দুই ওপেনারের ব্যাটে বাংলাদেশের ১৪০ পার

দুই ওপেনারের ব্যাটে বাংলাদেশের ১৪০ পার

দল জয়ের ধারায় ছিল, তবে চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছিল বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটির ব্যর্থতা। ৮ ম্যাচ পর উদ্বোধনী জুটিতে ফিফটির দেখা পেল টাইগাররা। বিশেষ করে মিরপুরের পিচ বিবেচনায় লিটন দাস ও নাইম শেখের ৫৯ রানের জুটিই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে বড় বিজ্ঞাপন, কিছুটা স্বস্তিরও। তাদের গড়ে দেওয়া ভীতের পর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাটে চড়ে বাংলাদেশ পেয়েছে ৬ উইকেটে ১৪১ রানের পুঁজি।

বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ৩৯ রান নাইম শেখের ব্যাটে। ৩৩ রান এসেছে আরেক ওপেনার লিটন দাসের ব্যাট থেকে। অধিনায়ক রিয়াদ অপরাজিত ছিলেন ৩৭ রানে।

ইনিংসের গোড়া পত্তন করতে নেমে কোল ম্যাককঞ্চির করা ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই খালি হাতে ফিরতে পারতেন লিটন। স্কয়ার লেগে তার সহজ ক্যাচ ছেড়েছে কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। জীবন পেয়ে আজাজ প্যাটেলের পরের ওভারেই ব্যাক টু ব্যাক চার হাঁকান লিটন।

চতুর্থ ওভারে হামিশ বেনেটকে দিয়ে পেস আক্রমণ আনেন কিউই অধিনায়ক তম লাথাম। সময়ের সাথে সাবলীল ব্যাটিংয়ে পাওয়ার প্লেতে ৩৬ রান তুলে ফেলে নাইম-লিটন।

৮.৩ ওভারেই জুটিতে যোগ হয় ৫০ রান। ৮ ম্যাচ পর ওপেনিংয়ে জুটির ফিফটির দেখা পেল বাংলাদেশ। রাচিন রবীন্দ্রের করা ১০ম ওভারের প্রথম বলেই স্লগ সুইপে দারুণ এক ছক্কা লিটনের ব্যাটে।

তবে এক বল পরই নিউজিল্যান্ডকে প্রথম সাফল্য এনে দেন রবীন্দ্র। বাঁহাতি এই স্পিনারের বাইরের বল স্টাম্পে টেনে আনেন লিটন। ফিরেছেন ২৯ বলে ৩ চার ১ ছক্কায় ৩৩ রান করে। নাইমের সাথে ভাঙে ৫৯ রানের জুটি। ক্রিজে এসে প্রথম বলেই স্টাম্পিং মুশফিকুর রহিম। হ্যাটট্রিক সম্ভাবনা জাগে রবীন্দ্রের।

পরপর দুই বলে উইকেট হারালেও বাংলাদেশকে অস্বস্তিতে পড়তে দিতে চাননি সাকিব আল হাসান। তবে ২ চারে ৭ বলে ১২ রান করে ফিরতে হয় তাকেও। ম্যাককঞ্চির বলে মিড অফে দুইবারের চেষ্টায় ক্যাচ তালুবন্দী করেন অভিষিক্ত বেন সিয়ার্স।

১৩ রানের ব্যবধানে ৩ উইকেট হারানো বাংলাদেশকে পথেই রাখে নাইম শেখ ও অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। পেসার বেন সিয়ার্সের করা ১২তম ওভারে নাইমের ব্যাট থেকে আসে ২ চার। ১৪তম ওভারের প্রথম বলে রবীন্দ্রকে চার হাঁকান রিয়াদ। ১৫তম ওভারের পঞ্চম বলে ডগ ব্রেসওয়েলকে চার মেরে দলীয় রান ১০০ পার করে রিয়াদ।

তবে পরের ওভারেই রবীন্দের তৃতীয় শিকার হয়ে নাইম ফেরেন ৩৯ বলে ৩৯ রান করে। রিয়াদের সাথে ভাঙে ৩৪ রানের জুটি। ক্রিজে এসে বেশিক্ষণ টিকেননি আফিফ হোসেনও (৩ বলে ৩)। এরপর রানের গতি মন্থর হলেও শেষ দুই ওভারে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও নুরুল হাসান সোহান ২৪ রান তুলে ১৪১ রানের দলীয় সংগ্রহ দাঁড় করান।

১৫ ওভারে ১০৩ রান তোলা বাংলাদেশ শেষ ৫ ওভারে তোলে ৩৮ রান। শেষ পর্যন্ত রিয়াদ ৩২ বলে ৫ চারে ৩৭ ও সোহান ৯ বলে ১৩ রানে অপরাজিত ছিলেন। কিউইদের হয়ে রাচিন রবীন্দ্র নেন সর্বোচ্চ ৩ উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর (১ম ইনিংস শেষে):

বাংলাদেশ ১৪১/৬ (২০), নাইম ৩৯, লিটন ৩৩, মুশফিক ০, সাকিব ১২, মাহমুদউল্লাহ ৩৭*, আফিফ ৩, সোহান ১৩; আজাজ ৪-০-২০-১, ম্যাককঞ্চি ৪-০-২৪-১, হামিশ ৪-০-৩২-১, রবীন্দ্র ৪-০-২২-৩।

৯৭ প্রতিবেদক

Read Previous

অ্যাডায়ারের ক্যারিয়ার সেরা বোলিং, আইরিশদের জয়

Read Next

টাইগার যুবাদের বিপক্ষে আফগানদের স্কোয়াড ঘোষণা

Total
1
Share