়োজন ছিলো ৩২। মুস্তাফিজের করা ১৮তম ওভারে শাদাব খান-মোহাম্মদ নেওয়াজ মিলে নেয় ১৫ রান। ফলে ১২ বলে প্রয়োজন পড়ে ১৭ রানের। শরিফুলের করা ১৯তম ওভারে ২ ছক্কায় ১৫ রান নিয়ে জয়ের পথটা মসৃণ করে নেয় নেওয়াজ।

পুরো ম্যাচে বল হাতে না নেওয়া আমিনুল ইসলাম বিপ্লবের করা শেষ ওভারের দ্বিতীয় বলে ছক্কায় জয়সূচক বাউন্ডারি হাঁকান শাদাব। ৪ বল ও ৪ উইকেট হাতে রেখে দলের জয়ের পথে শাদাব-নেওয়াজের ১৫ বলে ৩৬ রানের জুটি। শাদাব ১০ বলে ২১ ও নেওয়াজ ৮ বলে ১৮ রানে অপরাজিত ছিলেন।

এর আগে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি টিকেনি ৭ বলের বেশি। হাসান আলির বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে নাইম শেখ ফেরেন ১ রান করে। বেশ চমক জাগিয়ে টি-টোয়েন্টি অভিষেক হওয়া সাইফ হাসানও থামেন ১ রানেই।

সিরিজ শুরুর আগে আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ের বার্তা দেওয়া নাজমুল হোসেন শান্তও ব্যর্থ। এই নিয়ে তৃতীয় দফা টি-টোয়েন্টি দলে ডাক পেয়ে আজ থেমেছেন ১৪ বলে ৭ রান করে। ওয়াসিমের দ্বিতীয় শিকার হন শর্ট বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে। পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশ তোলে ৩ উইকেটে মাত্র ২৫ রান।

আশা দেখিয়ে আরেক দফা হতাশ করলেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়ায়দও (৬)। তবে তাকে দুর্ভাগাই বলতে ভবে, মোহাম্মদ নওয়াজের হাল্কা টার্ন করা বল বেরিয়ে যাওয়ার আগে চুমু খেয়ে যায় স্টাম্পে।

৪০ রানে ৪ উইকেট হারানো বাংলাদেশকে টেনে নেওয়ার চেষ্টা আফিফের। ১১তম ওভারে মোহাম্মদ নওয়াজকে হাঁকান টানা ২ ছক্কা। কিন্তু শাদাব খানের গুগলি বুঝতে না পেরে স্টাম্পড হন ৩৪ বলে সমান ২ টি করে চার-ছক্কায় ৩৬ রান করে।

এরপর বাংলাদেশের সংগ্রহ ১২০ পার করাতে বড় অবদান নুরুল হাসান সোহান ও শেখ মেহেদীর। দুজনে মিলে জুটিতে যোগ করেন ২৪ বলে ৩৫ রান। সোহানের ব্যাটে আসে ২২ বলে ২৬ রান।

শেষ পর্যন্ত শেখ মেহেদীর ২০ বলে ৩০ রানের অপরাজিত ইনিংস। শেষ বলে তাসকিনের ছক্কায় বাংলাদেশের স্কোর বোর্ডে ৭ উইকেটে ১২৭। পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট হাসান আলির। ২ টি উইকেট নেন মোহাম্মদ ওয়াসিমের।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বাংলাদেশঃ ১২৭/৭ (২০ ওভার) নাইম ১, সাইফ ১, শান্ত ৭, আফিফ ৩৬, রিয়াদ ৬, সোহান ২৮, মেহেদী ৩০*, তাসকিন ৮*; হাসান ৩/২২, ওয়াসিম ২/২৪, নওয়াজ ১/২৭, শাদাব ১/২০

পাকিস্তানঃ রিজওয়ান ১৩২/৬ (১৯.২ ওভার) ১১, বাবর ৭, ফখর ৩৪, হায়দার ০, মালিক ০, খুশদিল ৩৪, শাদাব ২১*, নওয়াজ ১৮*; মেহেদী ১/১৭, তাসকিন ২/৩১, শরিফুল ১/৩১, মুস্তাফিজ ১/২৬

ফলাফলঃ পাকিস্তান ৪ উইকেটে জয়ী

ম্যাচ সেরাঃ (পাকিস্তান)।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

টিম ম্যানেজমেন্ট নিয়ে মুশফিকের খোলামেলা মন্তব্য, পেয়েছেন কারণ দর্শানো নোটিশ

Read Next

অজুহাত না দিলেও উইকেট পড়তে আরেক দফা ভুল করে বাংলাদেশ

Total
1
Share