অন্যদের মতো সুযোগ না পাবার আক্ষেপ সালমান বাটের

অন্যদের মতো সুযোগ না পাবার আক্ষেপ সালমান বাটের

২০১০ সালে স্পট ফিক্সিং কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়ে ৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছিলেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক সালমান বাট। ফিরে এসে ঘরোয়া ক্রিকেট ভালোই উপভোগ করেছিলেন।

তবে শাস্তি ভোগ করার পর মোহাম্মদ আমিরকে জাতীয় দলে যেভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়, সেভাবে সালমান বাটের ক্ষেত্রে সুযোগ দেওয়া হয়নি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক গতিদানব কার্টলি অ্যামব্রোসের ইউটিউব চ্যানেলে এক সাক্ষাৎকারে সালমান জানান, বিভিন্ন সময়ে টেস্ট ম্যাচের জন্য তাকে প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছিল।

‘যখন তখন বলা হচ্ছিল, আমাকে অস্ট্রেলিয়ায় পাঠানো হবে, আমাকে ইংল্যান্ডে পাঠাবে, কিন্তু তা কখনও হয়নি। এমনকি ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের আগেও বলা হচ্ছিল, আমাকে টেস্ট ম্যাচে ডাকা হবে। কিন্তু সেই ক্ষণ আর আসেনি। আমার মনে হচ্ছিল, যদি আমাকে জাতীয় দলে না ডাকা হয়, তবে আমার ঘরোয়া লিগে খেলার কোন অর্থ নেই। এর মানে হচ্ছে আপনি একই জায়গায় অবস্থিত আছেন।আপনাকে নিয়ে কোন কিছু ভাবা হয়নি।’

এই বাহাতি ব্যাটসম্যান জানান, তাকে অন্যদের মত স্বাগত জানানো হয়নি এবং ঘরোয়া ক্রিকেটে তার প্রমাণের কিছু বাকি ছিল না।

‘হ্যা, আমার ভুল হয়েছিল এবং বাজে সময় পার করেছিলাম। কিন্তু আমি এটা কখনও ভাবিনি। অন্যরা যেভাবে দলে এসে অভ্যর্থনা পাচ্ছে, আমার ক্ষেত্রে তা করা হয়নি। আমি ৫ বছর শাস্তি পেয়ে ফিরে আসি কিন্তু অন্যদের একই সুবিধা আমার জন্য প্রযোজ্য হয়নি। ৫ বছর শাস্তি পেয়ে ফিরে আসায় তারা যে আমাকে সমানভাবে মূল্যায়ন করলো না, এর মানে কি?’

‘অনেকে ছিল, যাদের সাথে আমার সম্পর্ক ভালো ছিল না। কেউ যদি সাহস করে ফেলতো এমনটা আর কখনো হবে না, আমার ভীষণ ভালো লাগতো। ৬ বছরের প্রতিদিন আমি অনুশীলন করেছিলাম এবং মনে করেছিলাম আমি ফিরে আসবো। যদিও তা হয়নি আর,’ বলে শেষ করেন সালমান বাট।

৯৭ ডেস্ক

Read Previous

হার্দিকের ফিনিশিংয়ে মুম্বাইয়ের ৬ উইকেটের জয়

Read Next

পিসিবি’র সিইও পদ থেকে ওয়াসিম খানের পদত্যাগ

Total
25
Share