ইনজুরির ধাক্কা সামলিয়ে চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত মরগান

ইনজুরির ধাক্কা সামলিয়ে চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত মরগান

মরুর বুকে ক্রিকেট উন্মাদনা বেড়ে চলেছে। পর্দা নামার দ্বারপ্রান্তে চলে গেছে টুর্নামেন্ট। আর মাত্র ৩ ম্যাচ পরেই বিশ্ব নতুন চ্যাম্পিয়নের দেখা পেয়ে যাবে ক্রিকেট বিশ্ব।প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের দুই ফাইনালিস্ট ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। তবে ইংল্যান্ড শিবিরে মরুর ঝড় হয়ে এসেছে ইনজুরির ধাক্কা। ইংল্যান্ডের অধিনায়ক এউইন মরগান মঙ্গলবার বলেছেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ইনজুরির ধাক্কা থাকলেও দলের ইতিবাচক মনোভাব দলকে সেমিফাইনালের আগে উজ্জীবিত রেখেছে।

দলের ছন্দে থাকা ওপেনার জেসন রয় এবং পেস বোলার টাইমাল মিলস ইনজুরির কারণে দল থেকে ছিটকে গেছেন। এছাড়াও পেস বোলিং অলরাউন্ডার বেন স্টোকস ও পেসার জফরা আর্চারকে ছাড়াই টুর্নামেন্ট শুরু করে ইংল্যান্ড। স্টোকস বায়ো বাবল ফ্যাটিগের কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্রিকেট থেকে ছুটি নিয়েছিলেন, তবে বিশ্বকাপ শেষে অ্যাশেজ দিয়ে মাঠে ফিরবেন তিনি। ইনজুরির জন্য দলের বাইরে রয়েছেন আর্চার।

আবু ধাবিতে আজ (১০ নভেম্বর) প্রথম সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামবে ইংল্যান্ড। ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে মরগান সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের আগের দুইটি বিশ্বকাপ সে (জেসন রয়) দলের অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে খেলেছে। সে অন্য ছেলেদের মতো বিশ্বকাপ মিস করতে চলেছে ইনজুরির জন্য। দলের বাকিরা ইতিবাচক আছে তারা শূন্যতা পূরণ করে দলে অবদান রাখবে।আমি মনে করি এই টুর্নামেন্টে আমরা যে জায়গায় শক্তিশালী ছিলাম তা হল স্কোয়াডের মধ্যে স্থিতিস্থাপকতা ছিল ও দলকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার তাড়না ছিল।’

তবে মরগান কে জেসন রয়ের বদলি হিসেবে জস বাটলারের সাথে ইনিংস শুরু করবেন তা নিশ্চিত করেন নি। কিন্তু তিনি বিশ্বাস করেন নিউজিল্যান্ডকে হারাতে হলে ওয়ানডে চ্যাম্পিয়নদের সেরা ক্রিকেট খেলতে হবে।

মরগান বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলা চ্যালেঞ্জ তবে চ্যালেঞ্জ নিতে আমরা মুখিয়ে আছি। কিন্তু তাদের হারাতে হলে আমাদেরকে সত্যিই ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে।’

ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের খেলা হলেই মনে আসে ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফাইনালের স্মৃতি। যেখানে সুপার ওভারের নাটকীয়তায় নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে শিরোপা জিতে নেয় ইংল্যান্ড। এছাড়াও ইংল্যান্ড ২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে কিউইদের পরাজিত করে। কিন্তু বিশ্ব আসরে সেমিফাইনালে কিংবা ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের ধারাবাহিকতা সম্পর্কে সচেতন মরগান।

এ নিয়ে মরগান বলেন, ‘আমরা জানি গত কয়েকটি বিশ্বকাপ তারা কতটা ধারাবাহিক ছিল, শুধু এটিই নয় অধিনায়ক হিসেবে কেনের ভূমিকা দুর্দান্ত।তাই আমরা চ্যালেঞ্জের জন্য অপেক্ষা করছি।’

ইংল্যান্ডের প্রায় সকল খেলোয়াড় সুপার টুয়েলভের ৪ জয়ে উজ্জীবিত। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে একমাত্র হারের ম্যাচেও ১৭ বলে ২৮ রান করে তার উপস্তিতির জানান দিয়েছেন। লিয়ামকে প্রশংসায় ভাসাতেও কার্পণ্য করেন নি ইংলিশ অধিনায়ক ।

মরগান বলেন, ‘আমি লিয়ামের একজন বড় ভক্ত। সে এমন একজন খেলোয়াড় যে খেলার যেকোনো অবস্থায় বেনের মতো অবদান রাখার ক্ষমতা রাখেন।’

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

এলপিএলে দল পেলেন ‘৫’ বাংলাদেশি

Read Next

মাথা তুলে ঘুরে দাঁড়ানোর অপেক্ষায় কেন উইলিয়ামসন

Total
1
Share