বাগে পেয়েও হারানো গেল না শ্রীলঙ্কাকে

বাগে পেয়েও হারানো গেল না শ্রীলঙ্কাকে

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে স্বল্প পুঁজি নিয়েও লড়াইটা ভালোই করছিল বাংলাদেশ। তবে আভিষ্কা ফার্নান্দোর দুর্দান্ত এক ইনিংসে হাতের মুঠোয় থাকা ম্যাচ ফসকে গেল বাংলাদেশের। তাকে যোগ্য সঙ্গ দেন চামিকা করুণারত্নে। ৪ উইকেটে হেরে বিশ্বকাপ মিশনের পথে যাত্রাটা শুভ হয়নি টাইগারদের।

বাংলাদেশের ১৪৭ রানের জবাবে ৭৫ রানেই ৬ উইকেট হারিয়ে বসে লঙ্কানরা। সেখান থেকে আভিষ্কা-চামিকা ৭৩ রানের অবিচ্ছেদ্য জুটিতে দারুণ এক জয় এনে দেন শ্রীলঙ্কাকে। আভিষ্কা ৬২ ও চামিকা ২৯ রানে অপরাজিত ছিলেন।

আবু ধাবির শেখ জায়েদ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৮ টায় শুরু হওয়া ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করে বাংলাদেশ। টপ-মিডল অর্ডারে সৌম্য সরকার ছাড়া ভালো করতে পারেনি কেউই। তার ব্যাটে সর্বোচ্চ ৩৪ রান, এর বাইরে কিছু ছোট ছোট ইনিংসে ভর করে বাংলাদেশ পায় ৭ উইকেটে ১৪৭ রানের পুঁজি।

৪.২ ওভার স্থায়ী উদ্বোধনী জুটিতে নাইম শেখ ও লিটন দাস যোগ করে ৩১ রান। লিটন দুশমান্থ চামিরার বলে বোল্ড হলে ভাঙে জুটি। ১৪ বলে ৩ চারে ১৬ রান আসে তার ব্যাট থেকে। এরপর বেশিক্ষণ টিকেনি নাইমও, ফিরেছেন মাহিশ থিকশানার বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে, খেলেছেন টি-টোয়েন্টি বিরুদ্ধ ১৯ বলে ১১ রানের ইনিংস।

দুই ওপেনারের বিদায়ের পর মুশফিকুর রহিম ও সৌম্য সরকারের ব্যাটে পথ খুঁজেছে বাংলাদেশ। তবে মুশফিক (১৩ বলে ১৩) আরেক দফা ব্যর্থ হলে তাদের জুটিও লম্বা হয়নি ২৭ রানের বেশি।

মাঝে আফিফের ব্যাটে ১১ বলে ১১। ৫ম ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়া সৌম্যই কেবল খেলেছেন ত্রিশোর্ধ্ব ইনিংস। ২৬ বলে ১ চার ২ ছক্কায় তার ব্যাট থেকে আসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৩৪ রান। যেখানে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ (১৬) আসে যৌথভাবে লিটন ও শেখ মেহেদীর ব্যাট থেকে।

লঙ্কান পেসার দুশমান্থ চামিরার তোপে শেষদিকে আশার প্রদীপ জ্বালাতে ব্যর্থ ওমানের বিপক্ষে ঝড় তোলা নুরুল হাসান সোহান (১৪ বলে ১৫) ও শামীম পাটোয়ারীও (৮ বলে ৫)।

৮ নম্বরে নামা শেখ মেহেদীর অপরাজিত ১২ বলে ১৬ রানে ৭ উইকেটে ১৪৭ রানে থামে বাংলাদেশ। বাংলাদেশকে এই রানে আটকানোর পথে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন লঙ্কান পেসার দুশমান্থ চামিরা।

জবাবে ভালো শুরুর ইঙ্গিত দিয়েও ব্যর্থ লঙ্কান দুই ওপেনার কুশল পেরেরা ও পাথুম নিশাঙ্কা। নাসুম আহমেদের করা ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই আসে ১৩ রান। তবে তৃতীয় ওভারে তাসকিন আহমেদ ফেরান কুশল পেরেরাকে (৮ বলে ৪)। শেখ মেহেদী বেশিক্ষণ টিকতে দেননি ১২ বলে ২ ছক্কায় ১৫ রান করা নিশাঙ্কাকে।

২৯ রানে ২ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কা এরপর পথ হারায়। একে একে ফেরেন দীনেশ চান্দিমাল (১৩), ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা (৭), ভানুকা রাজাপাকশে (০)। ৭৫ রানেই ৬ উইকেট হারিয়ে বসে লঙ্কানরা।

তবে সেখান থেকে ৭ম উইকেট জুটিতে চামিকা করুণারত্নেকে নিয়ে অভিষ্কা ফার্নান্দোর দুর্দান্ত এক জুটিতে ম্যাচ বের করে নেয়। শেষ ৫ ওভারে লঙ্কানদের প্রয়োজন ছিল ৪৩ রান, শেষ দুই ওভারে যা দাঁড়ায় ১৪!

নিজের প্রথম ৩ ওভারে মাত্র ৪ রান খরচ করা তাসকিন ১৮তম ওভারেই দেন ২১ রান। ঐ ওভারেই ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় বাংলাদেশ। ১২ বলে ১৩ রানের সমীকরণ মেলাতে ৬ বলের বেশি লাগেনি অভিষ্কা ও চামিকার।

৬ বল ও ৪ উইকেট হাতে রেখে লঙ্কানরা পেয়েছে জয়। ৩২ বলে ফিফটি ছোঁয়া আভিষ্কা শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ছিলেন ৪২ বলে ৬২ রানে, চামিকা ২৫ বলে ২৯ রানে।

৩ ওভার বল করে সর্বোচ্চ ২ উইকেট নেন ব্যাট হাতেও বাংলাদেশের কান্ডারি সৌম্যর। একটি করে শিকার তাসকিন, নাসুম ও শেখ মেহেদীর।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বাংলাদেশ ১৪৭/৭ (২০), নাইম ১১, লিটন ১৬, সৌম্য ৩৪, মুশফিক ১৩, আফিফ ১১, নুরুল ১৫, শামীম ৫, মেহেদী ১৬*, তাসকিন ৪*; চামিরা ৪-০-২৭-৩, কুমারা ৪-০-২৪-১, থিকশানা ৪-০-৩১-১, হাসারাঙ্গা ৪-০-২৪-১, শানাকা ২-০-১৭-১

শ্রীলঙ্কা ১৪৮/৬ (১৯), পেরেরা ৪, নিসাঙ্কা ১৫, চান্দিমাল ১৩, আভিষ্কা ৬২*, হাসারাঙ্গা ৭, রাজাপাকশে ০, শানাকা ৭, করুণারত্নে ২৯*; তাসকিন ৪-০-২৫-১, মেহেদী ৩-০-২২-১, শরিফুল ৪-০-৪১-১, সৌম্য ৩-০-১২-২

ফলাফলঃ শ্রীলঙ্কা ৪ উইকেটে জয়ী।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

১৫০ এর গন্ডি পার করতে পারল না বাংলাদেশ

Read Next

বিশ্বকাপে ভারত দলের সঙ্গী আবেশ-ভেঙ্কটেশও

Total
11
Share