ভালো উইকেটে ভালো ম্যাচ হয়েছে বলছেন টম লাথাম

লাথাম

১৪২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করে শেষ ওভারে গড়ানো ম্যাচে ৪ রানে হেরেছে নিউজিল্যান্ড। টি-টোয়েন্টি বিবেচনায় লো স্কোরিং ম্যাচ বলা যায় নিশ্চিতভাবে। তবে ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের পর উইকেটের প্রশংসা করেছেন কিউই দলপতি টম লাথামও। কারণ এমন ম্যাচই যে ভুলে যেতে বসেছিল মিরপুরের মন্থর উইকেট।

প্রথম ম্যাচেই ৬০ রানে গুটিয়ে গেছে কিউইরা, জেতার আগে বাংলাদেশও হারিয়েছিল ৩ উইকেট। এর আগে অস্ট্রেলিয়া সিরিজের পাঁচ ম্যাচে দুই দল মিলে দলীয় সর্বোচ্চ ১৩১!

প্রথম ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বেহাল দশার পর উইকেট নিয়ে সমালোচনা হয়েছে বেশ। বিশেষ করে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতির দিক থেকে এমন উইকেট কতটা সাহায্য করবে টাইগারদের এ নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন।

প্রথম ম্যাচে ৫ নম্বর উইকেটে খেলা হলেও দ্বিতীয় ম্যাচ হয়েছে ৩ নম্বর উইকেটে। নম্বর বদলের সাথে আচরণেও পার্থক্য দেখা গেছে। বড় সংগ্রহের আভাস দিয়েছিল আগে ব্যাট করা বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ১৪১ রানে থামতে হয়।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে অন্য প্রান্তে আসা যাওয়া চললেও কিউই অধিনায়ক টম লাথাম খেলেছেন ৬৫ রানের হার না মানা ইনিংস। শুরুতে উইল ইয়াং (২২) ও পরে কোল ম্যাককঞ্চিকে (১৫*) ম্যাচও প্রায় বের করে ফেলছিলেন। তবে নাটকীয় শেষ ওভারে গিয়ে পরাজয় বরণ করেন ৪ রানে।

হারলেও লাথাম জানান ভালো উইকেট ছিল বলেই জমে যাওয়া ভালো একটি ম্যাচ হয়েছে, ‘ম্যাচটি শেষ ওভার পর্যন্ত নিয়ে যেতে পারা দারুণ ছিল। আমি মনে করি, আগের ম্যাচটি থেকে আমরা শিখেছি এবং জয়ের লক্ষ্যে শেষ ওভার পর্যন্ত ম্যাচ নিয়ে যেতে পারা একটি দারুণ ব্যাপার ছিল। আসলে আমার মনে হয়, ভালো উইকেট হলেই ম্যাচ ভালো হয় এবং আজ সেটিই হয়েছে।’

বল হাতে কিউই স্পিনার রাচিন রবীন্দ্রের শিকার ২২ রানে ৩ উইকেট। ভালো করেছে বাকি দুই স্পিনার আজাজ প্যাটেল (২০ রানে ১ উইকেট) ও কোল ম্যাকঞ্চিও (২৪ রানে ১ উইকেট)। পেসাররাও নিজেদের জায়গায় খারাপ করেননি।

বাংলাদেশকে ১৪১ এ আটকে দিয়ে নিজেরাও প্রায় সেই রান তাড়া করার পর্য্যাএ চলে যাওয়া। এমন রোমাঞ্চে ভরা ম্যাচ উপহার দেওয়ায় সতীর্থদের প্রশংসায় ভাসালেন কিউই দলপতি।

টম লাথাম ম্যাচ শেষে বলেন, ‘রাচিন (রবীন্দ্র) ভালো বোলিং করেছে এবং সত্যিই সে খুব ভালো কাজ করেছে। আমরা যেমনটি চেয়েছিলাম তেমন করতে পারিনি তবে আমার মনে হয় ১৩০-১৪০ প্রতিযোগিতামূলক স্কোর।’

‘আমার লক্ষ্য ছিল পুরো ইনিংস জুড়ে ব্যাটিং করা এবং সেই সাথে বাকিরা একটু মেরে খেলবে। সেই লক্ষ্য ধরে এগিয়ে আমরা শেষ ওভার পর্যন্ত ম্যাচ নিয়ে যেতে পেরেছি এবং ছেলেরা বদলে গিয়ে এমন খেলা উপহার দেওয়ার জন্য আমি গর্বিত।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

পোপ-ওকসের ব্যাটে ইংলিশদের লিড, তবুও আশা দেখছে ভারত

Read Next

রমিজ রাজার সঙ্গে যে আলোচনা হয়েছে বাবর আজমের

Total
1
Share