রাব্বির সেঞ্চুরি, মুমিনুল-ইরফানের ফিফটি; এগিয়ে চট্টগ্রাম

২৩ তম এনসিএলের পূর্নাঙ্গ সূচি

২৩তম বঙ্গবন্ধু জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) দ্বিতীয় দিনে টায়ার-২ এর ম্যাচে চট্টগ্রামে ইয়াসির আলি রাব্বির শতরান ও মুমিনুল-ইরফানের ফিফটিতে এগিয়ে চট্টগ্রাম। তবে বল হাতে ঝলক দেখিয়ে রাজশাহীর সানজামুলের ঝুলিতে পাঁচ উইকেট, তাইজুলের শিকার ৪টি। কক্সবাজারে বৃষ্টি বাঁধায় পরিত্যক্ত ঢাকা-বরিশালের দ্বিতীয় দিনের খেলা।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে প্রথম দিনই চট্টগ্রাম বিভাগের বিপক্ষে আগে ব্যাট করে ১৬৬ রানে গুটিয়ে যায় রাজশাহী বিভাগ। জবাবে ইয়াসির আলি চৌধুরীর শতরানের ইনিংস ও মুমিনুল-ইরফান শুক্কুরের ফিফটিতে চড়ে চট্টগ্রাম স্কোরবোর্ডে তোলে ৩৪৯ রান।

আগের দিন ৭০ রানে ইয়াসির আলি রাব্বি ও ৩২ রানে অপরাজিত ছিলেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। ফিফটি হাঁকিয়েই তাইজুলের শিকার হয়ে ফিরে গেলেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। এরপর ইয়াসির আলি রাব্বির সঙ্গে জুটি গড়ে দাপুটে ব্যাটিংয়ে এগিয়ে যেতে থাকেন ইরফান শুক্কুর।

শতরানের দেখা পান ইয়াসির আলি রাব্বি। যা তাঁর প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে নবম সেঞ্চুরি। এরমাঝেই অর্ধশত রান পূর্ণ করেন ইরফান। তবে ইয়াসিরকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে প্যাভিলিয়নে ফেরান সানজামুল ইসলাম। ১২৯ রানে প্যাভিলিয়নে ফেরেন ইয়াসির রাব্বি। ১৯৮ বলে তাঁর এই ইনিংস সাজানো ১৫ চার ও ৩ ছয়ে। ৬৩ রানের ইনিংসে থামেন ইরফান শুক্কুর। শেষে মেহেদী হাসান রানার অপরাজিত ৩৬ রানের সুবাদে প্রথম ইনিংসে ৩৪৯ রানে থামে চট্টগ্রাম।

রাজশাহীর হয়ে বল হাতে সর্বোচ্চ পাঁচ উইকেট সানজামুল ইসলামের দখলে। এছাড়া তাইজুল ইসলাম নেন ৪টি উইকেট।

১৮৩ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুটা ভালো হয়নি রাজশাহী বিভাগের। ব্যাট হাতে ব্যর্থ টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান। ওপেনার তানজিদ হাসান তামিম আউট হন ১২ রানে। মিজানুর রহমানের ব্যাট থেকে আসে ১৪ রান। মেহেদী হাসান রানার বলে বোল্ড হন তিনে নামা নাজমুল হোসেন শান্ত (৪)।

এরপর অবশ্য স্বস্তি পায় রাজশাহী। জহুরুল ইসলাম ও তৌহিদ হৃদয়ের ব্যাটে আর কোন বিপদ দেখেনি রাজশাহী। দিন শেষে জহুরুল অপরাজিত ২১ রানে, আর তৌহিদ হৃদয় ব্যাট করছেন ২৬ রানে। ৩ উইকেট হারিয়ে রাজশাহীর সংগ্রহ ৭৯ রান।

দ্বিতীয় দিন শেষে ১০৪ রানে এগিয়ে আছে চট্টগ্রাম বিভাগ।

দ্বিতীয় স্তরের আরেক ম্যাচে কক্সবাজার শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বরিশাল বিভাগ-ঢাকা মেট্রোর দ্বিতীয় দিনের খেলা মাঠে গড়াতে দিল না বৃষ্টি। তুমুল বৃষ্টির কারণে এদিন হয়নি একটি বলও।

আগের দিন অধিনায়ক সাদমান ইসলাম ও মোহাম্মদ শরিফুল্লাহর জোড়া ফিফটিতে অলআউট হওয়ার আগে ২৩৯ রান সংগ্রহ করে ঢাকা মেট্রো। জবাবে ১ উইকেট হারিয়ে স্কোরবোর্ডে ৬ রান বরিশালের। পিছিয়ে আছে ২৩৩ রানে। মোহাম্মদ আশরাফুল অপরাজিত ৬ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ (রাজশাহী-চট্টগ্রাম)

রাজশাহী ১ম ইনিংসঃ ১৬৬/১০

চট্টগ্রাম বিভাগ ১ম ইনিংসঃ ৩৪৯/১০ (১০০ ওভার) মুমিনুল ৫০, ইয়াসির ১২৯, শাহাদাত ১২, শুক্কুর ৬৩, রানা ৩৬*; তাইজুল ২৮-৩-১১৯-৪, মোহর ১৩-৩-২৬-১, সানজামুল ২৯-৫-৯৯-৫

রাজশাহী বিভাগ ২য় ইনিংসঃ ৭৯/৩ (২২ ওভার) তানজিদ ১২, মিজানুর ১৪, শান্ত ৪, জহুরুল ২১*, হৃদয় ২৬*; মেহেদি রানা ৭-২-১৬-২, নাঈম ৬-১-৩-১

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ (ঢাকা মেট্রো-বরিশাল)

ঢাকা মেট্রো ১ম ইনিংসঃ ২৩৯/১০

বরিশাল বিভাগ ১ম ইনিংসঃ ৬/১ (৩ ওভার) মইনুল ০, আশরাফুল ৬*; শরিফউল্লাহ ২-২-০-১

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

যেকারণে খেলেছেন সৌম্য, যেভাবে ফিরবেন নাইম

Read Next

নামিবিয়ার বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার সহজ জয়

Total
8
Share