ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে পাঁচে তোলার পুরনো স্বপ্ন দেখেন পাপন

নাজমুল হাসান পাপন তামিম ইকবাল তাইজুল ইসলাম মুস্তাফিজুর রহমান এবাদত হোসেন

র‍্যাংকিং কিংবা ইভেন্ট ভিত্তিক সাফল্য বিবেচনায় নিলে নাজমুল হাসান পাপনের অধীনে বাংলাদেশ দল নিশ্চিতভাবেই অতীতকে ছাপিয়ে গেছে। ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বর্তমান র‍্যাংকিং ৭ নম্বর। তবে চতুর্থ দফায় সভাপতি হয়ে পাপন বললেন এবার দলকে অন্তত ৫ নম্বরে তুলে আনতে চান।

গতকাল (৬ অক্টোবর) বিসিবির পরিচালক পদে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন নাজমুল হাসান পাপন। আজ (৭ অক্টোবর) প্রথম বোর্ড সভাতেই সভাপতি নির্বাচিত হন পাপন।

পরে মিরপুরের সংবাদ সম্মেলন কক্ষে নিজের লক্ষ্য জানাতে গিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘বর্তমান যে পরিস্থিতি সেখানে তিন ফরম্যাটের মধ্যে শুধু ওডিআইতে মোটামুটি ভালো (অবস্থান)। আমরা ভালো তবে ওই রকম দল হইনি যে বলবো আমরা খুব ভালো। মোটামুটি ভালো। আগের চেয়ে নিশিতভাবেই ভালো। সাত নম্বরে এসেছি। দুইটি বিশ্বকাপজয়ী দলের ওপরে আছি।’

‘শ্রীলঙ্কা এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তারা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। তাদের ওপরে এখন পর্যন্ত আছি। আমাদের পরবর্তীতে টার্গেট অবশ্যই পাঁচে যাওয়া। পাঁচ নম্বরে যেতে পারি….ওই জায়গায় যাওয়ার জন্য যে কাজ করতে হবে, যেটা করে আমরা যেতে পারি তাহলে সহজে আমাদেরকে নিচে নামতে হবে না। সামনের টার্গেটই পাঁচ নম্বরে যাওয়া। এজন্য শক্তিশালী অনেক প্রতিপক্ষ আছে তাদের উপরে আমাদের উঠতে হবে।’

‘প্রশ্ন করতে পারেন, কেন চার বা তিন নম্বরে না? আমি বিশ্বাস করি যে, এখন যে পরিস্থিতি সেখান থেকে সাত থেকে পাঁচে উঠাটাই হয়তো সম্ভব। এরপর অন্য লেভেল। এর পরের লেভেলে যেতে হলে যে পরিমাণ কাজ করতে হবে আমরা এখন পর্যন্ত সেই পরিমাণ কাজ করিও নি, আমাদের সেই সুযোগ-সুবিধা ডেভেলপ হয়নি।’

‘যতই সুযোগ সুবিধা ডেভেলপ করি না কেন সারা বিশ্বে ক্রিকেট অনেক এগিয়ে গেছে। শুধু বাংলাদেশ নয়, অন্যান্য দেশও উন্নতি করেছে। ওদের সঙ্গে খাপ খাইয়ে চলতে গেলে আমাদের আরো অনেক কিছু করতে হবে। যা করেছি, এখন পর্যন্ত যে সফলতা পেয়েছি এটা ধরে রাখার জন্য অনেক কিছু করতে হবে। এটাই বাস্তবতা।’

ওয়ানডের পাশাপাশি টি-টোয়েন্টিতে দলের লক্ষ্য নিয়ে বলেন, ‘টি-টোয়েন্টিতে আমাদের অবস্থান অবশ্যই কোনো অবস্থাতে ভালো না, ছিলও না। সেদিক থেকে চিন্তা করে দেখলে টি-টোয়েন্টি ও টেস্টে উন্নতি করার সুযোগ রয়েছে। আমাদের করতেও হবে। টি-টোয়েন্টি সমস্যা হচ্ছে, এটা পাওয়ার গেম।’

‘আমাদের ব্যাটিংয়ে সেই পাওয়ারটা রপ্ত করতে পেরেছি বলে মনে হয় না। আমরা ওতো ভালো না। তবে একেবারেই যে না তা না। ভালো করার জন্য যেটা দরকার সেটা নেই। আরেকটি দিক বোলিং, ফিল্ডিং আসলে তিনটা বিভাগেই উন্নতি দরকার।’

‘বোলিংয়ে বৈচিত্র্য এসেছে, উন্নতি করেছি টি-টোয়েন্টিতে। ফিল্ডিংটা সাম্প্রতিক সময়ে, কয়েকটা টেস্ট দেখে মনে হয়েছে আগেরটা চেয়ে বেটার। আমি বলছি না খুব ভালো ফিল্ডিং হয়েছে। তবে আগের চেয়ে বেটার হয়েছে।’

বর্তমানে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে বাংলাদেশ দল আছে ওমানে। দলের কাছে প্রত্যাশা নিয়েও এদিন কথা বলেন পাপন।

তিনি বলেন, ‘যেহেতু শেষ তিনটা সিরিজ এখানে জিতেছে, আমার দৃঢ় বিশ্বাস যে আত্মবিশ্বাস নিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ সেটা বিশ্বাকপে খেলার জন্য সাহায্য করবে। কিন্তু টি-টোয়েন্টি আনপ্রেডিকটেবল গেম। ফরম্যাটটাই আনপ্রেডিকটেবল। কাজেই বলা কঠিন ভালো করতে পারবে কিনা। সবচেয়ে বড় কথা, আমরা সকলেই চাই ভালো করুক।তার চেয়েও বড় কথা হচ্ছে, খেলোয়াড়রা অনেকেই বিশ্বাস করে যে তারা ভালো করতে পারে। এই সাহসটা, বিশ্বাসটা দরকার ছিল।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

সর্বোচ্চ ভোট পাওয়া পাপন বললেন কারও কাছে ভোটই চাননি

Read Next

এবার বিসিবি সভাপতির সামনে যে তিন চ্যালেঞ্জ

Total
1
Share