শেষ ওভারের থ্রিলারে ফাইনালে কোলকাতা

সাকিবের দুর্দান্ত ফিনিশিংয়ে ব্যাঙ্গালোরের বিদায়, কোয়ালিফায়ারে কোলকাতা

গেম চেঞ্জার রাহুল ত্রিপাঠী; চরম নাটকীয়তা শেষে জয়ের হাসি হাসল কোলকাতা। দিল্লি ক্যাপিটালসকে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে হারিয়ে ২০২১ আইপিএলের ফাইনালে উঠল কোলকাতা নাইট রাইডার্স। শেষ ওভারের থ্রিলারে ১ বল বাকি থাকতে ৩ উইকেটের জয়।

আরও একবার কাপ ছুঁয়ে দেখার সুযোগ এউইন মরগানের দলের সামনে। আগামী ১৫ই অক্টোবর ফাইনালের মঞ্চে কোলকাতা নাইট রাইডার্স লড়বে ধোনির চেন্নাই সুপার কিংসের সঙ্গে।

নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটের বিনিময়ে ১৩৫ রান তুলেছে দিল্লি ক্যাপিটালস। ফাইনালে উঠতে হলে কেকেআরকে তুলতে হবে ১৩৬ রান। জবাবে ভেঙ্কটেশ আইয়ার ও শুবমান গিলের উদ্বোধনী জুটিতেই জয়ের পথ সহজ হয়ে যায় কোলকাতার। তবে হঠাৎ করেই ছন্দপতন। পরপর ৪ ব্যাটসম্যান আউট হন শূন্য রানে। তবুও জিতল কোলকাতা; রাহুল ত্রিপাঠীর ছক্কায় আসে ৩ উইকেটের জয়।

২০২১ আইপিএলের দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে শারজাহতে টস জিতে আগে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন নাইট রাইডার্স অধিনায়ক এউইন মরগান। যথারীতি সাকিব আল হাসানই এদিন বোলিং শুরু করেন। প্রথম ওভারে কেবল ১ রান খরচ করেন সাকিব। ধীর-গতিতে ইনিংস শুরু করল দিল্লি ক্যাপিটালস। তবে পঞ্চম ওভারের প্রথম বলেই বরুণ ফেরালেন পৃথ্বীকে। লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে ১২ রানে ফিরলেন পৃথ্বী।

শিখর ধাওয়ানের সঙ্গে জুটি গড়ে দলের সংগ্রহ এগিয়ে নিতে থাকেন মার্কাস স্টয়নিস। তবে ফেরার ম্যাচে স্টয়নিসের ব্যাট থেকে আসেনি বড় ইনিংস। শিভম মাভির বলে বোল্ড হয়ে ফেরার আগে ১৮ রান আসে এই অজি তারকার ব্যাট থেকে। বরুণ চক্রবর্তীর বলে দুর্দান্ত এক ক্যাচ নেন সাকিব; শিখর ধাওয়ান প্যাভিলিয়নে ফেরত যান ৩৬ রানে। ৩৯ বলে তাঁর এই ইনিংস সাজানো ছিল ১ চার ও দুই ছয়ে।

পরের ওভারেই ফার্গুসনের বলে ক্যাচ তুলে মাত্র ৬ রানে ফিরলেন অধিনায়ক রিশাব পান্ট। এরপর শিমরন হেটমামেয়ার ব্যাট থেকে আসে ১৭ রানের ক্যামিও এক ইনিংস। তবে শেষপর্যন্ত অপরাজিত থেকে দলের সংগ্রহ ১৩৫ করেন শ্রেয়াস আইয়ার। ২৭ বলে করেন ৩০ রান।

কোলকাতার হয়ে বল হাতে ২৬ রান খরচায় ২টি উইকেট নেন বরুণ চক্রবর্তী, এছাড়া ১টি করে উইকেট নেন লকি ফার্গুসন ও মাভি। সাকিব আল হাসান উইকেট শূন্য থাকলেও করেছেন নিয়ন্ত্রিত বোলিং। ৪ ওভারে খরচ করেন ২৮ রান।

১৩৬ রানের ছোট টার্গেটে খেলতে নেমে দুই ওপেনারের ব্যাট উড়ন্ত সূচনা পায় কোলকাতা। শুবমান গিল ও ভেঙ্কটেশ আইয়ারের উদ্বোধনী জুটির সামনে বিপর্যস্ত দিল্লির বোলাররা। ৩ চার ও ৩ ছয়ের সাহায্যে ৩৮ বলে অর্ধশত রান পূর্ণ করেন ভেঙ্কটেশ আইয়ার। বিপরীতে শুভমান গিল ইনিংস চালিয়ে নেন বেশ দেখে-শুনে।

তবে ফিফটির বিধ্বংসী রূপ ধারন করতে যাওয়া ভেঙ্কটেশকে থামিয়ে দেন কাগিসো রাবাদা। ভাঙ্গে গিলের সঙ্গে গড়া ৯৬ রানের উদ্বোধনী জুটি। প্যাভিলিয়নে ফেরার আগে ৫৫ রানের ইনিংস আসে ভেঙ্কটেশ আইয়ারের ব্যাট থেকে। নিতিশ রানা আউট হন ১৩ রান করে। তবে ফিফটির খুব কাছে থেকেও পাননি শুমবান গিল। ৪৬ বলে ১টি করে চার ও ছয়ে করেন ৪৬ রান। ১৮তম ওভারে কেবল ১ রান খরচ করে দিনেশ কার্তিকের উইকেট তুলেন নেন রাবাদা। ম্যাচের রাশ ঘুরে যায় এখান থেকেই।

আনরিখ নরকিয়া পরের ওভারে বোল্ড করেন এউইন মরগানকে। ৩ বলে অধিনায়ক মরগান ফেরত যান শূন্য হাতে। সাকিবেরও একই অবস্থা হয়। ইনিংসের শেষ ওভারে সাকিব ফেরেন সেই শূন্য রানেই। সুনীল নারাইন বল আকাশে তুলে মারেন গোল্ডেন ডাক। ২ বলে ছয় রান প্রয়োজন কোলকাতার। স্ট্রাইকে যেয়েই রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে ফাইনালে তুলেন রাহুল ত্রিপাঠী।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ (কোয়ালিফায়ার ২)

দিল্লি ক্যাপিটালসঃ ১৩৫/৫ (২০ ওভার) পৃথ্বী ১৮, ধাওয়ান ৩৬, স্টয়নিস ১৮, আইয়ার ৩০*, পান্ট ৬, হেটমায়ের ১৭; বরুণ ২/২৬, ফার্গুসন ১/২৬, মাভি ১/২৭

কোলকাতা নাইট রাইডার্সঃ ১৩৬/৭ (১৯.৫ ওভার) গিল ৪৬, ভেঙ্কটেশ ৫৫, রানা ১৩, রাহুল ত্রিপাঠী ১২*; নরকিয়া ২/৩১, অশ্বিন ২/২৭, রাবাদা ২/২৩, আবেশ ১/২২

ফলাফলঃ কোলকাতা নাইট রাইডার্স ৩ উইকেটে জয়ী

ম্যাচ সেরাঃ ভেঙ্কটেশ আইয়ার (কোলকাতা নাইট রাইডার্স)।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

এবারের এনসিএল দিয়েই প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটকে বিদায় বলছেন তুষার ইমরান

Read Next

‘পারফেক্ট ক্যাচ অফ দ্য ম্যাচ’ পুরষ্কার জিতলেন সাকিব

Total
1
Share