যুক্তরাষ্ট্রের ক্রিকেট লিগ খেলতে পাকিস্তান ছাড়লেন উমর আকমল

উমর আকমল

পাকিস্তানের মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান উমর আকমল ক্যালিফোর্নিয়ায় লিগ ক্রিকেট খেলতে পাকিস্তান থেকে ক্যালিফোর্নিয়ার উদ্দেশ্যে উড়াল দিয়েছেন। তিনি প্রিমিয়ার সি লিগে ক্যালিফোর্নিয়া জালমির হয়ে খেলবেন। নর্দার্ন ক্যালিফোর্নিয়া ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সাথে একটি স্বল্পমেয়াদী চুক্তি স্বাক্ষর করলেও তিনি একটি দীর্ঘমেয়াদী চুক্তি খুঁজছেন।

আকমল পিসিবি ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনস টি -টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টে খেলছিলেন, যেখানে তিনি সেন্ট্রাল পাঞ্জাব সেকেন্ড ইলেভেনের প্রতিনিধিত্ব করছিলেন। সেখানে ভাল পারফরম্যান্স করতে না পারায় তাকে প্রথম একাদশ ঘরোয়া দলের জন্য নির্বাচিত করা হয়নি এবং সেকেন্ড-স্ট্রিং দল জাতীয় টি-টোয়েন্টি কাপ ২য় একাদশের জন্য খেলতে বলা হয়েছিল।

টুর্নামেন্টে তার খারাপ পারফরম্যান্সের পর তিনি মধ্য-মৌসুমে পাকিস্তান ছেড়েছিলেন এবং এখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে খেলার জন্য প্রস্তুত। আসন্ন কায়েদ-ই-আজম ট্রফি এবং ওয়ানডে কাপে আকমলের অংশগ্রহণ যথাক্রমে ২০ অক্টোবর এবং ২৫ ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়ার কথা হলেও তা আপাতত অনিশ্চিত।

৩১ বছর বয়সী আকমল শৃঙ্খলাজনিত সমস্যার কারণে দলের বাইরে ছিলেন। স্পট ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়ে তা না জানানোয় ২০২০ পাকিস্তান সুপার লিগ (পিএসএল) শুরুর ঠিক আগে তাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) প্রথমে তাকে তিন বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছিল কিন্তু পরে আবেদনের পর তার নিষেধাজ্ঞা দেড় বছরের মধ্যে নামিয়ে আনা হয়। তিনি নিষেধাজ্ঞার দৈর্ঘ্য নিয়ে পিসিবি-র বিরুদ্ধে আর্বিট্রেশন ফর স্পোর্টস (সিএএস) -এ আরও আবেদন করেছিলেন, যার ফলে তার ১৮ মাসের নিষেধাজ্ঞা ছয় মাসের মধ্যে হ্রাস করা হয়েছিল। আকমল প্রায়ই টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে তার ঝামেলাপূর্ণ সম্পর্কের জন্য খবরে ছিলেন।

আকমলের পরিবারের একজন সদস্য মত প্রকাশ করেছেন যে, উমর আকমলের সঙ্গে সবসময় বৈষম্যমূলক আচরণ করা হয়েছিল- ‘আরও কয়েকজন আছেন যাদেরকে বড় অভিযোগে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল কিন্তু প্রত্যাবর্তনের জন্য অভূতপূর্ব সমর্থন দেওয়া হয়েছিল। উমরের কাছে এই ব্যবস্থা কখনই ন্যায্য ছিল না।’

এর আগে, স্পট ফিক্সিং নিষেধাজ্ঞার পর মোহাম্মদ আমিরকে সমর্থন করার জন্য পিসিবিকে পক্ষপাতদুষ্ট বলে অভিহিত করা হয়েছিল। জাতীয় দলের কিছু খেলোয়াড়ও দলে তার অন্তর্ভুক্তি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তদুপরি, পিসিবির বিরুদ্ধে কিছু খেলোয়াড়দের অনুকূলে থাকার অভিযোগ রয়েছে, বিশেষ করে আইসিসির পুরুষদের টি -টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে আজম খান এবং শোয়েব মাকসুদকে সাম্প্রতিকভাবে বেছে নেওয়ার পর।

আকমলের পরিবারের সদস্য বলেন, ‘দুর্বল ফিটনেস সহ কয়েকজন খেলোয়াড়কে বেছে নেওয়ার জন্য স্পষ্ট সমঝোতা করা হয়েছিল, কিন্তু বেঞ্চমার্কটি তার জন্য আরও কঠোর করা হয়েছিল যাতে তাকে বাইরে রাখা যায়।’

নিষেধাজ্ঞা শেষ করার পর তিনি এখন যুক্তরাষ্ট্রে আরও ভালো সুযোগ খুঁজছেন। আকমলের আগে পাকিস্তানের প্রাক্তন ওপেনার সামি আসলামও যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ী হন এবং সেখানে ক্রিকেট খেলেন।

-রনি-ডাকুয়া-

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

রাত পোহালেই বিসিবি নির্বাচন, সম্পন্ন সব আয়োজন

Read Next

ওমানের উইকেট দেখেই উচ্ছ্বসিত সৌম্য

Total
13
Share