জায়সওয়াল-দুবের ঝড়ে ম্লান রুতুরাজের শতরান, রাজস্থানের স্বস্তির জয়

featured photo updated v 1

রুতুরাজ-জাদেজার ব্যাটিং তান্ডবের দিন জ্বলে উঠতে পারলেন না মুস্তাফিজ। থাকলেন উইকেট শূন্য। তবুও ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে জিতল রাজস্থান রয়্যালস। চেন্নাইয়ের করা পাহাড়সম ১৮৯ রান রাজস্থান টপকায় ১৭.৩ ওভারেই। প্লে অফের দৌড়ে টিকে রইল স্যামসনের দল। জায়সওয়াল-দুবের ঝড়ো ইনিংসে ম্লান হয়ে গেল রুতুরাজের শতরান। তবে দল হারলেও ৬০ বলে সেঞ্চুরি হাঁকানো রুতুরাজ জিতে নিলেন ম্যাচ সেরার পুরষ্কার।

আবুধাবিতে প্রথমে ব্যাট করে ২০ ওভারে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ১৮৯ রান তোলে চেন্নাই সুপার কিংস। এদিন টসে জিতে বোলিংসের সিদ্ধান্ত নেন রাজস্থান রয়্যালসের অধিনায়ক সাঞ্জু স্যামসন। কিন্তু সেই সিদ্ধান্ত খুব একটা সুখকর হয়নি। ফাফ ডু প্লেসিস ও রুতুরাজ গায়কোয়াড়ের ব্যাটে উড়ন্ত সূচনা পায় চেন্নাই। তবে ৪৭ রানের উদ্বোধনী জুটি ভাঙে ফাফ ডু প্লেসিসের বিদায়ে। ২৫ রান করে রাহুল তেওয়াটিয়ার শিকার হন তিনি।

তিন নম্বরে নেমে ব্যাট হাতে সুরেশ রায়না বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। নিজের পরের ওভারে আবার আঘাত হানেন তেওয়াটিয়া। কেবল ৩ রানেই থেমে যায় রায়নার ইনিংস। অপরদিকে দ্রুত রান তুলতে থাকেন রুতুরাজ গায়কোয়াড়। অর্ধরশতরানও পূরণ করেন তিনি। রাহুল তেওয়াটিয়ার তৃতীয় শিকার হয়ে ফেরার আগে মইন আলির ব্যাট থেকে আসে ২১ রান। দ্রুত ফেরেন আম্বাতি রাইডু (২)।

এরপরই ঝড় তোলেন রবীন্দ্র জাদেজা ও রুতুরাজ গায়কোয়াড়। শেষ ২২ বলে তাঁদের ৪৯ রানের জুটি। মুস্তাফিজের করা ইনিংসের শেষ বলে ছয় মেরে সেঞ্চুরি পূরণ করেন রুতুরাজ গায়কোয়াড়।

বল হাতে রাজস্থানের হয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন রাহুল তেওয়াটিয়া। তবে খরুচে বোলিংয়ের হতাশায় মুস্তাফিজুর রহমান। ৪ ওভারের কোটায় ৫১ রান খরচ করলেও ফিজ এদিন থাকেন উইকেট শূন্য। ৫১ রান ব্যয়ে ইনিংসের সবচেয়ে খরুচে বোলারও হয়েছেন।

১৯০ রানের লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক মেজাজে রাজস্থান রয়্যালসের দুই ওপেনার যশস্বী জায়সওয়াল ও এভিন লুইস। বিধ্বংসী মেজাজে মাত্র ১৯ বলেই নিজের অর্ধশতরান পূরণ করেন জায়সওয়াল। তবে ব্যক্তিগত ২৭ রানে লুইস বিদায় নিলে ভাঙে ৭৭ রানের জুটি।

পাওয়ার প্লে তে ৮১ রান তুলে রাজস্থান। যা এবারের আইপিএল মৌসুমের সর্বোচ্চ। ঝড়ের গতিতে ফিফটি হাঁকানো জায়সওয়াল এরপর আর ইনিংস বড় করতে পারেনি। ফেরত যান পঞ্চাশ রানে থেকেই। ২১ বলে তাঁর এই ইনিংস সাজানো ৬ চার ও ৩ ছক্কায়।

এরপর অধিনায়ক সাঞ্জু স্যামসনকে সঙ্গে নিয়ে শিবম দুবে রানের চাকা এগিয়ে নিয়ে যান। স্যামসন ২৮ রানে আউট হয়ে গেলেও শেষপর্যন্ত ৪২ বলে ৬৪ রান করে অপরাজিত থাকেন শিবম দুবে। মারেন ৪টি চার এবং ৪টি ছয়। ১৫ বল বাকি থাকতেই ম্যাচ জিতে নিল রাজস্থান রয়্যালস। পাশাপাশি লিগ টেবিলের শীর্ষে থাকা দলকে হারিয়ে প্লে-অফে যাওয়ার রাস্তাও খোলা রাখল তাঁরা।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ (৪৭তম ম্যাচ)

চেন্নাই সুপার কিংসঃ ১৮৯/৪ (২০ ওভার) রুতুরাজ ১০১*, ডু প্লেসিস ২৫, রায়না ৩, মইন ২১, জাদেজা ৩২*; তেওয়াটিয়া ৩/৩৯, সাকারিয়া ১/৩১

রাজস্থান রয়্যালসঃ ১৯০/৩ (১৭.৩ ওভার) লুইস ২৭, জায়সওয়াল ৫০, স্যামসন ২৮, শিবম ৬৪*, ফিলিপস ১৪*; শারদুল ২/৩০, আসিফ ১/১৮

ফলাফলঃ রাজস্থান রয়্যালস ৭ উইকেটে জয়ী

ম্যাচ সেরাঃ রুতুরাজ গায়কোয়াড় (চেন্নাই সুপার কিংস)।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

অন্যরকম যুদ্ধ জয়ের গল্প শোনালেন যুব দলের ক্রিকেটার

Read Next

ওমানে ঘূর্ণিঝড়, মাহমুদউল্লাহদের ফ্লাইট নিয়ে শঙ্কা

Total
1
Share