সিলেটে অপুর ৫ উইকেট, বিপ্লব-রনির জুটিতে বড় লিডের পথে মেট্রো

বঙ্গবন্ধু ২২ তম জাতীয় ক্রিকেট লিগ- কোন দলে কারা

সিলেটে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ঢাকার নাজমুল ইসলাম অপুর স্পিন ঝলক, শিকার ৫ উইকেট। তবুও দিনশেষে এগিয়ে সিলেট। বিকেএসপিতে সেঞ্চুরির আক্ষেপ ঢাকা মেট্রোর শামসুর রহমান শুভর। শেষদিকে আমিনুল বিপ্লব ও আবু হায়দার রনির ব্যাটে শতরানের অপরাজিত জুটি। রাজশাহীর বিপক্ষে বড় লিডের পথে মেট্রো।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে স্বাগতিকদের কাছে টস হেরে আগে ব্যাট করতে হয় ঢাকা বিভাগকে। তবে শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়; স্কোরবোর্ডে কোন রান যোগ হওয়ার আগেই প্যাভিলিয়নে ফেরত যান টপ অর্ডারের ৪ ব্যাটসম্যান। মাহিদুল ইসলাম অঙ্কনের ৬৪ রানের ইনিংসে শেষ রক্ষা হয় ঢাকার; ১০০ রানের গন্ডি পেরোয় কোনভাবে। নাসুম আহমেদের স্পিন বিষে বিপর্যস্ত হয়ে ১২৩ রানের বেশি করতে পারেনি ঢাকা বিভাগ।

জবাবে সিলেট প্রথম দিন শেষ করেছিল ২ উইকেট ৭৯ রান তুলে। সায়েম আলম রিজভি ৪৫ ও জাকির হাসান ২০ রানে অপরাজিত থাকেন। জুটি গড়ে অর্ধশত রান পূর্ণ করেন দুই ব্যাটসম্যানই। তবে ৭৮ রানের ইনিংসে বিদায় নেন সায়েম। রান পাননি অলক কাপালি (৪)। জাকির হাসানকে প্যাভিলিয়নে ফিরতে হয় ব্যক্তিগত ৬৭ রানে।

এরপর একপ্রান্ত আগলে রেখে ব্যাট করতে থাকেন জাকের আলি অনিক। অন্যপ্রান্তে চলে উইকেটের আসা-যাওয়া। শাহানুর রহমানের ২৩ রানের ইনিংস ছাড়া আর কেউই দুই অংকের ঘর ছুঁয়ে দেখেননি। শেষপর্যন্ত ৬৭ রানে অপরাজিত থাকেন জাকের আলি। সিলেট বিভাগীয় দলের প্রথম ইনিংস শেষ হয় ২৬৫ রানে।

বল হাতে চমক দেখান ঢাকার নাজমুল ইসলাম অপু। ৭২ রান খরচায় তুলে নেন ৫ উইকেট।

শেষ বিকালে ব্যাট করতে নেমে ১ উইকেট হারিয়ে ২২ রান স্কোরবোর্ডে জমা করে ঢাকা। নাসুমের শিকার হওয়ার আগে রনি তালুকদার পাননি ১ রানের বেশি। আব্দুল মজিদ ৮ ও জয়রাজ শেখ অপরাজিত ১৩ রানে। পিছিয়ে আছে ১২০ রানে; হাতে ৯ উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ (ঢাকা-সিলেট)

ঢাকাঃ ১২৩/১০ (৫০.৩ ওভার) অঙ্কন ৬৪, তাইবুর ২০, অপু ১৬*; নাসুম ১৮-৬-৪৩-৭, এবাদত ৯-৪-১৩-১, রাজা ১২-৭-২৫-১

সিলেটঃ ২৬৫/১০ (১০৪.১ ওভার) সায়েম ৭৮, অমিত ৬, জাকির ৬৭, জাকের ৬৭* শাহানুর ২৩; অপুর ৩৬.৪-১০-৭২-৫, তাইবুর ১৯.৩-৩-৪০-৩

ঢাকাঃ ২২/১ (১৩ ওভার) রনি ১, মজিদ ৮*, জয়রাজ ১৩*; নাসুম ৬-১-৯-১

ঢাকা বিভাগ পিছিয়ে আছে ১২০ রানে।

জাতীয় ক্রিকেটে লিগের চতুর্থ রাউন্ডের প্রথম দিনে সাভার বিকেএসপির ৪ নম্বর গ্রাউন্ডে ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে টস হেরে আগে ব্যাট করতে নামে রাজশাহী বিভাগ। পেসার শহীদুল ইসলাম ৪৮ রান খরচায় নেন ৭ উইকেট। তাঁর বোলিং দাপটে রাজশাহীকে প্রথম ইনিংসে অলআউট হয় ২৩২ রানে।

জবাবে ঢাকা মেট্রো দিন শেষ করেছিল ২ উইকেটে ৫৩ রান তুলে। ১৭৯ রানে পিছিয়ে থেকে তৃতীয় দিনের শুরুটা করেন আগের দিন ২৮ রানে অপরাজিত থাকা জাহিদুজ্জামান খান ও ৩ রানে থাকা শামসুর রহমান শুভ। এদিন এই দুইয়ের ব্যাটে আসে বড় জুটি। ব্যক্তিগত ৪৫ রানে জাহিদুজ্জামান ফরহাদ রেজার বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন প্যাভিলিয়নে। কিন্তু ব্যাট হাতে সচল থাকেন শামসুর রহমান শুভ।

সেঞ্চুরির পথে থাকলেও সানজামুল সেঞ্চুরি হাঁকাতে দেননি শামসুর রহমানকে। ৮৯ রানের ইনিংসে বিদায় নেন শুভ। মাঝে অধিনায়ক সাদমান ইসলাম খেলে যান ৬২ রানের ইনিংস। এরপর ১০০ ছাড়ানো জুটি হয় আমিনুল ইসলাম বিপ্লব ও আবু হায়দার রনির ব্যাটে। ফিফটি রান পূর্ণ করেন দু’জনই।

আমিনুল ইসলাম বিপ্লব ৬৫* ও আবু হায়দার ৫৬* রানে থেকে দ্বিতীয় দিন শেষ করেন। এই দুইয়ের ব্যাটে চড়েই বড় সংগ্রহের পথে ঢাকা মেট্রো। লিড পেল ১২১ রানের।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ (রাজশাহী বিভাগ-ঢাকা মেট্রো)

রাজশাহীঃ ২৩২/১০ (৬৫.৫ ওভার) মিজানুর ৪৮, জুনায়েদ ২৬, ফরহাদ ২০, প্রিতম ৩০, ফরহাদ ৬০, সানজামুল ৩৯; শহিদুল ১৫.৫-৩-৪৮-৭

ঢাকা মেট্রোঃ ৩৫৩/৬ (১০৩ ওভার) মুনিম ১৪, জাহিদুজ্জামান ৪৫, মিনহাজুল ৫, শামসুর ৮৯, সাদমান ৬২, আমিনুল ৬৫*, রনি ৫৬*; নাহিদ ১৬-১-৫৩-১, ফরহাদ ১৫-১-৬১-২, সানজামুল ৩২-৫-১০৬-২

দ্বিতীয় দিন শেষে ঢাকা মেট্রো এগিয়ে আছে ১২১ রানে।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

সহজ জয় দিয়ে বিশ্বকাপ পর্ব শেষ করলো ভারত

Read Next

ব্যাঙ্গালোরের প্রধান কোচ হলেন বাঙ্গার

Total
7
Share