নিউজিল্যান্ডকে অপেক্ষায় রেখে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম টি-২০ বিশ্বকাপ জয়

নিউজিল্যান্ডকে অপেক্ষায় রেখে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম টি-২০ বিশ্বকাপ জয়

প্রথমবারের মত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ট্রফির স্পর্শ পেল অস্ট্রেলিয়া। মিচেল মার্শ ও ডেভিড ওয়ার্নারের দাপুটে ব্যাটিংয়ের সুবাদে দুবাইয়ে রোমাঞ্চকর ফাইনালে নিউজিল্যান্ডকে তারা হারিয়েছে ৮ উইকেটের ব্যবধানে।

অন্যদিকে আবারও বিশ্বকাপের ফাইনালে হারের বৃত্ত থেকে বের হতে পারেনি ব্ল্যাকক্যাপসরা। বিফলে যায় কেন উইলিয়ামসনের অধিনায়কোচিত ইনিংস।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

১৭৩ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে শুরুতে ধাক্কা খায় অজিরা। সেমির মত ফাইনালেও ব্যাটিং ব্যর্থতার পরিচয় দেন অধিনায়ক ফিঞ্চ, মাত্র ৫ রান করে ট্রেন্ট বোল্টের বলে ফিরে যান।

তবে ডেভিড ওয়ার্নার ও মিচেল মার্শের দানবীয় ব্যাটিংয়ে জয়ের ভিত্তি গড়ে ওঠে। নিউজিল্যান্ডের বোলারদের একপ্রকার তুলোধুনো করেছেন এ দুই ব্যাটসম্যান। ৫৯ বলে ৯২ রানের জুটি গড়েন তারা। ৩৪ বলে হাফ সেঞ্চুরি আদায় করেন ওয়ার্নার। বোল্ট বোলিংয়ে এসে ওয়ার্নারকে (৫৩) আউট করে ব্রেকথ্রু এনে দেন।

ওয়ার্নারের বিদায়েও থেমে থাকেনি মার্শের ঝড়। ইশ সোধিকে মিড উইকেটে ছক্কা হাঁকিয়ে ৩১ বলে ফিফটির দেখা পান তিনি। যোগ্য সহায়তা দেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। এ দুজন অবিচ্ছিন্ন থেকে ৬৬ রানের জুটি গড়েন। ম্যাক্সওয়েল তার ট্রেডমার্ক রিভার্স স্কুপে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলের শিরোপা নিশ্চিত করেন। মার্শ ৫০ বলে ৬ চার ও ৪ ছয়ে ৭৭ রানে অপরাজিত থাকেন। অন্যদিকে ম্যাক্সওয়েল ১৮ বলে ২৮ রানে অপরাজিত থাকেন।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by cricket97 (@cricket97bd)

অন্য বোলারদের ভীড়ে ভালো বোলিং করেছেন বোল্ট। ৪ ওভারে ১৮ রান দিয়ে ২টি উইকেটই নেন তিনি।

এর আগে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শ্লথ গতিতে শুরু করে নিউজিল্যান্ড। দলীয় ২৮ রানে ফিরে যান সেমিফাইনালে ব্ল্যাকক্যাপসদের সেরা খেলোয়াড় ড্যারিল মিচেল। এরপর অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন ব্যাটিংয়ে নেমে অজি বোলারদের উপর ছড়ি ঘোরাতে থাকেন। ব্যক্তিগত ২১ রানের মাথায় তার ক্যাচ ফেলে দলের দুর্গতি বাড়ান জশ হ্যাজেলউড। ২১ রানের মার্টিন গাপটিলকে সাথে নিয়ে ৪৮ রানের জুটি গড়েন। গাপটিল ২৮ রান করলেও খেলেছেন ৩৫টি বল।

গাপটিলের বিদায়ের পর গ্লেন ফিলিপসকে নিয়ে আরও আক্রমণাত্নক ব্যাটিং উপহার দেন ব্ল্যাকক্যাপসদের দলপতি। এ দুইজন মাত্র ৩৭ বলে ৬৮ রানের জুটি উপহার দিয়ে দলের সংগ্রহ বড় করেন। ৩২ বলে অর্ধশতরান পূর্ণ করা উইলিয়ামসনের পরের ৩৫ রান আসে মাত্র ১৬ বলে। ১০ চার ও ৩ ছক্কায় ৮৫ রানের অসাধারণ ইনিংস খেলেন তিনি। হ্যাজেলউডের একই ওভারে যবনিকাপাত ঘটে ফিলিপস ও উইলিয়ামসনের।

শেষ দিকে জেমস নিশাম ও টিম সেইফার্টের চেষ্টায় ১৭২ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে নিউজিল্যান্ড। নিশাম ১৩ ও সেইফার্ট ৮ রানে অপরাজিত থাকেন। এছাড়া ফিলিপস করেন ১৮ রান।

অজিদের পক্ষে ফাইনালে দুর্দান্ত বোলিং করেছেন জশ হ্যাজেলউড। ৪ ওভারে মাত্র ১৬ রানে ৩ উইকেট নেন। বাকি উইকেটটি যায় অ্যাডাম জ্যাম্পার দখলে। মিচেল স্টার্ক ৪ ওভারে ৬০ রান দিয়ে উইকেটশূন্য থাকেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

নিউজিল্যান্ডঃ ১৭২/৪ (২০), গাপটিল ২৮, মিচেল ১১, উইলিয়ামসন ৮৫, ফিলিপস ১৮, নিশাম ১৩*, সেইফার্ট ৮*; হ্যাজেলউড ৪-০-১৬-৩, জ্যাম্পা ৪-০-২৬-১

অস্ট্রেলিয়াঃ ১৭৩/২ (১৮.৫), ওয়ার্নার ৫৩, ফিঞ্চ ৫, মার্শ ৭৭*, ম্যাক্সওয়েল ২৮* ; বোল্ট ৪-০-১৮-২

ফলাফলঃ অস্ট্রেলিয়া ৮ উইকেটে জয়ী।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

বাংলাদেশে এসে ইফতিখারের পুরনো স্মৃতি রোমন্থন

Read Next

আনন্দে ভাষা হারিয়ে ফেলেছেন ফাইনালের নায়ক মার্শ

Total
1
Share