উইকেট থেকে পাওয়া সাহায্যের কথা অস্বীকার করছেন না মাহমুদউল্লাহ

উইকেট থেকে পাওয়া সাহায্যের কথা অস্বীকার করছেন না মাহমুদউল্লাহ

টি-টোয়েন্টিতে ১৪০ রানকে কখনোই আদর্শ দলীয় সংগ্রহ বলার উপায় নেই। তবে মিরপুরের পিচে সাম্প্রতিক সময়ে যেসব ম্যাচ হয়েছে তাতে আজ (৩ সেপ্টেম্বর) নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের করা ১৪১ অনেক বেশিই। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে এই রান প্রায় তাড়াও করে ফেলছিল কিউইরা। উইকেট এদিন ব্যাটিং সহায়ক ছিল তা অস্বীকার করেননি টাইগার দলপতি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ বাংলাদেশ জিতেছিল ৪-১ ব্যবধানে। তবে দুই দল মিলে সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ বাংলাদেশের করা ১৩১। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টিতে উইকেট যেন আরও নাজুক। কিউইরা অলআউট হয়েছে মাত্র ৬০ রানে। এই লক্ষ্য তাড়ায় নেমে বাংলাদেশও হারায় ৩ উইকেট।

তবে আজ দ্বিতীয় ম্যাচে আগে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশ ইনিংসেই মিলেছে উইকেট ব্যাটসম্যানদের জন্য কিছুটা হলেও যে সহায়ক হচ্ছে। টাইগার দুই ওপেনার তুলে ফেলে ৫৯ রান। পরের দ্রুত ৩ উইকেট হারালেও ১৫০ বা তার বেশি সংগ্রহের দিকেই হাঁটছিল বাংলাদেশ।

যদিও শেষ পর্যন্ত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাটে ১৪১ রানেই থামতে হয়। তবে পরে ব্যাট করা কিউইরাও পেয়েছে উইকেট থেকে সহায়তা। অধিনায়ক টম লাথান অপরাজিত ৬৫ রানের ইনিংস খেলেও অবশ্য শেষ ওভারের রোমাঞ্চে ৪ রানে ম্যাচ হেরেছে।

মিরপুরের মন্থর উইকেটে কিছুটা ব্যাটিং সহায়তা পেয়েছে এ ম্যাচে তা জানিয়ে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে টাইগার দলপতি রিয়াদ বলেন, ‘আগের ম্যাচের তুলনায় আজকে উইকেট বেশ ভালো ছিল। দিনের আলোয় আমাদের ব্যাটিংয়ের সময় কিছুটা স্পিন ধরছিল, বাউন্সও ছিল একটু উঁচুনিচু হচ্ছিল। ফ্লাডলাইটের আলোয় উইকেট আরও ভালো হয়েছে। বোলাররা খুবই ভালো করেছে, এই উইকেটে ১৪০ রান নিয়ে জয় এনে দিয়েছে। বোলারদেরকেই কৃতিত্ব দিতে হবে।’

‘এই উইকেটে নতুন বলে ব্যাট করা খুব কঠিন। তখন বলে সিম শক্ত থাকে, বেশ বাউন্স হয়, কিছু বল পিছলে যায়, কিছু বল খুব ধারালো স্পিন করে। আমার মনে হয় নাইম ও লিটন খুব ভালো ব্যাটিং করেছে। পাওয়ার প্লেতে আমাদের যেমন শুরু দরকার ছিল তারা যথার্থভাবে তা এনে দিয়েছে। মাঝখানে মোটামুটি ভালো কিছু পার্টনারশিপ হয়েছে। এই উইকেটে ১৪১ ভালো সংগ্রহ।’

‘অস্ট্রেলিয়া সিরিজেও নতুন বলে ব্যাট করা কঠিন ছিল। ওদের ওপেনিং জুটিগুলো বেশি সফল হয়নি। আমাদের এক ম্যাচে শুধু একটু ভালো হয়েছে, বাকি ম্যাচগুলোতে হয়নি। আজকে লিটন ও নাইম যে ইনিংস খেলেছে তা দেখা অনেক স্বস্তির ছিল। যেভাবে গ্যাপ বের করে রান করেছে, অনেক ভূমিকা রেখেছে।’

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

মুস্তাফিজে আস্থা হারাননি মাহমুদউল্লাহরা

Read Next

মাইলফলক স্পর্শের আগে কোন পরিকল্পনা নেই মাহমুদউল্লাহ’র

Total
1
Share